অনুব্রতকে ফেরত চেয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় জোর প্রচার, আউশগ্রামে প্রকাশ্যে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব

সপ্তাহখানেক আগে কলকাতা থেকে দলের সাংগঠনিক রদবদলের ঘোষণা করেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পর্যবেক্ষকের পদ তুলে দেওয়ায় স্বাভাবিক ভাবেই বীরভূমের জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল অব্যাহতি পান আউশগ্রাম, মঙ্গলকোট ও কেতুগ্রামের দলীয় পর্যবেক্ষক পদ থেকে। তারপর থেকেই অশান্তি শুরু।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো, পূর্ব বর্ধমান: আবার আউশগ্রাম, মঙ্গলকোট ও কেতুগ্রামের দলীয় পর্যবেক্ষক পদে অনুব্রত মণ্ডল। টাউন সভাপতি থেকে বিধায়ক এমনকী এলাকার নেতা কর্মীদের সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন এমন প্রচার তুঙ্গে।

সপ্তাহখানেক আগে কলকাতা থেকে দলের সাংগঠনিক রদবদলের ঘোষণা করেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে গোটা রাজ্যের মতই পূর্ব বর্ধমান জেলাতেও বিভিন্ন পদে রদবদল হয়। গোটা রাজ্যের মতই জেলাতেও তুলে দেওয়া হয় পর্যবেক্ষকের পদ। তার পরিবর্তে রাজ্যস্তরের পাশাপাশি জেলাস্তরে সমন্বয় কমিটি তৈরি করা হয়। জেলা সভাপতি পদে স্বপন দেবনাথ বহাল থাকলেও নতুন চেয়ারম্যান হয়েছেন প্রাক্তন সাংসদ মমতাজ সংঘমিতা চৌধুরী। লোকসভা নির্বাচনে পরাজয়ের পর আবার রাজনীতিতে তার নাম চর্চায় উঠে এল। কলকাতায় ভার্চুয়াল সভা করে নতুন কমিটির ঘোষণা করা হয়। রাজ্যের সমন্বয় কমিটিতে জেলা থেকে স্থান পান বর্ধমানের নেতা দেবু টুডু। তিনি রাজ্য উপজাতি সেলের সভাপতি ছিলেন। জেলা থেকে যুব রাজ্য কমিটির অন্যতম সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন প্রাক্তন জেলা যুব সভাপতি শান্তনু কোনার। অন্যদিকে জেলায় নতুন সমন্বয় কমিটি গড়ে দেওয়া হয়েছে। এতে রয়েছেন উজ্বল প্রামাণিক ও আরও দুই বিধায়ক সুভাষ মণ্ডল আর অলক মাঝি। জেলায় নতুন যুব সভাপতি হয়েছেন রাসবিহারী হালদার। তিনি সুভাষ মণ্ডলের স্থলাভিষিক্ত হন।

ভাতারের বিধায়ক সুভাষ মণ্ডল দায়িত্ব পান আউশগ্রাম, মঙ্গলকোট, কেতুগ্রাম, মন্তেশ্বর ও মেমারি বিধানসভার। পর্যবেক্ষকের পদ তুলে দেওয়ায় স্বাভাবিক ভাবেই বীরভূমের জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল অব্যাহতি পান আউশগ্রাম, মঙ্গলকোট ও কেতুগ্রামের দলীয় পর্যবেক্ষক পদ থেকে। রাজ্যে প্রথম পালাবদল শুরু হয় পূর্ব বর্ধমানের গুসকরা পুরসভায়। ২০০৮ সালে গুসকরা পুরসভা নির্বাচনে পরাজিত হয় বামেরা। চঞ্চল গড়াইয়ের হাত ধরে ক্ষমতায় আসে তৃণমূল কংগ্রেস । তখন থেকেই আউশগ্রাম, মঙ্গলকোট ও কেতুগ্রামের দলীয় পর্যবেক্ষক পদে রয়েছেন বীরভূমের কেষ্টদা মানে অনুব্রত মণ্ডল।

সাংগঠনিক স্তরে রদবদলের পর থেকেই চরম গুঞ্জন শুরু হয় আউশগ্রামে। পরদিনই আউশগ্রাম ১ নম্বর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস কার্যালয়ে প্রতিবাদ সভার আয়োজন করা হয়। সেখানে ব্লক সভাপতি সেখ সালেক রহমান ও গুসকরা শহর তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি কুশল মুখার্জি বলেন, ‘‘সুভাষ নয় তাদের আস্থা অনুব্রত মণ্ডলে। আগের মতই অনুব্রত মণ্ডলকে আউশগ্রামের পর্যবেক্ষক পদে বহাল করা হোক।’’

শনিবার বিকাল থেকে এই দাবি জোরদার হয়। সামাজিক মাধ্যমে রীতিমতো ঘোষণা করে দেওয়া হয় সুভাষ মণ্ডল নয়, আউশগ্রাম, কেতুগ্রাম ও মঙ্গলকোটের দায়িত্বে ফের অনুব্রত মণ্ডল। কোমর বেঁধে নামেন অনুব্রত মণ্ডলের স্নেহধন্য আউশগ্রামের বিধায়ক রকেট তথা অভেদানন্দ থান্ডার। ওইদিন সন্ধ্যায় গুসকরা রটন্তী কালিমন্দিরে পুজোর আয়োজন করা হয়। কোভিড আবহের মধ্যেই সামাজিক দূরত্ব শিকেয় তুলে লোকজন জড়ো করে মন্দির চত্বরে মিষ্টি বিতরণ করেন বিধায়ক।

এই বিষয়ে বিধায়ক অভেদানন্দবাবু বলেন, ‘‘দাদাই আবার দায়িত্বে। অর্থাৎ তিন বিধানসভার দলীয় পর্যবেক্ষক পদে অনুব্রত মণ্ডলই ফের দায়িত্ব পেলেন।’’ বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে তা পোস্টও করেন। ঠিক একই ভাবে গুসকরা শহর তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি কুশল মুখার্জিও পোস্ট করেন একই কথা।

এই বিষয়ে অনুব্রত মণ্ডল কিছু বলতে অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, ‘‘আমি দলের সৈনিক। দল যা বলবে তাই অক্ষরে অক্ষরে মেনে চলব।’’ অন্যদিকে সুভাষ মণ্ডলও জানান, এই বিষয়ে তাঁর কিছু জানা নাই।

রাজ্য সমন্বয় কমিটির সদস্য তথা জেলা পরিষদের সহসভাধিপতি দেবু টুডু বলেন, ‘‘সাংগঠনিক স্তরে রদবদলের কোনও কাগজপত্র হাতে পাইনি। সপ্তাহখানেক আগে যা হয়েছে সেটাই তো বহাল আছে এটাই আমি জানি।’’

আউশগ্রাম বিধানসভা এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেসের গোষ্ঠীকোন্দল সর্বজনবিদিত। গোষ্ঠীকোন্দল মাঝে মধ্যেই গোষ্ঠী সংঘর্ষেরও চেহারা নেয়। গত সাত বছরে শাসক দলের গোষ্ঠী সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন তৃণমূল কংগ্রেস নেতা কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। এবার পর্যবেক্ষক পদে অনুব্রত মণ্ডলকে চেয়ে ফের প্রকাশ্যে দলের গোষ্ঠী কোন্দল।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More