Latest News

‘আমি মার্কাস রাশফোর্ড, বয়স ২৩ ও কালো’, বর্ণবিদ্বেষী মন্তব্যে মর্মভেদী পোস্ট ব্রিটিশ স্ট্রাইকারের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ইউরো ফাইনালে হারের জ্বালা ভুলতে পারছেন লাল চামড়ার সাহেবরা। তাঁরা রীতিমতো খড়গহস্ত, এবং তারা জাতীয় দলের ফুটবলারদেরও ছেড়ে কথা বলছেন না।

ইতালির কাছে টাইব্রেকারে হারের ইংল্যান্ড সমর্থকদের মেজাজও সপ্তমে। কাকতালীয়ভাবে ওই ম্যাচে যে তিনজন পেনাল্টি শ্যুটআউট মিস করেছিলেন, তাঁরা তিনজনই কৃষ্ণাঙ্গ তারকা ছিলেন। আর ওই কারণে সাদা চামড়ার ব্রিটিশরা হারের জ্বালা মেটাতে বর্ণবিদ্বেষী মন্তব্য শুরু করে দিয়েছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় বর্ণবিদ্বেষের শিকার হয়েছেন তিন কৃষ্ণাঙ্গ তারকা মার্কাস রাশফোর্ড, জেডন স্যাঞ্চো এবং বুকায়ো সাকা।

তবে এই ফুটবলারদের উদ্দেশ্যে বর্ণবাদী মন্তব্য ঘিরে উত্তাল পুরো ইংল্যান্ড। ইংল্যান্ডের বরিস জনসন পর্যন্ত নিয়ে মন্তব্য করেছেন। ইংলিশ ফুটবল দলের পক্ষ থেকে বিবৃতি দেওয়া হয়েছে। লন্ডন পুলিশ জানিয়েছে, তারা তদন্ত শুরু করেছে। বর্ণবিদ্বেষী মন্তব্যকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এই মন্তব্যের কারণে অবশেষে মুখ খুলেছেন মার্কাস রাশফোর্ড। অত্যন্ত মর্মভেদী সেই পোস্ট। বর্ণবিদ্বেষীদের উদ্দেশে দৃঢ় মনোভাব দেখিয়ে মার্কাস লিখেছেন, ‘‘আমার পেনাল্টি শট নেওয়া ভাল হয়নি। অবশ্যই ওই পরিস্থিতিতে গোল করা উচিত ছিল। এ নিয়ে যাবতীয় সমালোচনা ও নিন্দা আমি মেনে নেব এবং ক্ষমা চাইব। কিন্তু আমি কে এবং কোথা থেকে এসেছি তা নিয়ে কোনওভাবেই ক্ষমা চাইব না। আমি মার্কাস রাশফোর্ড, বয়স ২৩ এবং কালো। উইদিংটন নিবাসী একজন মানুষ।’’

এই ঘটনায় বোঝা গিয়েছে তিনি ওই ঘটনায় কতটা কষ্ট পেয়েছেন। তাঁদের তিনজনের গায়ের রং নিয়ে কথা বলা হয়েছে, যা কষ্টকরও। তিনি যদিও জানিয়েছেন, ‘‘আমার ফেলে আসা মরসুম ভাল কাটেনি। তবে আমি পেনাল্টি ভাল মারি, মিস তেমন হয় না। সেই কারণেই কোচ আমার প্রতি আস্থা রেখেছিলেন। আমি জানি আমার সতীর্থ এবং পুরো দেশকে হতাশ করেছি। এ সময়ে আমার অনুভূতি প্রকাশের কোনও ভাষা নেই। এজন্য আমি ক্ষমাই চাইতে পারি।’’

You might also like