বুধবার, মার্চ ২০

উচ্চবর্ণের জন্য সংরক্ষণ বিল যাক সংসদীয় কমিটিতে, চায় কংগ্রেস

দ্য ওয়াল ব্যুরো : সোমবারই গরিব উচ্চবর্ণের জন্য ১০ শতাংশ সংরক্ষণের প্রস্তাব অনুমোদন করেছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। মঙ্গলবার ওই বিল পেশ হল লোকসভায়। কংগ্রেস আগেই ইঙ্গিত দিয়েছিল, বিলটি সমর্থন করবে। কিন্তু মঙ্গলবার তারা জানিয়ে দিল, বিল নিয়ে তাড়াহুড়ো তাদের পছন্দ নয়। বিলটি পাঠানো হোক সংসদীয় কমিটিতে। অন্যদিকে সরকার চায় লোকসভা ভোটের আগে বিলটি পাশ হয়ে যাক।

এদিন লোকসভায় কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি বলেন, কেবল জাতভিত্তিক সংরক্ষণ ৫০ শতাংশের মধ্যে বেঁধে রাখার জন্য সুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়েছিল। সামাজিক ও শিক্ষাগত দিক থেকে পিছিয়ে পড়াদের জন্য সংরক্ষণের বিষয়টিকে এতদিন কেবল জাতপাতের নিরিখে দেখা হত। তাই সুপ্রিম কোর্টের রায় কেবলমাত্র জাতপাতের সংরক্ষণের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

কংগ্রেস সম্পর্কে জেটলি বলেন, তাদের নির্বাচনী ইস্তাহারে বলা হয়েছিল, আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়াদের জন্য সংরক্ষণ করা হবে। কংগ্রেস সত্যিই তা চায় নাকি কথার কথা বলেছিল, তা এবার বোঝা যাবে।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বিজয় গোয়েল এদিন বলেন, আমরা আশা করছি, বিলটি মঙ্গলবারই পাশ হয়ে যাবে লোকসভায়। সেক্ষেত্রে বুধবার বিলটি রাজ্যসভায় পেশ করা হবে।

রাজ্যসভায় কয়েকটি বিরোধী দল ইতিমধ্যে জানিয়েছে, ওই বিল সমর্থন করবে। ফলে সেখানে এনডিএ-র সংখ্যাগরিষ্ঠতা না থাকলেও ওই বিল পাশ হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

বিলটি পাশ হলে উচ্চবর্ণের ব্রাহ্মণ, রাজপুত, জাঠ, মারাঠা, ভূমিহার এবং পেশাগতভাবে যারা ব্যবসায়ী এমন কয়েকটি জাতের উপকৃত হওয়ার সম্ভাবনা আছে। অন্যান্য ধর্মের গরিবরাও উপকৃত হবেন। বিএসপি নেত্রী মায়াবতী এবং সপা নেতা অখিলেশ সিং যাদব বলেছেন, বিলটি সমর্থন করবে। মায়াবতী এক বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছেন, মনে হচ্ছে ভোটের দিকে লক্ষ রেখে চমক দিতে চায় বিজেপি। তাহলেও আমরা ওই বিল সমর্থন করব।

অখিলেশের দল বলেছে, সরকার যদি মনে করে সংরক্ষণের ক্ষেত্রে লক্ষণরেখা অতিক্রম করবে, অর্থাৎ ৫০ শতাংশের বেশি সংরক্ষণের ব্যবস্থা করবে, তাহলে অন্যান্য পশ্চাৎপদ শ্রেণির জন্যও ৫৪ শতাংশ সংরক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। তৃণমূল কংগ্রেসের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, যদি দুর্বলতর শ্রেণির মানুষ চাকরি পায় আমি খুব খুশি হব। কিন্তু আমার প্রশ্ন হল, তথাকথিত নির্বাচনের নামে কোনও সরকার কি জনগণ তথা বেকার যুবকদের ঠকাতে পারে?

লালুপ্রসাদ যাদবের রাষ্ট্রীয় জনতা দল সরাসরি জানিয়েছে, আমরা এই বিলের বিরোধী। বিলটি সংসদে পেশ করার আগে সরকার অন্যান্য দলের সঙ্গে আলোচনা করেনি। তাদের দাবি, তফসিলী জাতি-উপজাতি এবং অন্যান্য পশ্চাৎপদ শ্রেণির জন্য ৮৫ শতাংশ সংরক্ষণ করতে হবে। তেলেঙ্গানা রাষ্ট্র সমিতির দাবি, বিলটি সংশোধন করতে হবে।

Shares

Comments are closed.