বুধবার, জুন ২৬

ফোন হারিয়ে ফেরত পেলেন বিদেশিনী, তার পরেও অপমান সারা দেশবাসীকে! ট্রোলের ঝড় সোশ্যাল মিডিয়ায়

দ্য ওয়াল ব্যুরো: হারিয়েছিল ফোন। কিন্তু তা নিয়ে কথা বলতে গিয়ে যে নিজের সম্মানও হারিয়ে ফেলবেন, তা ভাবেননি আমেরিকার ট্র্যাভেল ব্লগার ও যোগা প্রশিক্ষক কোলিন গ্র্যাডি। দিনভর এই নিয়ে সমালোচনার ঝড় বইল সোশ্যাল মিডিয়ায়। পরে ফোন ফিরে পান তিনি। কিন্তু তত ক্ষণে যা হওয়ার হয়ে গিয়েছে।

তাঁর দাবি, ভারতে বেড়াতে এসে, জয়পুরের একটি হোটেলে নিজের আইফোনটি হারিয়ে ফেলেন তিনি। আর এই ঘটনার সঙ্গে সঙ্গেই সমস্ত ভারতবাসীর বিরুদ্ধে যা-নয়-তাই মন্তব্য করলেন ওই বিদেশিনী। ইনস্টাগ্রাম পোস্টে তিনি লিখলেন, “ভারতীয়রা এতটাই গরিব, যে একটা আইফোন পর্যন্ত কেনার ক্ষমতা নেই তাদের।”

তবে এই পোস্টের পরে ভারতীয়রাও ছাড়লেন না তাঁকে। অনেকেই এর কড়া প্রত্যুত্তর দিয়েছেন।

মাত্র পাঁচ মাস আগে কেনা সাধের আইফোন হারিয়ে ফেলে ইনস্টাগ্রামে লম্বা একটি পোস্টে কোলিন গ্র্যাডি লিখেছেন, “গরিব, ঘিঞ্জি একটা দেশে আমার ফোন হারিয়ে ফেলেছি। ভারতের সব থেকে ঠগবাজ একটা টুরিস্ট স্পট হল জয়পুর। আমার ওই আইফোন এক্স মডেলটা ফিরে পাওয়ার আর আশাও করি না। কারণ, ফোনের যা দাম তাতে বহু ভারতীয়ের সারা জীবনটাই চলে যায়। যে গেস্ট হাউসে আমি ছিলাম, সেখানে গিয়ে কম্পিউটার খুলে ফোনটা খোঁজার চেষ্টাও করে দেখি। কিন্তু পরে ভাবলাম, ফোনটা ফ্লাইট মোডে থাকলে খোঁজা বেকার।’ 

হারিয়ে ফেলার পরে কিছু ক্ষণের মধ্যেই গ্র্যাডির হারিয়ে যাওয়া ফোনের নম্বর থেকে একটি ফোন কল আসে ওই গেস্ট হাউসের মালিকের ফোনে। এর পরে এক জন যোগাযোগ করে ফোন ফিরিয়ে দেন। তার পরেও  সত্ত্বেও গ্র্যাডি লেখেন, “ওই ভিড়ের মধ্যে মোটরসাইকেল নিয়ে আমরা ওই লোকটার সঙ্গে দেখা করে ফোনটা আনতে যাই। যে মানুষটা আমার ফোনটা খুঁজে পেয়েছিলেন, তাঁর কাছেও একই আইফোন এক্স রয়েছে। এবং এটা একটা মিরাকেল, যে এ দেশে এমন এক জন মানুষকে খুঁজে পেলাম, যাঁর কাছে আইফোন রয়েছে!”

এই পোস্ট ভাইরাল হওয়ার পরেই তেলে বেগুনে জ্বলে ওঠে গোটা নেট-দুনিয়া। নানা ভাষায় ভারতীয়রা জবাব দিয়েছেন ওই বিদেশিনীকে। কেউ তুলে ধরেছেন এ দেশে বিপুল টাকা খরচ করে স্ট্যাচু তৈরির তথ্য, কেউ আবার বলেছেন যে যোগার কারণে গ্র্যাডি রোজগার করছেন, সেই যোগা এ দেশেরই সম্পদ। এমনকী কেউ কেউ এ দেশে বছরে কত আইফোন বিক্রি হয়, তার পরিসংখ্যানও তুলে ধরেছেন। কেউ আবার সাদা চামড়াকেই দায়ী করে বসেন এ দেশের মাুনষকে নিচু করার জন্য।

দিনভর তীব্র ভাবে ট্রোলড হওয়ার পর কোলিন গ্র্যাডি ক্ষমা চান ভারতীয়দের কাছে। লেখেন, “আমি ওরকম কিছু মানে করে লিখতে চাইনি। আমি ভারতীয় সংস্কৃতিকে অপমানও করতে চাইনি। আমি আসলে ফোনটা ফিরে পেয়ে কৃতজ্ঞতাই প্রকাশ করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু মানুষের মনে এত ঘৃণা তৈরি করার জন্য, আমায় নিয়ে সারা পৃথিবীর সামনে ট্রোল করার জন্য, আমিই ক্ষমা চাইছি।”

এর পরে পোস্টটাও ডিলিট করে দেন গ্র্যাডি। শুধু তা-ই নয়, নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টও ডিলিট করে দেন তিনি। কিন্তু তত ক্ষণে সেই পোস্ট এবং ট্রোলিংয়ের স্ক্রিনশট ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

Comments are closed.