মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১৭

পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের হৃদয়ের ১৩ গুণ বেশি ক্ষতি করে সিগারেট! সমাজ নয়, বলছে গবেষণা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ধূমপান শরীরের জন্য ক্ষতিকর, সেটা সকলেই জানেন। একই সঙ্গে জানেন, লিঙ্গবৈষম্য মোটেই ভাল জিনিস নয় সমাজের পক্ষে। কিন্তু আপনি জানলে অবাক হবেন, ধূমপানের অভ্যেসের সঙ্গে লিঙ্গবৈষম্য ওতোপ্রোত ভাবে জড়িত। কারণ তথ্য বলছে, পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের হৃদরোগের সম্ভাবনা কয়েক গুণ বেশি বাড়িয়ে দেয় নিয়মিত ধূমপান। আর তা আরও বেশি ক্ষতিকর ৫০ বছরের কম বয়সি মহিলাদের ক্ষেত্রে।

সম্প্রতি একটি গবেষণায় জানা গিয়েছে, ১৮ থেকে ৪৯ বছর বয়সি ধূমপায়ী মহিলাদের ক্ষেত্রে হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা ১৩ গুণ বেড়ে যায় নন-স্মোকারদের তুলনায়। আমেরিকান কলেজ অফ কার্ডিওলজি জার্নালে প্রকাশিত একটি রিপোর্টে গবেষকেরা এমনটাই দাবি করেছেন সম্প্রতি।

রিপোর্টটির সহ-লেখক ডক্টর এভার গ্রেচ বলেন, “ধূমপানের ঝুঁকি নিয়ে গবেষণা ও সমীক্ষা করতে গিয়ে এই তথ্যটা পেয়েছি আমরা। ধূমরান বড়সড় হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকটা বাড়িয়ে দিচ্ছে, এবং সে ঝুঁকির তীব্রতা কম-বয়সি মহিলাদের উপর অনেক বেশি।” সাউথ ইয়র্কশায়ারের কার্ডিওথোরাসিক সেন্টারের কার্ডিওলজিস্ট গ্রেচ আরও দাবি করেন, “আমি আশা করছি, এই রিপোর্টটা মানুষের মধ্যে জন্মানো ভুল ধারণাকে ভাঙবে, যে কেবল বয়স বাড়লেই হৃদরোগের সম্ভাবনা বাড়ে।”

তবে এই রিপোর্ট অবশ্য সবটাই এত নেতিবাচক নয়। গবেষকরা এমনও ইঙ্গিত করছেন, কোনও মহিলা ধূমপায়ী যখন সিগারেট খাওয়া ছেড়ে দেন, তখন তাঁর হৃদরোগের সম্ভাবনা এক ঝটকায় অনেক কম হয়ে, প্রায় নন-স্মোকারদের মতোই হয়ে যায়। “এই পূর্বাবস্থায় ফেরাটা খুবই বিস্ময়জনক। এটাকে ঘন কালো ধোঁয়ার মধ্য়ে দেখা যাওয়া রুপোলি আশার রেখা বলা যেতে পারে।”– বলেন গ্রেচ। তিনি এ-ও জানান, এই তথ্য জানার পরে নিশ্চয় বহু মহিলা ধূমপান করা ছাড়বেন। কারণ অনেকেই ছাড়তে চাইলেও, ‘যা ক্ষতি হওয়ার তো হয়েই গেছে’– এই ভেবে আর অভ্যাস ত্যাগ করেন না। কিন্তু তাঁদের এটাই বলার, গবেষণা কিন্তু বলছে, আপনার ক্ষতি হওয়া থেমে যাবে ধূমপান বন্ধ করলেই। ফলে দীর্ঘ জীবনের কথা ভেবে প্রতিটি মানুষের, বিশেষত মহিলাদের এই মুহূর্তে ধূমপান বন্ধ করা উচিত।

তাঁদের হাসপাতালে আসা করোনারি আর্টারি ব্লকেজ নিয়ে আসা রোগীদের মধ্যে সমীক্ষা শুরু করেন গ্রেচ ও তাঁর সহকর্মীরা। তিন হাজার ৩৪৩ জন এরকম রোগীর তথ্য নিয়ে তিন বছর ধরে গবেষণা করে তাঁরা জানিয়েছেন, ধূমপানের সঙ্গে হার্টের এই সমস্যা ভীষণ ভাবে সমানুপাতিক। এবং এই হার্টের সমস্যার ঝুঁকি আবার মহিলাদের ক্ষেত্রে বেশি। তথ্য বলছে, পুরুষদের ক্ষেত্রে নন-স্মোকারদের তুলনায় স্মোকারদের হৃদরোগের সম্ভাবনা যেখানে চার গুণ বেশি, মহিলাদের ক্ষেত্রে সেটাই সাড়ে ছ’গুণের চেয়েও অধিক বেশি। এবং এই অঙ্ক আবার বিপজ্জনক ভাবে বদলে যাচ্ছে ৫০ বছরের নীচের মহিলাদের ক্ষেত্রে। তাঁদের ক্ষেত্রে এই আশঙ্কাটি ১৩ গুণেরও বেশি অধিক। এটাই পুরুষদের ক্ষেত্রে ৫০ বছরের নীচে হলে সাড়ে আট গুণ বেশি।

চিকিৎসক গ্রেচ অবশ্য এর কারণও আন্দাজ করেছেন তাঁর গবেষণায়। জানিয়েছেন, স্মোকিংয়ের সময়ে মহিলাদের শরীরে ইস্ট্রোজেন হরমোনের উপর এর প্রভাব পড়ে। ফলে ইস্ট্রোজেন হরমোন মহিলাদের শরীরের যে ভাল দিকগুলির খেয়াল রাখে, তা অনেকটাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এরই অনেকগুলি প্রভাবের মধ্যে একটি হল হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা বাড়া।

Comments are closed.