নোংরা মোজা থেকে তাজমহলে ছোপ! ক্ষুব্ধ সুপ্রিম কোর্ট

0 ১১

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ‘সময়ের গালে যেন এক ফোঁটা চোখের জল’…………তাজমহল। শাহজাহান ও মুমতাজের ভালবাসার স্মারক। কালের গণ্ডি বেয়ে সময় থাবা বসিয়েছে সেই স্মারকে। আজ তার প্রমাণ মেলে প্রতিটি দেওয়ালে, প্রতিটি গম্বুজে।

ইতিহাসের পাতায় উল্লেখ আছে তাজমহলের খ্যাতির অন্যতম প্রধান কারণ ছিল নাকি এর মার্বেলের চমক। পুর্ণিমার রাতে চাঁদের আলো ঠিকরে বেরতো তাজমহলের গা থেকে। কিন্তু সময় পাল্টেছে। যমুনাতে জল যেমন কমেছে, তেমনই পাল্লা দিয়ে কমেছে তাজমহলের ঔজ্বল্য। কিন্তু কেন?

তাজমহলের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব ‘আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার’। তাজমহলের রঙ বদলানোর কারণ হিসাবে সুপ্রিম কোর্ট আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার প্রতিনিধিদের তলব করেছিলেন। সেখানে তাঁরা বলেন যাঁরা তাজমহল দেখতে আসেন তাঁরা বেশিরভাগই নোংরা মোজা পড়ে আসেন। ফলে অ্যালগির আক্রমণ হচ্ছে দেওয়ালে। তাই রঙ পাল্টাচ্ছে।

কিন্তু এই পরিবর্তন যে শুধুমাত্র তাজমহলের বাইরের দেওয়ালেই হচ্ছে তাই নয়, প্রভাব পড়ছে ভেতরেও। প্রতি বছর একদিনের জন্য শাহজাহান, মুমতাজের আসল সমাধি খোলা হয়। সম্প্রতি সেটা খুলে দেখা গিয়েছে যে সমাধির দেওয়ালেও পড়েছে এই প্রভাব। দেওয়ালের ও গম্বুজের রঙ জায়গায় জায়গায় হলদেটে, বা কোথাও বা সবুজ ছোপ ছোপ হয়ে গিয়েছে।

কোর্টের তরফে এএসআইকে ভর্ৎসনা করে বলা হয় যে অ্যালগি কি উড়তে পারে? তাহলে শুধুমাত্র নোংরা মোজা থেকে কীভাবে দেওয়াল বা গম্বুজের উপরের অংশে হলুদ, সবুজ ছোপ হতে পারে? হয় সংশ্লিষ্ট সংস্থা নিজেদের কাজ ঠিকমতো করতে পারেনি, নইতো তাঁদের কোনও ইচ্ছায় নেই তাজমহলের রক্ষণাবেক্ষণের।

এএসআইএর তরফে জানানো হয় অনেকদিন ধরেই নানাভাবে চেষ্টা করা হচ্ছে কী ভাবে এই ক্ষয় রোখা যায়। জায়গায় জায়গায় নিম, তুলসি প্রভৃতি ভেষজ পাতার প্রলেপ দিয়ে রাখা হয়েছে। কিন্তু কোনও কিছুতেই এই ক্ষয় বা রঙের পরিবর্তন রোধ করা যায়নি।

কোর্টের ভর্ৎসনার পর আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার তরফে জানানো হয়েছে যে মে মাসের মাঝামাঝি থেকে তাঁরা আবার তাজমহল পরিষ্কার করার কাজ শুরু করবেন। প্রথমে তাঁরা গম্বুজের উপরের দিকে শুরু করে তারপর ধীরে ধীরে নীচে মুল সমাধির দিকে যাবেন।

ইন্দো-মোগল সংস্কৃতির পরিচায়ক এই তাজমহল। বিশ্বের দরবারে ভারতের সম্মানের প্রতীক এই তাজমহল। সেই প্রতীকের মলিনতা রক্ষায় কতটা সফল আমরা হতে পারি তার উত্তর লুকিয়ে আগামীর মধ্যে।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Leave A Reply

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More