বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮

সংখ্যালঘু বেশি হলে স্কুলে ডাইনিং হল, সরকারি নির্দেশ গেল জেলায় জেলায়

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কোনও স্কুলে যদি সংখ্যালঘু পড়ুয়ার সংখ্যা বেশি হয় তবে সেখানে তৈরি হবে ডাইনিং হল। সরকারি বা সরকার পোষিত সব স্কুলের ক্ষেত্রেই এই নীতি নিয়েছে রাজ্য। সরকারি উদ্যোগেই তৈরি করা হবে খাবার ঘর। ইতিমধ্যেই এই মর্মে নির্দেশ পেয়েছে বিভিন্ন জেলার শিক্ষা দফতর। ওই নির্দেশ অনুসারে যে সব স্কুলে কমপক্ষে ৭০ শতাংশ পড়ুয়া সংখ্যালঘু সেখানেই ডাইনিং হল বানানো হবে। স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের মিড ডে মিল খাওয়ার জন্যই এই হল বানানো হবে। শুক্রবার ২৮ জুনের মধ্যে কোন কোন স্কুলে ৭০ শতাংশের বেশি সংখ্যালঘু ছাত্রছাত্রী রয়েছে, তার তালিকা জমা দিতে বলা হয়েছে।

জেলার প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও সরকার পোষিত মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের জেলা কর্তাদের কাছে ওই নির্দেশ পৌঁছেছে। তাতে বলা হয়েছে, গত ১৪ জুন রাজ্য সংখ্যালঘু বিষয়ক দফতরের দেওয়া নির্দেশ অনুসারে ২৮ জুনের মধ্যে স্কুলের তালিকা জমা দিতে হবে।

স্কুলে পড়ুয়াদের মিড ডে মিল খাওয়ার জন্য যে জায়গা তৈরি হয় সর্বশিক্ষা অভিযান প্রকল্পের আওতায়। কিন্তু তার পরেও কেন রাজ্য সংখ্যালঘু বিষয়ক দফতর এই উদ্যোগ নিচ্ছে তা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন। এনিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন তুলেছে রাজ্য বিজেপি। দলের সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসুর অভিযোগ, “তোষণ রাজনীতি কত দূর করা যায় তার একের পর এক উদাহরণ দেখিয়ে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেস সরকার। লোকসভা নির্বাচনের ফল দেখে রাজ্য যেন মরিয়া হয়ে উঠেছে। তোষণের জন্য সংখ্যালঘু পড়ুয়াদেরও ছাড়া হচ্ছে না।” সায়ন্তনের আরও অভিযোগ, তৃণমূল কংগ্রেস দলের সিন্ডিকেট নেতাদের সুযোগ করে দিতেও এই কাজ করছে। তাঁর বক্তব্য, “এক ঢিলে দুই পাখি মারার পরিকল্পনা। এক দিকে, তোষণ। অন্য দিকে, ডাইনিং হল মানেই ইট, বালি, সিমেন্ট। দলের সিন্ডিকেট বাহিনীও করে খাবে এই নির্দেশে।”

তৃণমূল কংগ্রেস অবশ্য এই নির্দেশ মানতে নারাজ। দলের বক্তব্য, সংখ্যালঘু বিষয়ক দফতর চাইলে উদ্যোগী হতেই পারে। এর পিছনে রাজনীতি খোঁজা ঠিক হবে না।

শিক্ষা দফতর দাবি করেছে, তারাও স্কুলে স্কুলে ডাইনিং হল বানাতে চায়। কিন্তু সংখ্যালঘু বিষয়ক দফতর আলাদা করে নির্দেশ দিল কেন? এর জবাবে দফতরের এক কর্তা বলেন, সংখ্যালঘু বিষয়ক দফতর খরচ করছে সংখ্যলঘু উন্নয়নের প্রশ্ন। কিন্তু প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে, এই ভাবে কোনও জনকল্যাণমুখী প্রকল্পের জন্য ধর্মের ভিত্তিতে উন্নয়নরে কাজ করা যায় কি? শিক্ষা দফতর সব স্কুলেই যদি ডাইনিং হল বানায় তবে আলাদা করে সংখ্যালঘু বিষয়ক দফতরের উদ্যোগী হওয়ার দরকার হল কেন?

Comments are closed.