পশ্চিমবঙ্গের নাম বদলে গড়িমসি, পিছনে রাজনীতি ও বাঙালি বিদ্বেষ দেখছেন মমতা

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো : রাজ্যের নাম বদলে পশ্চিমবঙ্গ থেকে বাংলা করার প্রস্তাব দুবছর ধরে ফেলে রেখেছে নরেন্দ্র মোদীর সরকার। সেই নিয়ে এবার কার্যত কেন্দ্রের সঙ্গে লড়াইয়ে নামলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । তাঁর অভিযোগ, এর পিছনে আছে রাজনীতি । বিজেপি আসলে বাঙালি বিদ্বেষী। তাই পশ্চিমবঙ্গকে বঞ্চনা করছে।

মমতা ফেসবুকে লিখেছেন, সম্প্রতি লক্ষ করছি, বিজেপি নিজের রাজনৈতিক স্বার্থে বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থান ও সংস্থার নাম বদলে দিচ্ছে । স্বাধীনতার পরে বেশ কয়েকটি রাজ্য ও শহরের নাম পরিবর্তন করা হয়েছে । ওড়িশা হয়েছে ওদিশা, পন্ডিচেরি হয়েছে পুদুচেরি, ম্যাড্রাস হয়েছে চেন্নাই, বম্বে হয়েছে কে মুম্বই এবং ব্যাঙ্গালোর হয়েছে বেঙ্গালুরু । রাজ্যের মানুষের ভাবাবেগ ও ভাষার প্রতি নজর রেখেই এই পরিবর্তনগুলি করা হয়েছে।

কিন্তু বাংলার ক্ষেত্রে পরিস্থিতি অন্যরকম ।

কেন পরিস্থিতি অন্যরকম তার ব্যাখ্যা করে মমতা বলেন, আমাদের বিধানসভা সর্বসম্মতভাবে প্রস্তাব পাশ করিয়েছে, রাজ্যের নাম হোক বাংলা । আমাদের মাতৃভাষার নাম অনুযায়ী রাজ্যের নাম রাখতে বলা হয়েছে । আমরা বলেছিলাম, ইংরেজিতে রাজ্যের নাম হোক বেঙ্গল, বাংলা ভাষায় হোক বাংলা এবং হিন্দিতে হোক বঙ্গাল । এই প্রস্তাব আমরা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কাছে পাঠিয়েছিলাম।

কেন্দ্রীয় সরকার আমাদের বলে, একই রাজ্যের নাম তিন ভাষায় তিন রকম হতে পারে না । সেইমতো আমরা ফের বিধানসভায় সর্বসম্মত প্রস্তাব গ্রহণ করি, তিন ভাষাতেই রাজ্যের নাম হোক বাংলা । কেন্দ্রে ফের সেই প্রস্তাব পাঠানো হয়। কিন্তু সেই প্রস্তাব দীর্ঘদিন ফেলে রাখা হয়েছে। এতে পরিষ্কার বোঝা যায়, রাজ্যের মানুষকে বঞ্চনা করাই কেন্দ্রের উদ্দেশ্য ।

বুধবার বিজেপির বিরুদ্ধে বাঙালি বিদ্বেষের অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, অসমে এনআরসি করে বলছে বাঙালি খেদাও । কখনও গুজরাতে বলে বিহারি খেদাও । মহারাষ্ট্রেও বিহারি খেদাওয়ের কথা বলে। আমাদের বাংলায় সবাই থাকে। এখানে হিন্দি, উর্দু, নেপালি, রাজবংশী, সব ভাষার স্বীকৃতি আছে । কিন্তু কিছু কিছু জিনিস পাল্টানো যায় না । বাবা-মায়ের নাম, পদবি, দেশের নাম, সব মানুষ জন্মসূত্রে পায় ।

অর্থাৎ তিনি বলতে চেয়েছেন, বাঙালিরা জন্মসূত্রে বাংলা ভাষাকে পেয়েছে। সেই ভাষার নামে রাজ্যের নাম হওয়া উচিত । পশ্চিমবঙ্গ নাম হওয়ার জন্য কীভাবে বাঙালিরা অসুবিধায় পড়ছেন, সেই প্রসঙ্গে মমতা বলেন, যে কোনও সর্বভারতীয় পরীক্ষায় আমাদের রাজ্যের ছেলেমেয়েদের ডাক আসে সকলের শেষে । কোনও সর্বভারতীয় মিটিং হলে সব রাজ্য, এমনকী কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের প্রতিনিধিরা বলে চলে যান, তবে পশ্চিমবঙ্গের ডাক আসে ।

মমতার ইঙ্গিত, রাজ্য বিজেপির নেতাদের বাধায় আটকে আছে নামবদল । তাঁর কটাক্ষ, বিজেপি সেই নেতাদের সিন্দুকে পুরে রেখে দিক ।

দেশের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, কেন্দ্র রাজ্যগুলিকে নির্বাক রেখে দিতে চায় । তারা সাংবিধানিক সংকট ডেকে আনছে । রাজ্যের নাম বদল এমন কিছু ব্যাপার নয়। পার্লামেন্টে অনুমোদন করালেই হয়ে যায় । সরকার একের পর এক ফিনান্স বিল অনুমোদন করাচ্ছে আর রাজ্যের নাম পরিবর্তনের বিল পাশ করাতে পারছে না?

পর্যবেক্ষকদের ধারণা, আগামী দিনে রাজ্যের নাম পরিবর্তনের বিষয়টি বড় ধরনের ইস্যু করে তুলতে চান মমতা । এনআরসি নিয়ে তিনি ইতিমধ্যেই বিজেপির বিরুদ্ধে বাঙালি বিদ্বেষের অভিযোগ তুলেছেন। রাজ্যের নাম পরিবর্তনের ইস্যুতে সেই অভিযোগই তিনি আরও জোরালোভাবে তুলতে চান ।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More