বেতন কমিশনের সঙ্গে ডিএ, কত খরচ হবে? বড় চাপে মমতা সরকার

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    দ্য ওয়াল ব্যুরো: ষষ্ঠ বেতন কমিশন নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরেই‘ধীরে চলো’ নীতিতে এগোচ্ছে রাজ্য সরকার। সময় নেওয়ার এই অভিযোগ শুধু বিরোধীদের নয়। তৃণমূল কংগ্রেসের সরকারি কর্মচারী সংগঠনও সম্প্রতি বলেছে, দ্রুত বকেয়া ডিএ এবং বর্ধিত বেতন দেওয়া উচিত।

    এবার স্যাটের রায়ে তিন মাসের মধ্যে ডিএ বাড়ানো নিয়ে নীতি নির্ধারণের নির্দেশের পরে নতুন চাপে পড়ল রাজ্য সরকার। কেন্দ্রীয় হারে বেতন প্রসঙ্গে কর্মচারীদের দাবি নিয়ে একুশে জুলাইয়ের মঞ্চ থেকেও আক্রমণ করেন মমতা। তিনি বলেন, কেন্দ্রের বেতন চাইলে কেন্দ্রে যেতে হবে।

    রাজ্যে সরকারি কর্মীদের বেতন বৃদ্ধির দাবি দীর্ঘদিনের। ২০১৬ সালে বিধানসভা নির্বাচনের ঠিক আগে আগে ২০১৫ সালের ২৭ নভেম্বর, অর্থনীতিবিদ অভিরূপ সরকারের নেতৃত্বে ষষ্ঠ বেতন কমিশন গঠন করা হয়েছিল। কমিশনের কাজ শুরু হতেই দীর্ঘ সময় লেগে যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে দ্বিতীয়বার সরকার গঠনের পরে রাজ্য সরকার কর্মচারীদের জন্য ১০ শতাংশ অন্তর্বর্তী ভাতা ঘোষণা করে। এখনও পর্যন্ত মোট পাঁচ বার কমিশনের মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়েছে। লোকসভা নির্বাচনের পরে শেষবার সাত মাসের জন্য কমিশনের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে যার সময় শেষ হচ্ছে আগামী ২৬ ডিসেম্বর।

    সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, ডিসেম্বরে ষষ্ঠ বেতন কমিশনের রিপোর্ট জমা পড়লে যতটা সম্ভব বেতন বাড়ানো হবে। কিন্তু বেতন বাড়াতে গিয়ে রাজ্য সরকারের জনপ্রিয় প্রকল্পের কোনওটি বন্ধ করতে চান না তিনি। এরই সঙ্গে সঙ্গে তিনি বলেন, “কমিশন এখনও কাজ শেষ করতে পারেনি। তাই সরকারও কিছু করতে পারছে না। কমিশন রিপোর্ট জমা দেওয়ার জন্য ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় চেয়েছে।” এ নিয়ে তিনি কমিশনের চেয়ারম্যান অভিরূপ সরকারকে ডেকে কথা বলবেন বলেও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। এই বক্তব্যের পরে অভিরূপ সরকার ‘দ্য ওয়াল’-কে বলেন, “কমিশন সময় চায়নি। এটা ভুল কথা। সরকারই কমিশনের মেয়াদ বাড়িয়েছে।”

    কে ঠিক, কে ভুল সেটা জানার থেকেও সরকারি কর্মচারীরা চান দ্রুত জমা পড়ুক রিপোর্ট আর চাল হোক বর্ধিত বেতন। কারণ, কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের তুলনায় এই রাজ্যে বেতনের ব্যবধান ক্রমশই বাড়ছে।
    এমনকি ত্রিপুরাতে বিজেপি সরকার কেন্দ্রের হারে বেতন চালু করেছে।

    এখন কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের যে বেতন কাঠামো, তাতে রাজ্যে একই পদমর্যাদার কর্মী হাতে পান অর্ধেক টাকা। সপ্তম বেতন কমিশন কার্যকর হওয়ার পরে যা দাঁড়িয়েছে, তাতে আর্থিকভাবে রাজ্য সরকারি কর্মীরা রীতিমতো লজ্জাজনক জায়গায়। কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের জন্য সপ্তম বেতন কমিশনের সুপারিশ কার্যকর হওয়ায় সব স্তরের কর্মীর মূল বেতন ২.৫৭ গুণ বেড়েছে। ন্যূনতম মূল বেতন ৭ হাজার টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ১৮ হাজার টাকা। এই রাজ্যে এক জন গ্রুপ ডি কর্মী চাকরি শুরুর সময়ে বেতন পান মোটামুটি সাড়ে ১২ হাজার টাকা। সেখানে সপ্তম বেতন কমিশন কার্যকর হওয়ায় কেন্দ্রীয় সরকারি এক জন গ্রুপ ডি কর্মী নিয়োগের সঙ্গে সঙ্গে বেতন পাচ্ছেন ২২ হাজার টাকার মতো।

    কিন্তু রাজ্যে বেতন বৃদ্ধি নিয়ে এখনও কোনও আশার আলো দেখা যাচ্ছে না। সোমবার মুখ্যমন্ত্রী যে ইঙ্গিত দিয়েছেন তাতে আগামী ডিসেম্বরে কমিশনের রিপোর্ট জমা পড়লে যতটা সম্ভব বেতন বাড়ানো হবে। কমিশনের চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, গত এক বছরে তাঁরা সময় বাড়াতে বলেননি। এখন রাজ্য সরকার যদি ফের মেয়াদ না বাড়ায় তবে ডিসেম্বরে জমা পড়তেই পারে রিপোর্ট।

    অনেকেই আশা করেছিলেন ২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনের কাছাকাছি সময়ে গিয়ে কার্যকর হতে পারে বেতন কমিশনের সুপারিশ। কিন্তু অভিরূপ সরকারের দাবি সত্যি হলে তার আগে রিপোর্টই জমা নেয়নি সরকার। তাই এখন নতুন জল্পনা ২০২১ সালে পরবর্তী বিধানসভা নির্বাচনের আগে ২০২০ সালের কোনও একটা সময়ে কার্যকর হতে পারে নতুন বেতন কাঠামো। কিন্তু এখানেও রয়েছে প্রশ্ন। রাজ্যের যা আর্থিক সঙ্গতি তাতে কি কেন্দ্রীয় সরকারের হারে বেতন মিলবে?

    হিসেব বলছে, বাম আমলে ২০০৯ সালে রাজ্যে পঞ্চম বেতন কমিশনের সুপারিশ মেনে কর্মীদের বেতন ও পেনশন বৃদ্ধি হয়েছিল গড়পড়তা ৬০ শতাংশ। কিন্তু এখন কেন্দ্রের যা বেতন কাঠামো তার সঙ্গে বেতনবৃদ্ধির সমতা রাখতে গেলে প্রায় ৮০ শতাংশ বেতন বাড়াতে হবে রাজ্যকে। কিন্তু তেমনটা কি আদৌ সম্ভব? ২০০৯-’১০ সালে পঞ্চম বেতম কমিশনের সুপারিশ মানতে গিয়ে রাজ্যের খরচ বেড়েছিল প্রায় ২৩ হাজার কোটি টাকা।

    নবান্নের হিসেব বলছে, এখনই বেতন-পেনশন দিতে খরচ হয় বছরে প্রায় ৫৪ হাজার কোটি টাকা। নতুন হারে বেতনবৃদ্ধি কার্যকর করতে হলে সরকারের অতিরিক্ত খরচ দাঁড়াবে প্রায় ৮৫ হাজার কোটি টাকা।

    আর এখন তিন মাসের মধ্যে কেন্দ্রীয় হারে ডিএ দিতে হলে আরও চাপে পড়বে রাজ্য। অর্থ দফতরের একটি সূত্রের দাবি, স্যাটের রায় মেনে বকেয়া ২৯ শতাংশ ডিএ দিতেই রাজ্য সরকারের খরচ হতে পারে মোটামুটি ৮ হাজার ৭০০ কোটি টাকা। সব মিলিয়ে বড় চাপের মুখে রাজ্য সরকার।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More