বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮

কেমন করে তুষারধসে মারা পড়লেন ৮ অভিযাত্রী, ছবি মিলল এক মৃতের ভিডিও ক্যামেরায়

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ২৬ মে আট পর্বতারোহী রওনা হয়েছিলেন নন্দাদেবী ইস্ট চূড়ার দিকে। মাঝে পথ বদলে তাঁরা অপর এক অনামা চূড়ায় উঠতে চেষ্টা করেন। উত্তরাখণ্ডের পিথোরাগড়ে সেই অনামা চূড়ার পথে যাওয়ার সময় এক অভিযাত্রীর ভিডিও ক্যামেরা অন করা ছিল। পাহাড়ের গা বেয়ে উঠছেন, এমন সময় হুড়মুড়িয়ে নামল তুষারধস। চাপা পড়লেন আটজন। অলৌকিকভাবে রক্ষা পেল সেই ভিডিও ক্যামেরা।

ইন্দো টিবেটান বর্ডার পুলিশ অভিযাত্রীদের দেহ খুঁজে পায় ২৩ জুন। ক্যামেরাটিও পাওয়া যায়। সোমবার সেখান থেকে ১ মিনিট ৫৫ সেকেন্ডের ফুটেজ রিলিজ করেছে আইটিবিপি। তাতে দেখা যাচ্ছে, কীভাবে মৃত্যু হয়েছিল আটজনের।

৫০০ ঘণ্টা ধরে দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চলে অনুসন্ধান চালিয়ে আইটিবিপি-র ১১ জন উদ্ধারকারী অভিযাত্রীদের দেহ খুঁজে পান। সেই অভিযানের নাম ছিল ‘অপারেশন ডেয়ারডেভিলস’। উদ্ধারকারীদের সোমবার দিল্লিতে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সেই উপলক্ষে রিলিজ করা হয় অভিযাত্রীদের তোলা ভিডিও ফুটেজ।

আইটিবিপি-র জনসংযোগ আধিকারিক এস এস দেশওয়াল বলেন, পাহাড়ের ২০ হাজার ফুট উঁচুতে অভিযাত্রীদের দেহ পাওয়া যায়। খুব কঠিন পরিস্থিতিতে অভিযান চালাতে হয়েছিল। আমাদের কর্মীরা প্রশংসনীয় কাজ করেছেন।

১৩ মে ১২ জন অভিযাত্রী পিথোরাগড় জেলা থেকে নন্দাদেবী ইস্ট শৃঙ্গের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করেন। ৩০ মে পিথোরাগড় জেলা প্রশাসন ডিসট্রেস কল পায়। তাদের জানানো হয়, আট অভিযাত্রী হারিয়ে গিয়েছেন। আইটিবিপিকে অনুরোধ করা হয় উদ্ধারের কাজে যাওয়ার জন্য।

পর্বতারোহীদের চারজনকে উদ্ধার করা হয়। ২ জুন নন্দাদেবীর বেস ক্যাম্প থেকে তাঁদের উড়িয়ে নিয়ে আসা হয় নিরাপদ স্থানে। তাঁরা এসেছিলেন ব্রিটেন থেকে। তাঁদের নাম মার্ক টমাস, ইয়ান ওয়াদে, কেট আর্মস্ট্রং এবং জাচারি কোয়েইন। তাঁরা উদ্ধারকারীদের জানান, আটজন তাঁদের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছিলেন। ২৬ জুন অবধি তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ ছিল। তার পরে আটজনের ভাগ্যে কী ঘটেছে তাঁরা জানেন না।

Comments are closed.