সোমবার, নভেম্বর ১৮

শনিবারেই কেন অযোধ্যা রায় দিচ্ছে সুপ্রিম কোর্ট

দ্য ওয়াল ব্যুরো : আগেই জানা গিয়েছিল, অযোধ্যা মামলার রায় দেওয়া হবে ১৭ নভেম্বরের মধ্যে। কারণ ওই দিন সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ অবসর নিচ্ছেন। কিন্তু ঠিক কবে রায় দেওয়া হবে জানা যাচ্ছিল না। শুরু হয়েছিল জল্পনা-কল্পনা। অনেকেই ভেবেছিলেন, ১১ তারিখ থেকে যে সপ্তাহ শুরু হচ্ছে, তার মধ্যে কোনও একদিন অযোধ্যা নিয়ে রায় দেওয়া হবে। কিন্তু শুক্রবার রাত সাড়ে ন’টা নাগাদ জানা যায়, শনিবার রায় দেবে পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ।

প্রধান বিচারপতি যে দিনটিতে অবসর নেবেন, সেই ১৭ নভেম্বর রবিবার। অবশ্য আদালত যে কোনও দিন বসতে পারে। রায়ও দিতে পারে। কিন্তু সাধারণত কোনও গুরুত্বপূর্ণ মামলার রায় ছুটির দিনে দেওয়া হয় না। প্রধান বিচারপতির শেষ কাজের দিন ১৫ নভেম্বর। সেজন্য অনেকে ভেবেছিলেন, ১৪ অথবা ১৫ নভেম্বর রায় দেওয়া হতে পারে।

সাধারণত আদালত কোনও রায় দেওয়ার পরে বিবাদি পক্ষের কৌঁসুলি বিচারপতিদের কাছে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করার জন্য আবেদন জানান। সেক্ষেত্রে এক-দু’দিন সময় লাগে। যদিও সরকার অথবা আদালত, কেউই আগে ইঙ্গিত দেয়নি কবে রায় ঘোষণা করা হতে পারে। শুক্রবার রাতে আচমকাই রায় ঘোষণার দিনক্ষণ জানিয়ে দেওয়া হয়।

পর্যবেক্ষকদের ধারণা, খুব ভেবেচিন্তেই ঠিক করা হয়েছিল, আগে থেকে রায়ের দিনক্ষণ জানানো হবে না। শেষ মুহূর্তে আচমকা ঘোষণা করা হবে। সমাজবিরোধীরা যাতে সুযোগ না নিতে পারে সেজন্যই এই সিদ্ধান্ত। আগে থেকে রায় ঘোষণার দিন জানতে পারলে তারা নানা ষড়যন্ত্র করত। উত্তেজনা ছড়াত। অথবা হাঙ্গামা বাধাত।

সংবেদনশীল ওই মামলার রায় বেরোনর পরে সমাজবিরোধীরা যাতে তৎপর না হয়ে ওঠে সেজন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিয়েছে কেন্দ্র ও বিভিন্ন রাজ্যের সরকার। প্রধান বিচারপতি নিজে উত্তরপ্রদেশের মুখ্য সচিব রাজেন্দ্র তেওয়ারি ও পুলিশের ডিজি ও পি সিং-কে নিজের চেম্বারে ডেকে নিরাপত্তা ব্যবস্থা সম্পর্কে খোঁজ নেন।

Comments are closed.