সবাইকে পুনর্বাসন দিয়েই কয়লা তোলা হবে দেউচায়, বৈঠকের পর জানালেন রাজ্যের মুখ্যসচিব

মুখ্যসচিব বললেন, ‘‘সরকার এখানে ব্যবসা করতে আসেনি। এখান থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা তুলে সরকার মুনাফা করবে আর আমরা বঞ্চিত হব এই মানসিকতা যেন স্থানীয় মানুষদের না হয়। আমরা স্পষ্ট করে দিয়েছি একশো শতাংশ পুনর্বাসন নিশ্চিত করেই আমরা কাজটা শুরু করব।"

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    দ্য ওয়াল ব্যুরো, বীরভূম: ডেউচায় কয়লা তুলতে গিয়ে যাতে কোনও বাধার মুখে না পড়তে হয় তারজন্য আগাম প্রস্তুতি সেরে ফেলল প্রশাসন। এই কয়লা শিল্পাঞ্চল গড়ে তোলার ব্যাপারে বৈঠক করতে বৃহস্পতিবার মহম্মদবাজারের ডেউচায় এলেন মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা। ডেউচা গৌরাঙ্গিনী হাইস্কুলে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন জেলাশাসক মৌমিতা গোদারা, পুলিশ সুপার শ্যাম সিং, আদিবাসী গাঁওতার জেলা সম্পাদক রবীন সোরেন এবং মহম্মদবাজারের তৃণমূলের ব্লক নেতৃত্ব। ধাপে ধাপে কয়লা শিল্প হবে, বৈঠকের পরে এমনই আশ্বাস দিলেন মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা। তবে গ্রামবাসীদের সঙ্গে আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত জানানো হবে বলে জানিয়ে দিলেন আদিবাসী গাঁওতা নেতা রবীন সোরেন। এদিনের বৈঠকে আদিবাসীদের ২০ জন প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।

    ভারতবর্ষের প্রস্তাবিত সর্ববৃহৎ ডেউচা পাচামি কয়লা শিল্পাঞ্চল নিয়ে বৈঠক করতে এসে মুখ্যসচিব বললেন, ‘‘সরকার এখানে ব্যবসা করতে আসেনি। এখান থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা তুলে সরকার মুনাফা করবে আর আমরা বঞ্চিত হব এই মানসিকতা যেন স্থানীয় মানুষদের না হয়। আমরা স্পষ্ট করে দিয়েছি একশো শতাংশ পুনর্বাসন নিশ্চিত করেই আমরা কাজটা শুরু করব।” অন্যদিকে কয়েকশো আদিবাসী স্কুলের অদূরেই জমায়েত করে তাঁদের দাবি-দাওয়া জানানোর জন্য। যদিও পুলিশের পক্ষ থেকে তাদেরকে বহু আগে আটকে দেওয়া হয়।

    জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়ছে, বেঙ্গল বীরভূম কোলফিল্ড লিমিটেডের এই কয়লা প্রকল্পের ভৌগলিক অবস্থান বীরভুমের মহম্মদবাজার ব্লকের রামপুরহাট ও সাঁইথিয়া বিধানসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত। ডেউচা, হিংলো, ভারকাটা, সেকেড্ডা, পুরাতনগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের  হাটগাছা, চান্দা, বাহাদুরগঞ্জ, সালুকা, মকদুমনগর, কবিলনগর, নিশ্চিন্তপুর, দেওয়ানগঞ্জ, আলিনগর এবং হরিনসিঙ্গা এলাকার জমিতে এই কয়লা উত্তোলন  হবে। ডেউচা- পাচামী এলাকায় ৯.৭ বর্গ কিলোমিটার এবং দেওয়ানগঞ্জ-হরিনসিঙ্গা এলাকার ২.৬ বর্গ কিলোমিটার এলাকায় মজুত রয়েছে এই কয়লা। এই প্রকল্পের উৎপাদিত কয়লা মুলত তাপ বিদ্যুত প্রকল্পে ব্যবহৃত হবে। এখানে সরাসরি কর্ম সংস্থান হবে এক লক্ষ বেকারের। এছাড়াও থাকবে পরোক্ষ কর্ম সংস্থানের সুযোগ।

    ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ডেউচা পাচামি কয়লা ব্লকের দায়িত্ব নিয়েছেন একক ভাবে। প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছেন তিনি বছর দুয়েক আগে। এবার শুরু হলো সরাসরি স্থানীয় মানুষদের সঙ্গে যোগাযোগের পালা। আগামী অক্টোবর মাস থেকে স্থানীয়ভাবে কাজকর্ম শুরু হয়ে যাবে বলে জানা গেছে। মোট সাড়ে তিন হাজার একর জমিতে কয়লা উত্তোলন করা হবে। তিন থেকে চার ধাপে হবে জমি অধিগ্রহণ। প্রথম পর্যায়ে চারশো থেকে পাঁচশো একর জমি অধিগ্রহণ করা হবে। কাজ শুরু হওয়ার পর বাকি জমি পর্যায়ক্রমে অধিগ্রহণ করা হবে। এদিন সরকারের পক্ষ থেকে উপস্থিত চাষি স্থানীয় মানুষজন এবং পাথর ব্যবসায়ীদের জানিয়ে দেওয়া হয় উপযুক্ত পুনর্বাসন দেওয়ার পরেই কাজ শুরু হবে।

    মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা বলেন, ‘‘কোনও মানুষের যেন সমস্যা না হয় সেটা আমরা দেখব। এখান থেকে উত্তোলিত কয়লা রাজ্যের যে সমস্ত তাপবিদ্যুৎ প্রকল্প আছে সেখানে ব্যবহার হবে। তার ফলে বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ কম হবে এবং বিদ্যুৎগ্রাহকরা লাভবান হবেন।’’

    বৈঠকের পর বীরভূম জেলা আদিবাসী গাঁওতা নেতা সুনীল সোরেন অভিযোগ করেন, ‘‘এলাকার কয়েকশো আদিবাসী এদিন তাদের দাবি-দাওয়া নিয়ে উপস্থিত থাকতে চেয়েছিলেন। কিন্তু পুলিশ প্রশাসন সে কথা কোনওভাবেই শুনতে চায়নি। বৈঠকস্থলের অনেক আগেই তাদের আটকে দেয়। আমরা এর প্রতিবাদ করছি।’’

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More