সোমবার, অক্টোবর ১৪

উইঘুর মুসলিমদের ওপরে ‘অত্যাচার’, চিনকে ভিসা দিতে কড়াকড়ি আমেরিকার, ক্রুদ্ধ বেজিং

দ্য ওয়াল ব্যুরো : গত মঙ্গলবার আমেরিকা ঘোষণা করেছে, এবার থেকে চিন সরকারের অফিসারদের ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে কড়াকড়ি করা হবে। যতদিন না বেজিং উইঘুর মুসলিমদের ওপর অত্যাচার বন্ধ না করছে, ততদিন কড়াকড়ি চালু থাকবে। এই ঘোষণার পরেই বেজায় চটেছে চিন। বেজিং থেকে বলা হয়েছে, উইঘুরদের বাসস্থান শিনজিয়াং প্রদেশে সন্ত্রাসবাদ মাথাচাড়া দিচ্ছে। জঙ্গিদের দমন করার জন্য আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা নিয়েছি। আমেরিকার বিরুদ্ধে পালটা অভিযোগ করে চিন বলেছে, আমাদের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করার জন্য অজুহাত খুঁজছে ট্রাম্প প্রশাসন।

মানবাধিকার কর্মীরা দীর্ঘদিন ধরে বলে আসছেন, শিনজিয়াং প্রদেশে জঙ্গি দমনের নামে উইঘুর মুসলিমদের ওপরে অত্যাচার করছে চিন। ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন সেই অভিযোগকেই স্বীকার করে নিয়েছে। মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পিও টুইট করে বলেছেন, চিন ১০ লক্ষের বেশি মুসলিমকে আটকে রেখেছে। শিনজিয়াং-এর ধর্ম ও সংস্কৃতিকে মুছে ফেলার জন্য চিন নিষ্ঠুর হামলা চালাচ্ছে।

চিনের কাছে পম্পিও-র আবেদন, অবিলম্বে উইঘুরদের ওপরে নজরদারি ও অত্যাচার বন্ধ হোক। যাদের বিনা বিচারে বন্দি করা হয়েছে, তাদের মুক্তি দেওয়া হোক।

একইসঙ্গে মার্কিন বিদেশ দফতর ঘোষণা করে, চিনের সরকার ও কমিউনিস্ট পার্টির যে কর্মীরা উইঘুর, কাজাখ ও অন্যান্য মুসলিম ধর্মাবলম্বী জনজাতির ওপরে অত্যাচারের ঘটনায় যুক্ত, তাদের ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে কড়াকড়ি করা হবে। তাঁদের পরিবারের লোকজন ও সন্তানসন্ততিদের ক্ষেত্রেও কড়াকড়ি করা হবে। অর্থাৎ অত্যাচারী অফিসারদের কারও সন্তান যদি আমেরিকায় এসে পড়াশোনা করতে চায়, সহজে ভিসা পাবে না।

Comments are closed.