Latest News

ড্রেসিংরুমে ফিরেই বলেছিলেন নেতৃত্ব ছাড়বেন, সতীর্থদের কাছে ‘অনুরোধ’ও ছিল কোহলির

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ হারের পরেই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন টেস্টের অধিনায়কত্ব ছাড়বেন। সেই মতোই ড্রেসিংরুমে ফিরে শুক্রবারই বিরাট কোহলি পুরো দলকে ডেকে বলেছিলেন, ‘‘টেস্ট ক্যাপ্টেন হিসেবে আজই আমার শেষ দিন ছিল। আমি আর চাইছি না অধিনায়কত্ব করতে। কিন্তু আমার একটাই অনুরোধ কেউ যেন আমার এই কথা কাউকে না বলে দেয়। তা হলে সব পরিকল্পনাই মাটি হয়ে যাবে।’’

সতীর্থরা সবাই যে যাঁর কথা রেখেছেন, কাকপক্ষীও টের পায়নি কী ঘোষণা করবেন কোহলি। বিনা মেঘে বজ্রপাতের মতোই তিনি টেস্ট দলের নেতৃত্বও ছেড়ে দিয়ে সাধারণ ক্রিকেটার হয়ে গেলেন।

এদিন এক ইংরাজি সংবাদমাধ্যম এই খবর ফাঁস করেছে। তারা এও লিখেছে, কোহলি সব ফরম্যাট থেকেই নেতৃত্ব ছাড়বে, এটি দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যাওয়ার আগেই ঠিক করে নিয়েছিলেন। তাই তিনি বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন। কারণ তিনি জানেন, তাঁকে দল থেকে বাদ দেওয়া যাবে না, কারণ তাঁর পারফরম্যান্স রয়েছে। কিন্তু নেতা হিসেবে আর কিছু দেওয়ার নেই, তিনি নিজেই বুঝে গিয়েছিলেন।

এদিকে, তার মধ্যে বোর্ডের শীর্ষ কর্তা কোষাধ্যক্ষ অরুণ ধুমাল জানিয়েছেন, বিরাট অধিনায়কত্ব ছাড়ার পিছনে বোর্ডের কোনও চাপ ছিল না। এটি একেবারেই তাঁর ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত।

সৌরভের বোর্ডের জন্যই টেস্ট দলেরও অধিনায়কত্ব ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন। সেই দাবি উড়িয়ে দিয়েছেন বিসিসিআইয়ের কোষাধ্যক্ষ। তাহলে কি দুর্বল দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে হারের কারণেই বিরাট অধিনায়কত্ব ছাড়লেন?

কোষাধ্যক্ষ বলেন, ‘‘আমার মনে হয় না যে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সিরিজ হারের বিষয়টি ওর সিদ্ধান্তে বেশি প্রভাব ফেলেছে। এটা দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ভারতের সিরিজ জয় হত। কোনও ভারতীয় অধিনায়ক দক্ষিণ আফ্রিকায় সিরিজ জিততে পারেননি। তাই ওটা কারণ হবে না। আমি নিশ্চিত যে ও ভেবেচিন্তে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ও সাত বছর ধরে দলের নেতৃত্ব দিচ্ছে। ওর মনে হয়েছে, দলের অন্য কারও অধিনায়কত্বের ব্যাটন তুলে দেওয়ার এটা সেরা সময়।’’

You might also like