নেপালে করোনা ভাইরাস আক্রান্তের খোঁজ মিলতেই উত্তরবঙ্গ জুড়ে সতর্কতা

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভারতের প্রতিবেশী দেশ নেপালে করোনা ভাইরাসে একজনের আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত হতেই কড়া সতর্ককতামুলক ব্যবস্থা নেওয়া হল নেপাল লাগোয়া উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন এলাকায়।

নেপালে আরও দু’‌জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে সন্দেহ। এই দু’‌জনকে টেকুরে একটি হাসপাতালে আলাদা করে রাখা হয়েছে। দু’‌জনের মধ্যে একজন মহিলা ও একজন পুরুষ। তাঁরা চিন থেকে নেপালে এসেছেন বলে খবর। নেপালের স্বাস্থ্য দফতর সূত্রেই এই খবর মিলেছে। স্বাভাবিক কারণে সতর্কতামুলক ব্যবস্থা হিসেবে কড়া নজরদারি শুরু হয়েছে ভারত–নেপাল সীমান্তে।

শিলিগুড়ির কাছে পানিট্যাঙ্কিতে মাইকে প্রচার করে সতর্ক করা হচ্ছে মানুষকে। প্রস্তুত রয়েছে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। আইসোলেশন ওয়ার্ড খোলা হয়েছে এই হাসপাতালে।ওই ওয়ার্ডের দু’টি ঘরে ৬টি বেড আপাতত রাখা হয়েছে। হাসপাতালের সুপার ডা:‌ কৌশিক সমাজদার বলেন, ‘‌স্বাস্থ্য দফতর থেকে আমাদের প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে। অভিজ্ঞ চিকিৎসকদের নেতৃত্বে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নার্স, নোডাল অফিসার ও স্বাস্থ্যকর্মীদের টিম প্রস্তুত রয়েছেন। করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী এলে নমুনা পরীক্ষারও ব্যবস্থা করা হয়েছে। করোনা ভাইরাসের মোকাবিলায় তৈরি আমরা। এর আগে সোয়াইন ফ্লু ভাইরাস ছড়ানোর সময়েও আইসোলেশন ওয়ার্ড খোলা হয়েছিল। এবারও সন্দেহজনক কিছু মনে হলে রোগীকে ওই ওয়ার্ডে রাখা হবে।’‌

শিলিগুড়ির কাছে পানিট্যাঙ্কি ও নেপালের কাঁকড়ভিটা দিয়ে দু’দেশের মধ্যে অবাধ যাতায়াত রয়েছে। চিন থেকে নেপাল হয়ে প্রচুর পর্যটক ভারতে আসেন। সেই সঙ্গে প্রতিদিন যাতায়াত করেন দু’দেশের হাজার হাজার মানুষ । তাই নেপালে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের খোঁজ মেলায় লাল সতর্কতা জারি হয়েছে ভারত-নেপাল সীমান্তে। নেপালের কাঁকড়ভিটা, পশুপতি সীমান্ত পার করে আসা বিদেশী পর্যটকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। করোনা ভাইরাসের উপসর্গ থাকলে সরাসরি উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে রেফার করা হবে। পর্যটকদের হেলথ স্ক্রিনিং ক্যাম্পে নিয়ে আসছেন এসএসবি জওয়ানেরা। নেপাল থেকে আসা প্রতিটি গাড়িতেই চলছে তল্লাশি।

উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের অধ্যক্ষ ডা:‌ সঞ্জয় মল্লিক বলেন, ‘‘এখানে ভর্তি হওয়া কোনও রোগীর দেহে করোনা ভাইরাস আছে বলে সন্দেহ হলে তার শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে পুনের এনভিআইতে। সেখান থেকে যাবে আটলান্টায়। এর বেশি কিছু করার নেই। আইসোলেশন ওয়ার্ডে চলবে শুধু সহায়ক চিকিৎসা।’’‌

আলিপুরদুয়ার জেলায় ভারত-ভুটান সীমান্তেও করোনা ভাইরাসের সতর্কতা জারি হয়েছে। ভারত ভুটান সীমান্তের জয়গাঁয় ভুটান গেটেও স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা হয়েছে। যদিও আলিপুরদুয়ার জেলা স্বাস্থ্য দফতররের পক্ষ থেকে এখনও তেমন কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি বলে জানা গেছে। আলিপুরদুয়ার জেলার উপ মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক সুবর্ণ গোস্বামী বলেন, “এখনও করোনা বিষয়ে কর্তৃপক্ষ তেমন কোনও নির্দেশ জারি করেনি। সেই কারণে ভুটান সীমান্তে আমাদের পক্ষ থেকে বাড়তি কোনও সতর্কতা জারি হয়নি।”

ভুটান থেকে প্রতিদিন লক্ষাধিক নাগরিক তাদের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে আলিপুরদুয়ার জেলার জয়গাঁতে আসেন। শুধু তাই নয়, জয়গাঁ হয়ে প্রতিদিন হাজারেরও বেশি পর্যটক ভুটানে যান এবং সেখান থেকে ফিরে আসেন। সেই কারণে ভারত ভুটান সীমান্তের প্রবেশ দ্বারে এসএসবির পক্ষ থেকে সন্দেহজনক ব্যক্তিদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাও হচ্ছে। এসএসবির ৫৩ নম্বর ব্যাটেলিয়ন এই সমগ্র কাজের দায়িত্বে রয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। এস এস বির ৫৩ নম্বর ব্যাটেলিয়নের কমান্ড্যান্ট অরবিন্দ কুমার বলেন, “ভুটান গেটে চেকিং বাড়ানো হয়েছে। সন্দেহজনক প্রত্যেক ব্যক্তির স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে। ভারত ভুটান সীমান্তের বিভিন্ন স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও হাসপাতালগুলোতে কী ধরনের রোগীরা আসছেন সেই দিকেও খেয়াল রাখা হচ্ছে।”

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More