মঙ্গলবার, জুন ২৫

বিজেপির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর ছেলে কেন কংগ্রেসে, দেরাদুনে ব্যাখ্যা করলেন রাহুল

দ্য ওয়াল ব্যুরো : উত্তরাখণ্ডে বিজেপির অস্বস্তি বাড়িয়ে কংগ্রেসে যোগ দিলেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বি সি খাণ্ডুরির ছেলে মনীশ খাণ্ডুরি। এদিন দেরাদুনে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর জনসভায় তিনি ওই দলে যোগ দেন। রাহুল জনসভায় ব্যাখ্যা করেন, কেন বিজেপি নেতার ছেলে কংগ্রেসে যোগ দিলেন।

তাঁর কথায়, মনীশ খাণ্ডুরি যে এই জনসভায় এসেছেন তার পিছনে বিশেষ কারণ আছে। তাঁর বাবা বি সি খাণ্ডুরি একসময় পার্লামেন্টের ডিফেন্স কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি সারা জীবন দেশ তথা সশস্ত্র বাহিনীর সেবায় উৎসর্গ করেছেন। তিনি পার্লামেন্টারি কমিটিতে বলেছিলেন, সশস্ত্র বাহিনীকে সহায়তা করার জন্য যা করা উচিত, সরকার তা করছে না। সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে সরিয়ে দেন নরেন্দ্র মোদী।

রাহুলের দাবি, যাঁরা সত্য কথা বলেন, বিজেপিতে তাঁদের স্থান নেই। ফের রাফায়েল চুক্তির কথা তুলে তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার যৌথ সংসদীয় কমিটির তদন্তে ভয় পাচ্ছে।

এদিন দেরাদুনে রাহুলের জনসভার নাম ছিল ‘পরিবর্তন র‍্যালি’। তাঁর বক্তব্যের বড় অংশ জুড়ে ছিল রাফায়েল। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নতুন করে রাফায়েল নিয়ে ফ্রান্সের সঙ্গে চুক্তি করেছিলেন। তাঁর উদ্দেশ্য ছিল শিল্পপতি অনিল অম্বানিকে সাহায্য করা। প্রধানমন্ত্রী ফ্রান্সের কাছে শর্ত দিয়েছিলেন, অনিল অম্বানি যদি কন্ট্রাক্ট পান, তাহলেই ফ্রান্স ভারতকে রাফায়েল জেট বিক্রি করতে পারবে। রাহুলের দাবি ফ্রান্সের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওল্যাদেঁ নিজে একথা বলেছেন।

রাফায়েল নিয়ে বলতে গিয়ে সিবিআই কর্তাকে অপসারণের প্রসঙ্গও টেনে এনেছেন রাহুল। তাঁর কথায়, সিবিআই প্রধান অলোক বর্মা চেয়েছিলেন, রাফায়েল নিয়ে তদন্ত হোক। কিন্তু নরেন্দ্র মোদী রাত দেড়টায় তাঁকে পদ থেকে সরিয়ে দেন।

রাফায়েলের দাম প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ইউপিএ আমলের চুক্তিতে রাফায়েলের যে দাম ধার্য হয়েছিল, মোদী তার থেকে বেশি দিয়েছেন। ফ্রান্সের সঙ্গে ৫৯ হাজার কোটি টাকার চুক্তি হয়েছে। তাঁর দাবি, ইউপিএ আমলে প্রতিটি রাফায়েল জেটের দাম যদি ৫০০ টাকা করে স্থির হয়ে থাকে, এন ডি এ আমলে তার দাম ধার্য হয়েছে ১৬০০ টাকা।

গত কয়েকমাস ধরেই রাফায়েল চুক্তি নিয়ে বিজেপি তথা নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে তীব্র আক্রমণ শানিয়েছেন বিরোধীরা। সরকার প্রতিটি অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

Comments are closed.