শনিবার, মে ২৫

শ্রীলঙ্কা-বিস্ফোরণে নিহতদের মধ্যে রয়েছেন তিন ভারতীয়ও, জানালেন সুষমা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: শ্রীলঙ্কায় ধারাবাহিক বিস্ফোরণে নিহত দু’শোরও বেশি মানুষের মধ্যে তিন জন ভারতীয় বলে জানা গিয়েছে। এখনও পর্যন্ত এমনটাই খবর বলে জানালেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। তবে এই সংখ্যা তিন থেকে আরও বাড়তেও পারে বলে আশঙ্কা বিদেশ মন্ত্রকের।

বাংলাদেশের বিদেশ প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানিয়েছেন, শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ বিস্ফোরণের পর থেকে দু’জন বাংলাদেশির কোনও খোঁজ মিলছে না। এঁদের এক জন প্রাপ্ত বয়স্ক, অপর জন শিশু। চার সদস্যের পরিবারটি শ্রীলঙ্কায় বেড়াতে গিয়েছিল। তবে নিখোঁজদের কোনও পরিচয় জানাতে পারেননি বিদেশমন্ত্রী।

রবিবার সকাল পৌনে ন’টা থেকে শুরু করে, মোট আট বার ভয়াবহ বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে শ্রীলঙ্কার মাটি। বিভিন্ন গির্জায় চলে আত্মঘাতী বিস্ফোরণ। এখনও পর্যন্ত যা জানা গিয়েছে, তাতে ২০৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। বিদেশমন্ত্রী একটি টুইট করে লিখেছেন, “ন্যাশনাল হসপিটাল ভারতীয় হাই কমিশনকে জানিয়েছে, ঘটনায় তিন ভারতীয় প্রাণ হারিয়েছেন। এঁদের মধ্যে আছেন লক্ষ্মী, এন চন্দ্রশেখর এবং রমেশ। বাকি তথ্য জানার কাজ  শুরু করেছি আমরা।”

দেখুন সেই টুইট।

সুষমা জানান, প্রথমে ছ’টি বিস্ফোরণের খবর এলেও, পরে আরও একটি গেস্ট হাউস এবং একটি কলোনিতে হামলা হয়। বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ আরও লিখেছেন, শ্রীলঙ্কার বিদেশমন্ত্রীকে তিনি জানিয়েছেন, ভারত সব রকমের সাহায্যের জন্য  তৈরি। আহতদের জন্য মেডিক্যাল টিম দরকার হলে তা-ও পাঠাতে পারে ভারত। পাশাপাশি ভারতীয়দের নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য শ্রীলঙ্কার হাইকমিশন সমস্ত ব্যবস্থা করে রেখেছে বলেও জানান সুষমা।

দুই বাংলাদেশি নিখোঁজের ব্যাপারে বিদেশ প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানিয়েছেন, “আমরা আশা করছি, তাঁরা কোনও হোটেলে বা হাসপাতালে রয়েছেন। তাঁদের সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে বাংলাদেশ হাইকমিশন নিয়মিত শ্রীলঙ্কার বিদেশ মন্ত্রকে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছে।”

রবিবারের ধারাবাহিক বিস্ফোরণের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে এখনও পর্যন্ত সাত জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন শ্রীলঙ্কার প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রুয়ান বিজয়বর্ধনে। তিনি জানান, বেশির ভাগ বিস্ফোরণের নেপথ্যে আছে আত্মঘাতী এনটিজে জঙ্গিরা।

অন্য দিকে, শ্রীলঙ্কার গির্জায় যে হামলা হতে পারে দশ দিন আগেই তার ইঙ্গিত পেয়েছিল পুলিশ। সতর্কবার্তা জারি করেছিলেন শ্রীলঙ্কার পুলিশ প্রধান। শ্রীলঙ্কার দাবি, পুলিশ প্রধান পি জয়াসুন্দরা ১১ এপ্রিল এই মর্মে পুলিশ আধিকারিকদের সতর্কবার্তাও পাঠান।

তাতে লেখা হয়েছিল, এনটিজে নামে একটি  সংগঠন দেশের বিশিষ্ট গির্জায় হামলার চেষ্টা করছে। ভারতীয় হাই  কমিশনও তাদের নজরে আছে। এনটিজে একটি ইসলামিক চরমপন্থী সংগঠন। কিছু দিন আগে  শ্রীলঙ্কার বিভিন্ন জায়গায় বৌদ্ধ ধর্মের স্থাপত্যের উপরে আক্রমণ নেমে এসেছিল। একাধিক মূর্তি ভেঙে ফেলা হয় তখন। সেই ঘটনাতেও এই সংগঠনের নাম জড়িয়েছিল।

Shares

Comments are closed.