সোমবার, নভেম্বর ১৮

কারও শরীর নিয়ে লজ্জা দেওয়াই সব চেয়ে লজ্জার! ভাইরাল বিদ্যা বালানের প্রতিবাদী ভিডিও

দ্য ওয়াল ব্যুরো: এ দেশের চলচ্চিত্র দুনিয়ায় নায়িকা শব্দটার সঙ্গে যে বিশেষণগুলো আপনাআপনিই জুড়ে যায়, সেগুলির মধ্যে একটা অন্যতম হল, স্লিম। রোগা। ছিপছিপে। আরও হাজার ‘খুঁত’ নিয়ে অভিনয় জগতে এসে সে সব ঢেকে ফেলা গেলেও, কোনও এক অলিখিত নিয়মের বশে যেন অভিনেত্রী তথা নায়িকাদের তন্বী চেহারার অধিকারী হতেই হবে।

আর এ সবের মাঝেই বিশ্ব জুড়ে পুরোদমে চলছে বডি শেমিং। মানুষের, বিশেষ করে মেয়েদের চেহারার ভাল-খারাপ নিয়ে প্রায়ই বসেছে বিচারসভা। পরিবারের ভিতরে হোক বা সোশ্যাল মিডিয়ায়, পথেঘাটে হোক বা কাজের জায়গায়– বারবারই মহিলাদের শিকার হতে হয়েছে এই বৈষম্যের।

এই চেহারা-বৈষম্যের বিরুদ্ধেই গলা তুলেছেন এক অভিনেত্রী। যাঁর নিজের সর্ব ক্ষণ ছিপছিপে ও টিপটপ থাকার কথা, তিনি নিজেই সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিবাদ করছেন বডি শেমিংয়ের। বলছেন, প্রতিটা মানুষই নিজের মতো করে সুন্দর। বাইরের চেহারা দিয়ে সৌন্দর্য বিচার হয় না।

বিদ্যা বালানের একটি ভিডিও বুধবারই প্রকাশিত হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।  সঙ্গে সঙ্গেই ভাইরাল হতে শুরু করে সেটি। দেখা যায়, বডি শেমিংয়ের নোংরা প্রবণতাকে রীতিমতো শাসন করছেন বিদ্যা। চল্লিশ বছরের বিদ্যা অভিনয় জগতে আসার পর থেকেই, কোনও দিনও তথাকথিত তন্বী নায়িকার চেহারায় সামনে আসেননি। তিনি বরাবরই গড়পড়তা ভারতীয় নারীসুলভ শারীরিক গঠনের অধিকারী।

এই নিয়ে কম বার ট্রোলের শিকার হতে হয়নি তাঁকে। বহু বার তাঁর শরীরের অতিরিক্ত মেদের দিকে ইঙ্গিত করে অশালীন মিম ছেয়ে গেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। এ সবের মাঝেও অবশ্য একটার পর একটা হিট সিনেমা দর্শকদের দিয়ে গেছেন বিদ্যা। শুধু তাই নয়। ‘ডার্টি পিকচার’-এর মতো সিনেমায় অভিনয় করার জন্য তাঁকে শরীরের ওজন বাড়াতেও হয়েছিল বেশ খানিকটা। ওই সিনেমায় তাঁর চরিত্রই যেন মনে করিয়ে দিয়েছিল, জ়িরো ফিগারের ভিড়ে ‘কার্ভি’ শরীরের কদর হারিয়ে যাচ্ছে আস্তে আস্তে।

এভাবেই নেতিবাচক সমালোচনাকে সব সময়েই ইতিবাচক কোনও উৎকর্ষে পৌঁছে দিয়েছেন বিদ্যা। তবে এ বার আর তেমন নয়, সরাসরি আক্রমণ ট্রোলকারীদের। সপাট থাপ্পড় বডি শেমিংয়ের গালে।

দেখুন বিদ্যা বালানের সেই ভিডিও। বলিউডের বিভিন্ন বিখ্যাত গান গেয়ে ভিডিওটি তৈরি করেছেন তিনি। বার্তা দিয়েছেন ইতিবাচকতার।

বিদ্যা তাঁর এই ভিডিওটি শেয়ার করে লেখেন, “আমরা বেশির ভাগই কোনও না কোনও ভাবে বডিশেমিংয়ের শিকার। যখনই আমাদের শারীরিক গঠন সমাজের তৈরি করা মাপকাঠি থেকে একটু এদিক ওদিক হয়, তখনই আমরা বিশ্রী আক্রমণের মুখে পড়ি। তাই, এখানে রইল, বডি শেমিংয়ের বিরুদ্ধে আমার কিছু কথা।”

ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পর থেকেই তাঁর ভক্তেরা প্রশংসায় ফেটে পড়েছেন টুইটারে। কেউ বলেছেন তিনি সাধারণ মানুষের জীবনের বড় অনুপ্রেরণা। কেউ বা বলেছেন, রোজ এমনটা ঘটলেও, বিদ্যার মতো প্রতিবাদ কখনওই তিনি করতে পারেননি। কেউ আবার জানিয়েছেন, বিদ্যার এই ভিডিও নিশ্চয় অনেকের মানসিকতায় বদল আনতে সাহায্য করবে।

এর আগেও আন্তর্জাতিক নারী দিবসে ইনস্টাগ্রামে এক নগ্ন মহিলার ছবি দিয়ে বিদ্যা লিখেছিলেন, “শুভ আন্তর্জাতিক নারী দিবস সকলকে। সবাই নিজের শরীর, মন, আত্মাকে ভালবাসুন। আপনি যেমন, ঠিক তেমন ভাবেই নিজেকে ভালবাসুন। রোগা, ফর্সা বা ধনী হওয়ার চেষ্টা করবেন না। মনে করুন, আপনিই সেরা। কারও সঙ্গে নিজের তুলনা করলে স্বাতন্ত্র্য হারিয়ে যাবে। এই ছবিটা আমাকে এই পোস্টটা লিখতে অনুপ্রাণিত করল। আপনি যদি আমার সঙ্গে একমত হন, ইটস টাইম ট্যাগ দিয়ে শেয়ার করতে পারেন।”

দেখুন সেই পোস্ট।

View this post on Instagram

#HappyWomensDay to me and to you …and to us all ?! #ItsTime to #EmbraceYourself ? …. starting today if you’ve never done it before… #ItsTime to love yourself body,mind & soul.. just the way you are! Lets Not wait to become thinner or fairer or smarter or hotter or cooler or richer or more successful or anything that you are not already…before you can #LOVE yourself. #ItsTime to say goodbye to every judgement that makes you feel lesser and #ItsTime to say #YouCanLeaveNow to the inner critic who says #ImAmNotGoodEnough . #ItsTime to know that there’s no need to become the best version of yourself.You are the best you can be today…and 2mrw is another day…so you will be the best you can be 2mrw too.Best Not in comparison to anyone else.Just #TheBestYou…cuz how can there be a Best in a world of individuals !?? ?. This picture inspired me to write this post so thank you @glowinggoddessgetaway ?. If you agree with me and feel like you want to share something ,please use the #ItsTime and tag me ?. Here’s to #SelfLove today & everyday ♥️♥️♥️♥️♥️♥️♥️♥️♥️♥️♥️…..!!

A post shared by Vidya Balan (@balanvidya) on

Comments are closed.