Latest News

বিজেপি-র ইস্তেহারে চুনীদের নিয়ে তহবিল, উৎসাহ নেই বাংলার প্রাক্তনদের, উচ্ছ্বসিত দীপেন্দু, দিন্দারাই

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বিজেপি-র ইস্তেহারে বাংলার খেলাধুলোর মান্নোয়ননের পরিকল্পনা অগ্রাধিকার পেয়েছে। যে খেলাগুলি রাজ্যে অবহেলিত সেগুলি নিয়ে ভাবনার কথা রয়েছে ইস্তাহারে।

এমনকি বাংলার তিন দিকপাল মহানক্ষত্র, গোষ্ঠ পাল, শৈলেন মান্না ও চুনী গোস্বামী স্মরণে একটি তহবিল গঠন করা হয়েছে। গোষ্ঠ পাল ক্রীড়া উন্নয়ন তহবিল গঠনের জন্য পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে দু’হাজার কোটি টাকার। এই তহবিল গঠন করে সেটি বাংলার খেলাধুলোর বিকাশ ঘটানো হবে।

পদ্মশ্রী শৈলেন মান্নার নামে একটি আবাসিক স্পোর্টস স্কুল গড়ে তোলা হবে। যে স্কুলে পড়াশুনো করে শিক্ষার্থিদের ভবিষ্যতের জন্য তৈরি করা হবে। এটিও ইস্তাহারে রয়েছে। এর আগে রাজ্য সরকারের ব্যবস্থাপনায় বানীপুরে অ্যাথলেটিক স্কুলের সূচনা হলেও সেটি দিনকালে বন্ধ হয়ে গিয়েছে। তারপর পুরোটাই সাইকেন্দ্রীক হয়ে গিয়েছে অ্যাথলিটদের উন্নতি।

ফুটবলের পীঠস্থান বলতে বাংলাকেই বোঝায়। তাই বিধানসভা নির্বাচনের দিকে লক্ষ্য রেখে ফুটবল প্রেমীদের মন জয় করতে চাইছে বিজেপি। সেই কারণেই তারা ইস্তাহারে প্রকাশ করেছে চুনী গোস্বামী ফুটবল উন্নয়ন তহবিল। ফুটবলের ঐতিহ্য ও পরম্পরা ধরে রাখতে ও বিকাশ ঘটাতে তারা ১০০ কোটি টাকার বরাদ্দ রেখেছে।

বিজেপি-র ইস্তেহারে খেলা নিয়ে যে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে, সেই নিয়ে বাংলার অধিকাংশ তারকারাই উদাসীন। কারণ ক্রিকেট, ফুটবলসহ অন্যান্য ইভেন্টের ক্রীড়াবিদদের প্রতিবছর সম্মান দেয় তৃণমূল সরকার। সেই জন্যই হোক কিংবা অন্য কোনও কারণে মুখ খুলতে নারাজ বঙ্গের ক্রীড়াবিদরা।

বাংলার রঞ্জিজয়ী প্রাক্তন দলনায়ক সম্বরণ বন্দ্যোপাধ্যায় যেমন জানিয়েছেন, আমার এই ব্যাপারে কোনও উৎসাহ নেই। ইচ্ছে করেই কোনও উৎসাহ রাখছি না। বিজেপি তো এতদিন কেন্দ্রেই রয়েছে, তারা ক্রীড়াক্ষেত্রে কী উন্নয়ন করেছে, সেটি জানতে চাই!

ফুটবলের গৌতম সরকার থেকে শুরু করে সুরজিৎ সেনগুপ্ত এই বিষয়ে একেবারেই উদাসীন। তাঁদের মত হল, ‘‘ইস্তাহারে লেখা, আর সেটিকে বাস্তবায়ন করার মধ্যে আকাশ-পাতাল তফাৎ। ইস্তাহারে লেখা মানেই সব যে হয়ে গেল, তা তো নয়!’’

বাংলার অধিকাংশ প্রাক্তনদের নানা সুবিধে-অসুবিধে দেখেছেন মুখ্যমন্ত্রী, সেই কারণেই কেউই আগ বাড়িয়ে বিজেপি-র ইস্তেহার নিয়ে উচ্ছ্বাস দেখাতে নারাজ। যদিও এই নিয়ে সদ্য তৃণমূল ত্যাগী বিধায়ক তথা প্রাক্তন ফুটবলার দীপেন্দু বিশ্বাস জানিয়েছেন, ‘‘ইস্তাহার দেখেই তো বোঝা যাচ্ছে বিজেপি এই বিষয়ে কত সদর্থক। তারা আমাদের শ্রদ্ধেয় তারকাদের স্মরণে তহবিল গঠন করার কথা বলছে, এগুলি তো আমরা আগে দেখিনি।’’

নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহদের এই ইস্তাহারে উচ্ছ্বসিত বাংলার প্রাক্তন ক্রিকেটার বিজেপি-র প্রার্থী অশোক দিন্দা। তিনি রবিবার জানালেন, ‘‘তৃণমূল সরকার তো শুধুমাত্র পাড়ার ক্লাবদের টাকা দিয়েছে, আর প্রতিবছর সেই একই লোকদের সম্মান দেয়, এছাড়া আর কি করেছে, একবার বলবেন?’’

দিন্দা আরও বলেছেন, ‘‘বাংলার খেলা মানে শুধু ফুটবল, ক্রিকেট, টেনিস নয়, অনেক ছোট খেলার কর্তারাও কষ্ট করে নিজেদের খেলাকে বাঁচিয়ে রেখেছে, তাদের জন্য বর্তমান রাজ্য সরকার কিছু কি ভাবে? বিজেপি ক্ষমতায় আসবে, আর এলে বাংলার খেলাধুলোর তা থেকে লাভ হবে, এখনই আমি লিখে দিতে পারি।’’

 

You might also like