শনিবার, অক্টোবর ১৯

কতটা আস্থা রাখা যায়? গ্রাহকদের ঝুঁকি নিয়ে তদন্তের মুখে ফেসবুক

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ফেসবুক ব্যবহারকারীর জন্য ঝুঁকি তৈরি করছে কিনা তা নিয়ে তদন্ত শুরু করছে আমেরিকা। নিউইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেল লেটিটিয়া জেমস নতুন ‘অ্যান্টি-ট্রাস্ট’ তদন্তের ঘোষণা করেছেন। লেটিটিয়া জেমস বলেছেন, “বিশ্বের বৃহত্তম সামাজিক যোগাযোগের প্ল্যাটফর্ম হলেও তাদের অবশ্যই আইন মানতে হবে এবং গ্রাহককে সম্মান করতে হবে।” নিউইয়র্ক ছাড়াও কলোরাডো, ফ্লোরিডা, আইওয়া, নেব্রাস্কা, নর্থ ক্যারোলাইনা, ওহাইয়ো, টেনেসিও এই তদন্তের অংশ হচ্ছেন।

ফেসবুকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, অনলাইন পরিষেবা ব্যবহারের ক্ষেত্রে একাধিক বিকল্প মানুষের হাতে রয়েছে। নিউইয়র্কের ফেসবুকের নীতিমালা বিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট উইল ক্যাসলবেরি বলেছেন, “আমরা জানি যে, আমরা যদি উদ্ভাবন বন্ধ করে দিই তবে মানুষ ফেসবুক ছেড়ে যাবে। আমরা শুধু যুক্তরাষ্ট্র নয় সারা বিশ্বে এ প্রতিযোগিতার মুখে পড়েছি।”

লেটিটিয়া জেমস জানিয়েছেন, তদন্তে প্রয়োজনীয় সব ধরনের টুল দিয়ে ফেসবুককে পরীক্ষা করা হবে। গ্রাহকের তথ্য তারা বিপজ্জনক করে তুলেছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হবে। গ্রাহকের পছন্দ তারা সীমিত করেছে কিনা বা বিজ্ঞাপনের দাম বাড়িয়েছে কিনা তাও দেখা হবে।

ফেসবুক ইতিমধ্যে পৃথক আরেকটি যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ট্রেড কমিশনের অ্যান্টি ট্রাস্ট তদন্তের মুখোমুখি হয়েছে। গত জুলাই মাসে যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগ বড় বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর বিপক্ষে প্রতিযোগিতার বিষয়টি খতিয়ে দেখতে বিস্তৃত তদন্তের ঘোষণা করে।

ফেসবুক এর আগে দাবি করেছিল, তারা একচ্ছত্র আধিপত্য করছে না। অনলাইনে বন্ধুদের সঙ্গে কীভাবে যুক্ত হতে পারবেন তা গ্রাহকরা ইচ্ছামতো বেছে নিতেই পারেন।

Comments are closed.