বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮

স্ত্রীকে ছিনিয়ে নিয়ে গণধর্ষণ, পুলিশ এসে পেটাল স্বামীকেই

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পুলিশের কাছে স্ত্রীয়ের ধর্ষিতা হওয়ার অভিযোগ জানিয়ে থার্ড ডিগ্রির যন্ত্রণা ভোগ করলেন এক ব্যক্তি।  ৭ই জুলাইয়ের এই ঘটনায় প্রশাসনের উপরে আরও একবার বীতশ্রদ্ধ সাধারণ মানুষ।  উত্তরপ্রদেশের মইনপুরি এলাকায় টু-হুইলারে চেপে স্বামী-স্ত্রী যাচ্ছিলেন গন্তব্যে, সে সময়েই বিচ্ছান থানা এলাকায় একটি গাড়ি এসে তাঁদের রাস্তা আটকায়।  মারধোর করে মহিলাকে টেনে নিয়ে যায় গাড়িতে থাকা তিন যুবক।  গণধর্ষণ করা হয় ওই মহিলাকে।  স্ত্রীকে টেনে নিয়ে যেতে দেখে, প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ করায় স্বামীকে প্রচণ্ড মারধোর করে সেখানে ফেলে রেখে চলে যায় দুষ্কৃতীরা।  মইনপুরি মুলায়ম সিং যাদবের লোকসভা আসনের একটি অংশ।

অত্যাচারিত যুবক অজ্ঞান হয়ে অনেকক্ষণ সেখানে পড়েছিলেন।  জ্ঞান ফেরার পর তিনি পুলিশে ফোন করে পুরোটা জানান।  পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাঁকে সাহায্য করার বদলে, তাঁর উপর অত্যাচার চালায় বলে অভিযোগ।  ওই ব্যক্তি নিজেই স্ত্রীকে মেরে ফেলার চেষ্টা করে মিথ্যে কথা বলে পুলিশকে সেখানে ডেকে এনেছেন বলে পুলিশের সন্দেহ হয়।  সেই সন্দেহের বশেই তাঁকে প্রচণ্ড মারধোর করা হয়।  মারের চোটে তাঁর দুটো আঙুলও ভেঙে গেছে।  এতকিছুর মাঝে ওই মহিলা নিজেকে কিছুটা সামলে নিয়ে পুলিশের কাছে থানায় কোনওক্রমে এসে পুরো বিষয়টা আবারও জানান।  তাঁকে কয়েক কিলোমিটার দূরে টেনে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, সে কথাও জানান তিনি।  তবে মহিলার বয়ানের ভিত্তিতে শেষ পর্যন্ত একটি এফ আই আর দায়ের করা হয়েছে পুরো ঘটনার।  তবে এখনও কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি।

তবে যে সব পুলিশ কর্মী পুরো বিষয়টা খতিয়ে না দেখেই ওই ব্যক্তির উপরে এতটা অত্যাচার করলেন তাঁদের কি শাস্তি হবে? তা নিয়ে কিন্তু মুখে কুলুপ এঁটেছেন পুলিশ কর্তারা।  এমনকি বেশ কিছু পুলিশ অধিকর্তা তো গোটা বিষয়টা অস্বীকারও করে যাচ্ছেন।

Comments are closed.