সামনেই ছিল বিয়ে, গায়ে আগুন দিল কেন তরুণী?

0

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    মৃন্ময় পান, বাঁকুড়া: দেখাশোনা করেই বিয়ের দিন ঠিক হয়েছিল। করা হয়ে গিয়েছিল সমস্ত আয়োজন। এমনকী, সারা হয়ে গিয়েছিল নিমন্ত্রণের পর্বও। কিন্তু হঠাৎ বেঁকে বসেন পাত্র। জানিয়ে দেন বিয়ে করবেন না তিনি। অভিযোগ, এরপরেই গায়ে আগুন দেন পাত্রী। গুরুতর আহত অবস্থায় প্রথমে গোগড়া হাসপাতাল ও পরে কলকাতার নীলরতন সরকার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই মঙ্গলবার ভোরে ওই তরুণীর মৃত্যু হয়।

    এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়ালো কোতুলপুরের পানাহার গ্রামে। প্রতারণা ও আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার  অভিযোগ তুলে মৃতার বাবা পুলিশের দ্বারস্থ হলেও কোতুলপুর থানা সেই অভিযোগ নেয়নি।

    কোতুলপুরের পানাহার গ্রামের বাসিন্দা কৃষ্ণ সাঁতরার মেয়ে রেনুকার সঙ্গে হুগলির গোঘাটের এক যুবকের বিয়ে ঠিক হয়েছিল। ১৫ অগষ্ট বিয়ের দিন। সমস্ত আয়োজন শেষ। গত ২৬ জুলাই কোতুলপুরের এক ম্যারেজ রেজিষ্ট্রারের কাছে বিবাহ নিবন্ধীকরণের জন্য আবেদনও করে পাত্রীর পরিবার। সে দিনই ওই যুবক রেনুকাকে বিয়ে করতে অস্বীকার করে বলে অভিযোগ। এই খবর তরুণীর কানে পৌঁছতেই সে গায়ে আগুন ধরিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে বলে পরিবার সূত্রে দাবি করা হয়েছে।

    কৃষ্ণবাবু জানান, তাঁর মেয়ের মৃত্যুর জন্য ওই যুবককে দায়ী করে এ দিন বাঁকুড়ার কোতুলপুর থানায় লিখিত অভিযোগ জানাতে গেলে পুলিশ সেই অভিযোগ নেয়নি।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Leave A Reply

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More