বিকাশ দুবের সাতমহলা বাড়ি গুঁড়িয়ে দিল কানপুর পুলিশ, গ্রেফতার করা হয়েছে বাবাকে

দু'দিন প্রায় পেরিয়ে গেল, এখনও নিখোঁজ অপরাধী।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    দ্য ওয়াল ব্যুরো: তার গুলিতে সদ্য ঝাঁঝরা হয়ে গিয়েছেন এক-দুই নয়, আট জন পুলিশকর্মী। উত্তরপ্রদেশের কানপুরের চৌবেপুরে এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত, কুখ্যাত অপরাধী বিকাশ দুবের খোঁজে চিরুনি তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। সিল করে দেওয়া হয়েছে উত্তরপ্রদেশের সমস্ত সীমানা। এরই মধ্যে বিকাশের বাড়িতে হানা দিল পুলিশবাহিনী। বুলডোজার নিয়ে তারা পৌঁছল শিবরাজপুরের বিকরু গ্রামে। গুঁড়িয়ে দিল তার প্রাসাদোপম বাড়ি। বিকাশ দুবের বাবা রাজকুমার দুবেকেও গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সিল করে দেওয়া হয়েছে বিকাশ দুবের সমস্ত ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট।

    উত্তরপ্রদেশের মোস্ট ওয়ান্টেড অপরাধীর তালিকায় এক নম্বরে রয়েছে বিকাশ দুবের নাম। গত ২০ বছর ধরে সে অপরাধের সাম্রাজ্য গড়ে তুলেছে রাজ্যজুড়ে। পুলিশ তাকে কয়েক বার গ্রেফতার করলেও, আইনি পথে শাস্তি দেওয়া যায়নি একবারও। এসবেরই মধ্যে নিজের গ্রামে চূড়ান্ত নিরাপত্তাসম্পন্ন একটি বিশাল বাড়িও বানিয়ে ফেলেছে সে। এবার ইউপি পুলিশ সেই বাড়ি ভেঙে দিল। জানা গেছে, বাড়িটির সুরক্ষা ব্যবস্থা এমন ছিল যে, বিনা অনুমতিতে একটা মাছিও ঢুকতে পারত না। সেই সবটাই ধূলিস্যাৎ করে দেওয়া হয়েছে আজ, শনিবার।

    বৃহস্পতিবার গভীর রাতে সবরকম খবর ও প্রস্তুতি নিয়েই কানপুরে বিকাশের ডেরায় পৌঁছেছিল পুলিশ। কিন্তু পাল্টা খবর পেয়ে তার প্রস্তুতি ছিল আরও বেশি। তাই পুলিশকে বাধা দেওয়ার জন্য রাস্তায় আগে থেকেই সার দিয়ে দাঁড় করানো ছিল বড়বড় ক্রেন-গাড়ি। সে সব পার করে পুলিশ নির্দিষ্ট গলিতে এসে পৌঁছতেই অতর্কিতে হামলা চলে ছাদ থেকে।

    যেন রীতিমতো গুলির বৃষ্টি। সামাল দিতে পারেনি পুলিশ। তাঁরা লুটিয়ে পড়তে থাকেন মাটিতে। ছাদ থেকে গুলির সঙ্গে সঙ্গে উড়ে আসতে থাকে বিশাল বিশাল পাথরের খণ্ড। এক জন বা দু’জন নন, প্রাণ হারিয়েছেন আট-আট জন পুলিশকর্মী। এমনকি দুঁদে ডেপুটি কমিশনারও মারা গেছেন গুলিবিদ্ধ হয়ে।

    উত্তরপ্রদেশের মাফিয়া জগৎ রীতিমতো কাঁপে গ্যাংস্টার বিকাশ দুবের নামে। আর উত্তরপ্রদেশ প্রশাসনের কাছে এই নামটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। খুন, অপহরণ, ডাকাতি– কোন অভিযোগ নেই তার বিরুদ্ধে! গত ২০ বছর ধরে নয়-নয় করে রুজু হয়েছে ৬০টি মামলা! তার হাতে যে কত মানুষ খুন হয়েছেন, সেই সংখ্যাটা বোধহয় নিজেই জানে না বিকাশ। অন্ধকার হিংসার জগতে যেন মাকড়সার মতো জাল বিছিয়েছে সে।

    শোনা যায়, একসময়ে অপরাধ জগৎ থেকে নাম সরিয়ে রাজনীতিতেও নাম লেখানোর চেষ্টা করেছে বিকাশ। তার নিজের এলাকার পঞ্চায়েত নির্বাচনেও দাঁড়িয়েছিল। একটি খুনের মামলায় পুলিশ ধাওয়া করলে ফের গা ঢাকা দেয় সে।

    এসবের মধ্যেই বিকাশ সম্পত্তি বাড়াতে থাকে। কানপুর ছাড়াও রাজ্যের অনেক শহরে অনেক জমি দখল করে রেখেছিল। কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি ছিল তার। বিকরু গ্রামে তার নিজের বাড়িতেই ৫০টির বেশি সিসিটিভি লাগিয়েছিল। এখন সবই বুলডোজারের তলায় গুঁড়ো গুঁড়ো।

    কুখ্যাত গ্যাংস্টারের পরিবারের বাকি সদস্যদের জীবনও ওষ্ঠাগত হয়ে গিয়েছে বৃহস্পতিবারের ঘটনার পর। প্রতিবেশীদের কটাক্ষ তো আছেই, পাশাপাশি রয়েছে পুলিশের জেরাও। ফলে পদে পদে সম্মান খোয়াতে হচ্ছে বিকাশ দুবের মা ও অন্যদের। এই পরিস্থিতিতে কৃতকর্মের জন্য ছেলের মৃত্যুকামনাও করছেন বিকাশের মা সরলাদেবী। তিনি বলছেন, “ও নিজে আত্মসমর্পণ করুক। নইলে ওকে এনকাউন্টার করে মারা হোক। সারা জীবন অনেক পাপ করেছে ও। নির্দোষ পুলিশদের হত্যা করেছে। ওর চরম শাস্তিই হওয়া উচিত।”

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More