বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪

মোদীর মন্ত্রীদের থেকেও ফাইন নিচ্ছে ট্রাফিক পুলিশ, দেখুন গড়কড়ি কী বলছেন

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কেন্দ্রে তখন সবে ক্ষমতায় এসেছে নরেন্দ্র মোদী সরকার। আসানসোলের সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় তখনও সম্ভবত মন্ত্রী হননি। সংসদ ভবনের অদূরে বিজয় চকে বাবুলকে ধরেছিল ট্রাফিক পুলিশ। সাধের বুলেট চালাচ্ছিলেন তিনি। পরণে বারমুডা টি শার্ট। মাথায় হেলমেট নেই!

সোমবার কেন্দ্রীয় পরিবহণ মন্ত্রী নিতিন গডকড়ী জানালেন, তাঁকেও নাকি ফাইন দিতে হয়েছে ট্রাফিক পুলিশকে। তিনি জানিয়েছেন, মোদী সরকারে তিনি একা নন, আরও কয়েক জন মন্ত্রীকেও ফাইন দিতে হয়েছে।

সদ্য মোটর ভেহিকেল আইন সংশোধন হয়েছে। তা ১ সেপ্টেম্বর থেকে বাস্তবায়িত হয়েছে। ট্রাফিক নিয়ম লঙ্ঘন করার কারণে গোটা দেশ জুড়ে ধরপাকড় চলছে। কোথাও অটো চালককে ফাইন দিতে হচ্ছে ৪৭ হাজার ৫০০ টাকা, তো কোথাও ট্রাক চালককে আইন ভেঙে দিতে হচ্ছে ৫৯ হাজার টাকা। কিন্তু মন্ত্রীরা যদি আইন ভাঙেন, তাহলে কী হবে?

ট্রাফিক আইন নিয়ে এই কড়াকড়ির পরই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিতিন গড়কড়ির একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছিল। হেলমেট ছাড়া, পিছনে আরও একজনকে বসিয়ে স্কুটার চালাচ্ছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় নেটিজেনদের অনেকে এই ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, “তা হলে গড়কড়িজির থেকে কত টাকা ফাইন নেওয়া হবে?”

এ ব্যাপারে সোমবার মুখ খুলেছেন এই মারাঠা নেতা। সংবাদমাধ্যমের সামনে বিজেপি-র প্রাক্তন সভাপতি গড়কড়ি বলেছেন, “আমাকেও ফাইন দিতে হয়েছে।” ওই ছবিটি ছিল মহারাষ্ট্রের বান্দ্রা-ওরলি রোডে। তিনি বলেছেন, “আমি যে ফাইন দিয়েছি সেই চালান বোধহয় ফড়নবিশের (মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশ) কাছেও পৌঁছে গিয়েছে।”

নিতিন গডকড়ী আরও জানিয়েছেন, কেন্দ্রের মন্ত্রী ভি কে সিংহকেও জোরে গাড়ি চালানোর জন্য ফাইন দিতে হয়েছে। তাঁর কথায়, “নতুন আইনে নির্ধারিত স্পিড লিমিটের বেশি জোরে গাড়ি চালালেই তাঁকে ফাইন দিতে হবে। তা সে তিনি আইনজীবী হোন বা রাজনীতিক, কিংবা ডাক্তার হোন বা ইঞ্জিনিয়ার!”

রাজধানীর পুলিশ নিয়ম করেছে, পুলিশের লোক যদি ট্রাফিক আইন ভাঙে, তাহলে তাঁদের থেকে জরিমানা নেওয়া হবে দ্বিগুন। যদিও কলকাতায় এখনও সেই কড়কড়ি হয়নি। এমনিতে শহরে তথা জেলায় আকছাড় দেখা যায় পুলিশ ট্রাফিক আইন ভাঙছেন। হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল চালানো থেকে সিগন্যাল ভাঙা—সবই চোখে পড়ে সাধারণ। দিল্লির উদাহরণ দিয়ে কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মাকে এ ব্যাপারে কয়েকদিন আগেই জিজ্যেস করা হয়েছিল দ্য ওয়াল-এর পক্ষ থেকে। তিনি জানিয়েছিলেন, “আইনটা একবার দেখতে হবে, কী আছে!”

কিন্তু নীতিন গড়কড়ির মতো মোদী-মন্ত্রিসভার ওজনদার সদস্য জানিয়ে দিলেন, ছাড় নেই কারও। ফাইন গুনতে হয়েছে তাঁকেও।

Comments are closed.