Latest News

কলকাতা লিগে আবারও হবে রেডিও ধারাভাষ্য, ফিরছে বাঙালি নস্টালজিয়া

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কলকাতার মেঠো ময়দানে প্রাণ এনেছিল অজয় বসু-পুষ্পেন সরকারদের রেডিও ধারাভাষ্য (Radio Commentary)।

অজয় বসুর সেই মোহিত কণ্ঠ, “কলকাতার ইডেন গার্ডেন্স থেকে বলছি”, বাঙালি নস্টালজিয়াকে বড় বেশি আক্রান্ত করে। কিংবা তিনি যখন বলছেন, ‘‘আমি মোহনবাগান মাঠ থেকে সরাসরি ধারাভাষ্য দিচ্ছি। রক্ষণে সুব্রত ভট্টাচার্যের পায়ে বল, তিনি মাঝমাঠে দিলেন প্রশান্ত ব্যানার্জীকে, প্রশান্ত দেখেশুনে বল ঠেললেন আগুয়ান শিশির ঘোষকে, শিশির দেখছেন কাকে দেবেন, আবার তিনি ঠেললেন প্রশান্তর উদ্দেশে, এবার প্রশান্তর হালকা চিপ.. প্রত্যুৎপন্নমতিত্বের ঢঙে শিশিরের হেড জালে জড়িয়ে গেল। গোওওও…ল।’’

এবার কলকাতা লিগে (Kolkata League) সেই উন্মাদনা ফিরছে। আকাশবাণীর আধিকারিকরা আইএফএ-র সঙ্গে আলোচনা করে একটি চুক্তিতে এসেছেন। বহুদিন পরে আবারও সেটি ফিরছে। আগের সচিব এই নিয়ে কোনও উচ্চবাচ্য করেননি। নয়া সচিব অনির্বাণ দত্ত বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করেছেন।

গ্রামবাংলার মানুষ, যাঁদের কাছে কলকাতার মাঠে এসে খেলা দেখা বিলাসিতা, তাঁদের কাছে রেডিও থাকা মানে অর্ধেক বিশ্‌বজয়।

ডুরান্ড কাপের ডার্বি ম্যাচে আকাশবাণী ফুটবল ধারাভাষ্য দেবে। কিন্তু কলকাতা লিগে ছোট খেলাতেও ধারাভাষ্য দেওয়া হবে, এটি সকলের কাছেই বিরাট প্রাপ্তি। ইস্টবেঙ্গলের কর্তা দেবব্রত সরকার বলেছেন, এটা সত্যিই একটা ইতিবাচক দিক। রেডিও আমাদের বাড়িতে অচল হয়ে গিয়েছিল, কলকাতা লিগে খেলার ধারাভাষ্য দিলে নয়া প্রজন্মও উৎসাহিত হবে।

মহামেডানের বিলাল আমেদ খানও জানিয়েছেন, রেডিওর প্রতি নতুন প্রজন্মের উৎসাহ হারিয়েছে। লিগের খেলা রেডিওতে ধারাভাষ্য হলে মাঠে আসার উৎসাহও পাবেন দর্শকরা।

কলকাতা লিগে ইস্টবেঙ্গল ও মহামেডান খেললেও এটিকে মোহনবাগান কোনও সিদ্ধান্ত নেয়নি। তাদের পাওনা রয়েছে আইএফএ-র কাছে। ইতিমধ্যেই বেশ কিছু অর্থ তারা মিটিয়েছে, বাকি টাকা কবে নাগাদ পাবে, তা জানতে চেয়েছেন সবুজ মেরুন কর্তারা। তারপরেই তাঁরা লিগ খেলবেন কিনা জানাবেন।

আরও পড়ুন: তিন বড় ক্লাবের নামে রাস্তা হচ্ছে শিলিগুড়িতে, তিলোত্তমাকে টেক্কা ‘উত্তরবঙ্গের রাজধানী’র

You might also like