রবিবার, অক্টোবর ২০

বাজ পড়ে আহত, সারা শরীরে গোবর লেপে প্রাণ বাঁচানোর চেষ্টা যুবকের, কিন্তু বাঁচলেন কি?

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ২০১৯ চলছে, এখনও বাজ পড়ে আহত হলে, কাউকে গোবরে লেপে রেখে দেওয়া হতে পারে কি! হ্যাঁ, রাখা হয়েছে, এবং আহতকে আর ফেরানো সম্ভবও হয়নি।  মারা গেছেন আহত যুবক।

ওড়িশার সুন্দরগড়ের বড়গাঁওয়ের এই ঘটনায় প্রশ্ন উঠছে, এখনও কুসংস্কার এতটা কী করে রয়েছে সমাজে।  পামরা বড়গাঁওয়ের একটা গ্রাম।  সেখানেই থাকতেন মনোরঞ্জন পোধা এবং গোকুল পোধা।  তাঁরা রবিবার এলাকারই একটি বাজারে যান, ফেরার পথে প্রচণ্ড ঝড়-বৃষ্টিতে আটকে পড়েন মাঝপথে।  সেখানেই বাজ পড়ায় জ্ঞান হারান মনোরঞ্জন, গোকুল আহত হয়ে কোনওক্রমে তাঁদের বাড়িতে গিয়ে খবরও দেন।

কিন্তু গ্রামের মানুষজন সেখানে জড়ো হয়ে জ্ঞান হারানো মনোরঞ্জনকে হাসপাতালে না নিয়ে গিয়ে গোবর লেপে বেশ কিছুক্ষণ শুইয়ে রাখেন।  তাঁদের বিশ্বাস, এভাবে গোবরে লেপে শুইয়ে রাখলে সুস্থ করে তোলা যাবে মনোরঞ্জনকে।  অনেকটা সময় এভাবে পেরিয়ে যাওয়ার পরেও যখন তাঁর শারীরিক কোনও উন্নতি দেখা যায়নি, তখন তাঁকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।  ততক্ষণে অবশ্য সব শেষ।  ডাক্তাররা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।  তখনই আহত গোকুলকে বড়গাঁওয়ের কমিউনিটি হেল্থ সেন্টারে ভর্তি করা হয়।

হয় তো ঠিক সময়ে ভর্তি করা হলে মনোরঞ্জনকেও বাঁচানো যেত।  কিন্তু এখনও এ দেশের বহু জায়গায় কুসংস্কারে বুঁদ হয়ে থাকেন মানুষ, আর বারবার সাপে কাটা, বাজ পড়া ইত্যাদিতে একের পর এক মানুষের প্রাণ অসময়ে বিনা চিকিৎসায়, অকারণেই চলে যায়।

Comments are closed.