বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৭

আতঙ্কবাদের বিরুদ্ধে লড়তে হলে আমাদের শত্রুতা নয়, আলিঙ্গন করতে হবে! বার্তা আক্রমের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: এক সময়ে সতীর্থ ছিলেন তাঁরা। ভাল খেলোয়াড় হিসেবে পরিচিত ছিলেন দু’জনেই। কাঁধে কাঁধ রেখে দেশের জন্য ব্যাট চালিয়েছেন মাঠে। কিন্তু আজ মাঠের বাইরে ছোট্ট একটা শটে এক জন এগিয়ে গেলেন অন্য জনের চেয়ে।

তাঁরা ইমরান খান এবং ওয়াসিম আক্রম। বিশ্বকাপে ইমরান খানের নেতৃত্বে বিশ্বকাপ এনেছিল পাকিস্তান। ওই দলেই খেলেছিলেন ওয়াসিম আক্রম। ম্যান অফ দ্য ম্যাচও হয়েছিলেন তিনি। আজ, বিশ্বকাপ জয়ের প্রায় তিন দশক পরে দেশে যখন যুদ্ধ পরিস্থিতি, তখন প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসে রয়েছেন ইমরান খান। তাঁকেই টেক্কা দিলেন আক্রম। বললেন, যুদ্ধ নয়, বরং দু’দেশেরই উচিত সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করা৷

১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামায় সেনা কনভয়ে আত্মঘাতী জঙ্গি হানায় শহিদ হন ৪৪ জন ভারতীয় সেনা। তার ১২ দিন পরে ২৬ তারিখে প্রত্যাঘাত হানে ভারতীয় বায়ুসেনা। দাবি করে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের বালাকোটে ৩৫০ জইশ জঙ্গিকে খতম করেছে তারা। এর পরেই একাধিক বার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে পাক সেনা। বুধবার দিনভর গুলির লড়াই চলেছে দু’পক্ষের। লড়াই চলেছে আকাশপথেও। পাক সেনার তরফে গ্রেফতার করা হয়েছে ভারতীয় বায়ুসেনার এক ফ্লাইং কম্যান্ডার অভিনন্দনকে।

এই সময়েই ভারতকে সৌহার্দ্যের বার্তা দিয়ে ওয়াসিম আক্রম টুইটারে লেখেন, ভারাক্রান্ত হৃদয়ে আমি ভারতের কাছে আবেদন করছি, পাকিস্তান তোমাদের শত্রু নয়৷ তোমাদের শত্রু হল আমাদের শত্রু৷ কোনও রক্তক্ষয়ের আগে আমাদের বোঝা উচিত, দু’জনেই একই যুদ্ধক্ষেত্রে লড়াই করছি৷ আতঙ্কবাদের বিরুদ্ধে লড়তে হলে আমাদের আলিঙ্গন করতে হবে৷’

প্রাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান নিজেও শান্তির বার্তা দিয়েছেন আজ। এর পরেই এই টুইট করেন ওয়াসিম৷ ১৯৯২ বিশ্বকাপ জয়ী ইমরানের দলের অন্যতম সৈনিক দেশের কঠিন পরিস্থিতিতেও ক্যাপ্টেনের পাশে দাঁড়ালেন তিনি৷ যুদ্ধ নয়, বরং দুই প্রতিবেশী দেশকেই সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সামিল হতে বললেন ওয়াসিম৷

মঙ্গলবার বালাকোটে ভারতীয় বায়ুসেনার বোম বর্ষণের পর প্রত্যাঘাতের হুমকি দিয়েছিল পাকিস্তান৷ বুধবার সকালে নিয়ন্ত্ররেখা অতিক্রম করে জম্মু-কাশ্মীরে ভারতীয় মিলিটারি ঘাঁটিতে হামলা চালায় পাক বায়ুসেনা৷ কিন্তু ভারতীয় বায়ুসেনার তাড়া করে বোমা ফেলতে ফেলতে পালিয়ে যায় তারা৷ তবে যাওয়ার সময় ভারতীয় বায়ুসেনা পাক বায়ুসেনার এফ-১৬ কে গুলি করে নামায়৷

এর পরই ভারতের প্রতি শান্তি বার্তা দেন পাক প্রধানমন্ত্রী৷ শান্তির বার্তা দিলেও আতঙ্কবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের কথা উল্লেখ করেননি ইমরান৷ পাক প্রধানমন্ত্রী জানান, ‘আমরা আজ অপারেশন করেছি এটা দেখাতে যে, তোমরা নিয়ন্ত্ররেখা লঙ্ঘন করলে আমরাও পারি৷ কিন্তু এটা চলতে থাকলে একটা সময় আসবে, যখন পরিস্থিতি আমার বা নরেন্দ্র মোদী কারও নিয়ন্ত্রণে থাকবে না৷’

কিন্তু ওয়াসিম এ দিনই ইমরানকে মনে করিয়ে দেন সন্ত্রাসবাদ নির্মূল না-করলে নয়া পাকিস্তান সম্ভব নয়৷ বুধবার পূর্ব চিনের শহর উঝানে ভারত, রাশিয়া ও চিনের বিদেশ মন্ত্রীর বৈঠকে আতঙ্কবাদ নির্মূল করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়৷

শুধু তা-ই নয়, যারা আতঙ্কবাদকে সাহায্য করবে তাদের বিরুদ্ধেও আন্তর্জাতিক স্তরে বিচার করার শপথ নেয় এই তিন দেশ৷ এর পরই পিছু হঠার সিদ্ধান্ত নেয় পাকিস্তান৷

ইমরান খানকে টেক্কা দিলেন বিশ্বকাপ জয়ী দলে তাঁরই সতীর্থ৷

Comments are closed.