করোনাভাইরাস, অন্দর-বাস এবং আমাদের ভাল থাকা

সদর্থক চিন্তা বা অভ্যাস মন শুধু ভালই রাখে না-- এ খারাপ সময়ের জন্য শরীরের প্রয়োজনীয় হরমোন নিঃসরণের গ্রন্থিগুলিকে আরও বেশি সচল করে তোলে, শরীর তৈরি হয়ে ওঠে সামনের বিপদের সঙ্গে যথাযথভাবে মোকাবিলা করার জন্য।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    ড. রূপা তালুকদার

    করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় দেশজুড়ে লকডাউন চলছে। এই আপৎকালীন অবস্থায় বাসা-বন্দি দেশের অধিকাংশ মানুষ। কী হয় কী হয় ভেবে মনের ঘরেও নানা উদ্বেগ ও সংশয়। মনখারাপের কুফল পড়ছে গিয়ে শরীরেও। তাই এই অন্দর-বাসে মন ভাল রাখা সবচেয়ে জরুরি। এই কঠিন সময় কীভাবে পার করবেন? উপায় বাতলেছেন বিশিষ্ট মনোবিদ।

    আজ পঞ্চমদিন– ঘরের মধ্যে একা কিংবা পরিবারের সকলের সঙ্গে। এ এক না চাইতেই পরিবারিক হয়ে ওঠা। কিন্তু সকলে কি পেরেছেন? সকাল থেকেই ফোন কল পেয়েছি।
    প্রথমটা গলায় ব্যথার অনুভব– গরমজল খেয়ে চলেছে– অথচ কিছুই হয়নি। ভাল করে বলতে বললে– ‘‘না ব্যথা নয়, তবে ‘বাধো-বাধো’ লাগছে।’’ ‘ম্যাম, ওষুধ ফুরিয়ে যাবে– মেডিসিন দোকান বলছে, সরবরাহ নেই– আমার তো– বাই– পোলার।’ সত্যিই মনটাকে তো আর বশে রাখা যাবে না।
    মনখারাপের নানা রকম শুরু হয়ে গেছে।

    সাধারণ মানুষগুলোও ঠিকঠাক নেই– সোসাল নেটওয়ার্কে গালি দেওয়া বেড়ে গেছে– সরাসরি এত মুক্তকণ্ঠে গালাগালি Fb-তে আমি শুনিনি– মানুষ বেশ তেতে আছে– টার্গেট হল কখনও পাড়ার ছেলেরা, কখনও মন্ত্রীরা, আবার কখনও অন্য দেশ।

    যারা আদতে ভাল থাকে না– অল্পেই যাদের মনখারাপ (Depression), উদ্বেগ (Anxiety) stress হয়ে যায়– তারা সত্যিই আতঙ্কে আছে। কারণ এখন চারপাশে কোনও সদর্থক আলোচনা নেই– সর্বত্র শুধু সম্ভাবনার কথা এবং তা কেবলই আতঙ্কের। এদের মনে শুধু, আর কতদিন?

    আসলে গোটা পৃথিবীতে মানুষেরা ভাল নেই– যারা সুস্থ ছিলেন এতদিন, তারাও এখন অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।
    এক কথা বহুবার বলছেন, এক কাজ অনেকবার করছেন, অজানা আশঙ্কায় তেতে আছেন, অকারণ বিরক্তি প্রকাশ করছেন। তবে এই সময়ই দরকার ধৈর্য্য, প্রশান্তি, বুঝে চলা, অন্যকে বোঝানো, অকারণ না রেগে যাওয়া, নিজের মনকে বশে রাখা।

    আর যারা এমনিতেই ভাল থাকে না– তাদের পাশে থেকে আশ্বস্ত করা, মনকে প্রফুল্ল রাখার উপায় বলে দেওয়া, রেগুলার হাত-পা নেড়ে শরীরটা সচল রাখা, গান শোনা, কমিক্স পড়া ও দেখা, ভাল সিনেমা দেখা, কিছু অ্যাক্ট করা, ভাল বই পড়া, মনোযোগ বাড়ানোর উপায়গুলি হাতের কাছে রাখা, নিঃসন্দেহে আশাবাদী হয়ে ওঠা।

    সদর্থক চিন্তা বা অভ্যাস মন শুধু ভালই রাখে না– এ খারাপ সময়ের জন্য শরীরের প্রয়োজনীয় হরমোন নিঃসরণের গ্রন্থিগুলিকে আরও বেশি সচল করে তোলে, শরীর তৈরি হয়ে ওঠে সামনের বিপদের সঙ্গে যথাযথভাবে মোকাবিলা করার জন্য।
    So, be hopeful and help people to be so.

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More