করোনার জেরে বন্ধ চিড়িয়াখানা, ভার্চুয়াল সফরের ব্যবস্থা আলিপুর ও দার্জিলিঙের জুলজিক্যাল পার্কে

ফেসবুকে পেজ তৈরি করা হয়েছে। সেই পেজে প্রতিদিন ফেসবুক লাইভের ব্যবস্থা। সকাল ৯টা থেকে ১০টা এবং দুপুর ৩টে থেকে ৪টে। সেই লাইভেই চিড়িয়াখানার পশু–পাখিদের দেখানো হচ্ছে।

১৯

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো, দার্জিলিং : করোনা পরিস্থিতি। দফায় দফায় চলছে লকডাউনও। বাইরে বের হওয়া শুধুমাত্র কাজের খাতিরে। একঘেয়েমি তাই জাপ্টে ধরেছে ছোট-বড় নির্বিশেষে সব বয়সকে। এই অবস্থা থেকে একটু মুক্তি পেতে চিড়িয়াখানায় ঘুরে আসতে পারেন। শশরীরে পৌঁছে যাওয়া এই মুহূর্তে অসম্ভব। তাই ঘরে বসে ভার্চুয়াল চিড়িয়াখানার মজাটুকু যাতে নিতে পারেন মানুষ, চালু হয়ে গেছে সেই ব্যবস্থা। আপাতত পর্দায় হাজির রাজ্যের সবথেকে বেশি আকর্ষণীয় আলিপুর চিড়িয়াখানা আর দার্জিলিঙের পদ্মজা নাইডু হিমালয়ান জুলজিক্যাল পার্ক।

সোমবার থেকে চালুও হয়ে গেছে এই পরিষেবা। ফেসবুকে পেজ তৈরি করা হয়েছে। সেই পেজে প্রতিদিন ফেসবুক লাইভের ব্যবস্থা। সকাল ৯টা থেকে ১০টা এবং দুপুর ৩টে থেকে ৪টে। সেই লাইভেই চিড়িয়াখানার পশু–পাখিদের দেখানো হচ্ছে।

করোনা সংক্রমণ রুখতে বিধি নিষেধের কারণে মার্চ মাস থেকে বন্ধ চিড়িয়াখানা। কতদিনে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে, সাধারণের জন্য চিড়িয়াখানার দরজা খুলবে তা নিয়ে নিশ্চিত নন কেউ। এই পরিস্থিতিতেই তাই এমন ভাবনা বলে জানিয়েছেন রাজ্যের বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘‘আপাতত আলিপুর চিড়িয়াখানা ও দার্জিলিঙের পদ্মজা নাইডু জুলজিক্যাল পার্কে ভার্চুয়াল সফর চলবে। পরে এই কর্মসূচির আওতায় আনা হতে পারে অন্য চিড়িয়াখানাগুলিকেও।’’

আয়তনের বিশালতা ও প্রাণী বৈচিত্রে আলিপুর চিড়িয়াখানার কদর গোটা দেশের মানুষের কাছেই। আলিপুরের সঙ্গেই পাল্লা দিচ্ছে দার্জিলিংয়ের পদ্মজা নাইডু জুলজিক্যাল পার্ক। মূলত রেড পান্ডার উপস্থিতির কারণে এই চিড়িয়াখানার আলাদা পরিচিতি রয়েছে।

ভারতের সঙ্গে দীর্ঘমেয়াদি বন্ধুত্বের নিদর্শন স্বরূপ রাশিয়া সরকারের থেকে উপহার হিসেবে পাওয়া একজোড়া সাইবেরিয়ান বাঘ এই পার্কে আসার পর ১৯৬০ সালে সর্বপ্রথম এই চিড়িয়াখানার নাম উঠে আসে শিরোনামে। রেড পান্ডার পাশাপাশি হিমালয়ান ব্ল্যাক বিয়ার, স্নো–লেপার্ড, এশিয়াটিক ব্ল্যাক বিয়ার, ইন্ডিয়ান টাইগার, ব্ল্যাক প্যান্থার ইত্যাদি সমৃদ্ধ করেছে এই জুলজিক্যাল পার্ককে। বার্ড সেকশনে আছে গোল্ডেন ফিজেন্ট, সিলভার ফিজেন্ট ও কালিজ ফিজেন্ট, ব্লু গোল্ড ম্যাকাও, রেড আইড কুকু, গ্রে পিকক, হিমালয়ান মোনাল, হিল ময়নার মতো চোখ ধাঁধানো রংবেরঙের পাখি। একাধিক বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীকে সংরক্ষণ করে অনবরত তাদের বংশবিস্তারের প্রচেষ্টা সাফল্যের সঙ্গে চালিয়ে যাচ্ছে এই চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। তাই দার্জিলিঙে বেড়াতে আসা মানুষদের কাছে এর অন্য আকর্ষণ।

এখন করোনা আতঙ্কে বেড়াতে যাওয়া শিকেয়। তাই দুধের অন্তত ঘোলে মিটুক।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More