মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৫

দুর্গাপুজোয় কেন চণ্ডীপাঠ শুনতে হয়, জানুন দেবীর মহিমা

অনির্বাণ

শ্রীশ্রীদেবীমাহাত্ম্য সম্পর্কে‘চণ্ডী’-তে দেবী নিজেই বলেছেন, পূজা-মহোৎসব উপলক্ষে আমার সমগ্র মাহাত্ম্য পাঠ ও শোনা অবশ্যকর্তব্য। দুর্গাপুজো যেহেতু মহাপূজা, তাই এই পুজোয় চণ্ডীপাঠ অবশ্য প্রয়োজন। কারণ চণ্ডীপাঠে দুর্গাপুজোর সকল ত্রুটি দূর হয়। সকল পূর্ণতা লাভ হয়।

‘পদ্মপুরাণ’-এও বলা হয়েছে, দুর্গাপুজোয় চণ্ডীপাঠ অবশ্যকর্তব্য। এই পুরাণে মহাদেব পার্বতীকে বলেছেন, দুর্গাপুজোয় সাধক একাগ্রচিত্তে সপ্তশতী চণ্ডীমন্ত্র জপ করবে। ‘দেবী গীতা’-য় বলা হয়েছে, ভগবতীর পুজোয় দেবীর সহস্রনাম, দেবীকবচ, দেবীসূক্ত, দেবী উপনিষদ পাঠে দেবীর পরিতুষ্টি হয়। ‘চণ্ডী’-র তত্ত্বপ্রকাশিকাটীকায় বলা হয়েছে, দেবী দুর্গার পুজো হতেও চণ্ডীপাঠ দেবীর অধিকতর প্রীতিজনক।

দুর্গাপুজোয় ‘শ্রীশ্রী চণ্ডী’ পাঠে গ্রহাধিষ্ঠাত্রী দেবদেবীগণ প্রসন্ন হন এবং তারফলে গ্রহপীড়াও প্রশমিত হয়ে যায়।

‘রূদ্রচণ্ডী’-র তূর্যখণ্ডে মহাদেব চণ্ডীকে বলছেন, ‘‘হে দেবি ! যে ব্যক্তি ভক্তিপূর্বক একাগ্রচিত্তে মধুকৈটভ বধ, মহিষাসুর, চন্ডমুন্ড, শুম্ভ নিশুম্ভ বধরূপ তোমার মাহাত্ম্য নিত্য পাঠ করে বা শুনে থাকে, তাঁর কোনরূপ পাপ, দারিদ্র ও বিপদ উপস্থিত হয় না।’’

তত্ত্ব প্রকাশিকা টীকায় বলা হয়েছে, এই দেবীমাহাত্ম্য ধর্ম, অর্থ, কাম ও মোক্ষ— চতুর্বিধ পুরুষার্থ লাভের সাধন স্বরূপ। ‘বারাহী তন্ত্র’ গ্রন্থে বলা হয়েছে— যজ্ঞের মধ্যে যেমন অশ্বমেধ, দেবতাদের মধ্যে হরি সর্বপ্রধান, সেরূপ সপ্তশতীস্তব অর্থাৎ দেবী মাহাত্ম্য সকল স্তবের মধ্যে শ্রেষ্ঠ।

তাই মহামায়ার মহাপুজোয় দেবীমাহাত্ম্য পাঠ অবশ্যকর্তব্য। কারণ চণ্ডীর মহামায়াই দেবী দুর্গা।

Comments are closed.