শনিবার, মার্চ ২৩

নিহত সত্যজিৎ বিশ্বাসের স্ত্রী রূপালিই কি রাণাঘাট লোকসভায় তৃণমূল প্রার্থী

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দুষ্কৃতীর গুলিতে নিহত কৃষ্ণগঞ্জের বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাসের স্ত্রী রূপালিই কি এ রাণাঘাট লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের প্রার্থী?

গোড়ায় ব্যাপারটা একেবারেই জল্পনার স্তরে ছিল। এবং তা সীমিত ছিল শুধু নদিয়া জেলার মধ্যেই। কিন্তু তৃণমূল শীর্ষ সূত্রে খবর, তা এখন আলোচনায় উঠে এসেছে কালীঘাটের হরিশ মুখোপাধ্যায় রোডে।

সরস্বতী পুজোর দিন সন্ধ্যায় কৃষ্ণগঞ্জের ফুলবাড়ি এলাকায় মণ্ডপের মধ্যে খুব কাছ থেকে সত্যজিৎকে গুলি করেছিল আততায়ীরা। হাসপাতালের নিয়ে যাওয়ার আগেই মৃত্যু হয়েছিল তৃণমূল বিধায়কের। ঘটনাটা যতটা ভয়াবহ ও মর্মান্তিক, সত্যজিৎ বিশ্বাস খুনের ঘটনা নিয়ে রাজনীতিও হয়েছে ততটাই। এবং তৃণমূল শীর্ষ সূত্রই জানাচ্ছে, নিহত বিধায়কের স্ত্রীকে রাজনীতিতে নিয়ে আসার চেষ্টা শুরু হয়ে গিয়েছে পুরোদমে। এমনিতেই গত সোমবার সত্যজিতের স্মরণসভায় গিয়ে জেলার পর্যবেক্ষক তথা তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় রূপালিকে বলেছিলেন, তুমি রাজনীতিতে এসো। যদিও রূপালি প্রকাশ্যে এ ব্যাপারে এখনও কোনও ইতিবাচক মন্তব্য করেননি।

রাণাঘাটে বর্তমানে তৃণমূলের সাংসদ হলেন তাপস মণ্ডল। সুচারু হালদারকে সরিয়ে ২০১৪ সালে তাঁকে রাণাঘাটে প্রার্থী করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু তাপসবাবুর কাজকর্মে দিদি খুব একটা খুশি নয় বলেই খবর। এমনকি তৃণমূলের জেলার বহু নেতা রাজ্য নেতৃত্বকে রিপোর্টে জানিয়েছেন, রাণাঘাট আসনে এবার বেগ দিতে পারে বিজেপি। এই অবস্থায় তাপস মণ্ডলকে ফের প্রার্থী করা হলে জয়ের সম্ভাবনা নিয়ে সংশয় থাকবে।

তৃণমূলের একটি সূত্রে বলা হচ্ছে, গত সোমবার নদিয়ায় গিয়ে রূপালি বিশ্বাসকে কৃষ্ণগঞ্জের বিধানসভার উপ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন পার্থবাবু। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘনিষ্ঠ তৃণমূলের এক নেতা বলেন, পার্থবাবু বৃহৎ ছবিটা দেখতে পাচ্ছেন না। কৃষ্ণগঞ্জ বিধানসভা আসনের উপ নির্বাচনে অন্য কাউকে প্রার্থী করা যেতে পারে। রূপালিকে বরং রাণাঘাট লোকসভা আসনে প্রার্থী করা হোক। মতুয়া সম্প্রদায়ের মধ্যে সত্যজিতের বিপুল প্রভাব ছিল। রূপালি রাণাঘাটে প্রার্থী হলে একে তো স্থানীয় মানুষের সহানুভূতি পাবেন। দ্বিতীয়ত, মতুয়া ভোটের সবটাই পেতে পারে তৃণমূল।    

সূত্রের খবর, এই প্রস্তাব দলের সর্বোচ্চ নেতৃত্ব গুরুত্ব দিয়েই বিবেচনা করছেন। এখন প্রশ্ন হল, তা হলে রাণাঘাটের বর্তমান সাংসদ তাপস মণ্ডলের ভবিষ্যৎ কী হবেদলের উপরতলার কেউ কেউ বলছেন, তাপসকে সরিয়ে এনে কৃষ্ণনগর লোকসভা কেন্দ্রে প্রার্থী করা হোক। তবে সেই সম্ভাবনা কম বলেই মনে করা হচ্ছে। বরং তৃণমূলের শীর্ষ স্তরে গরিষ্ঠ সংখ্যক নেতারই মত হল, নদিয়া জেলায় তৃণমূলের দুই তাপসকেই প্রার্থী তালিকা থেকে সরিয়ে দেওয়া হোক। বরং কৃষ্ণনগরে প্রার্থী করা হোক রাণাঘাট পশ্চিমের কংগ্রেস বিধায়ক শঙ্কর সিংকে। শঙ্কর সিং এখন তৃণমূলে যোগ দিলেও খাতায় কলমে কংগ্রেসের বিধায়ক। কৃষ্ণনগর আসনের জন্য তাঁর মতো মজবুত নেতা নদিয়া জেলায় নেই।

তবে এটা ঠিক, দিদি এ ব্যাপারে দলে স্পষ্ট কোনও বার্তা দেননি। আর দিন দশেকের মধ্যেই জাতীয় নির্বাচন কমিশন লোকসভা ভোটের নির্ঘন্ট ঘোষণা করে দেবে। সম্ভবত তার পর পরই লোকসভা ভোটে তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করে দেবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  

Shares

Comments are closed.