Latest News

অভিজ্ঞতার ডানায় ভর করে ফাইনালে চেন্নাই

দ্য ওয়াল ব্যুরো: নিলামের পর সবাই বলেছিল বুড়োদের দল। কিন্তু মালিকদের লক্ষ্য ছিল অন্য। অভিজ্ঞতাকে দলের সম্পদ করতে চেয়েছিলেন তাঁরা। সেই অভিজ্ঞতার দামও পেলেন। বুড়ো ঘোড়ারাই কোয়ালিফায়ার ১-এ করলেন বাজিমাত। পৌঁছে গেলেন ফাইনালে।

দলের গড় বয়স ৩০-র উপর হলেও সবার যেন পুনর্জন্ম হয়েছে চলতি আইপিএলে। গত কয়েক মরশুম অন্যান্য ফ্র্যাঞ্চাইজির কাছে বোঝায় পরিণত হওয়া ওয়াটসন, রায়ুডুদের ভার্শন ২.০ দেখছে এবারের আইপিএল। সঙ্গে আছেন ক্যাপ্টেন কুল মাহি। তাঁরও ব্যাটিংয়ে বদল এসেছে। গত কয়েকমাসে ঠিক মতো টাইমিং পাচ্ছিলেন না ব্যাটে। কিন্তু এবার প্রথম থেকেই ‘মাহি মার রাহা হ্যায়।’

প্রথম ম্যাচে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে প্রায় হেরে যাওয়া ম্যাচ একাই জিতিয়েছিলেন ব্রাভো। সেই শুরু। প্রত্যেক ম্যাচেই নতুন ম্যাচ উইনার খুঁজে পেয়েছেন চেন্নাই। কখনও রায়ুডু, কখনও ওয়াটসন, কখনও বা ধোনি নিজে। এই ম্যাচে মাহি পেলেন দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ফাফ দু’প্লেসিকে।

চলতি মরশুমে ব্যাট হাতে প্রায় চুপ ছিলেন ফাফ। সুযোগও পেয়েছেন কম। কিন্তু এই গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ধারাবাহিক রায়ুডুর জায়গায় ওপেন করতে পাঠানো হলো দু’প্লেসিকে। শেষ পর্যন্ত থেকে ম্যাচ জিতিয়েও ফিরলেন তিনি। আবার প্রমাণ করলেন ফর্ম টেম্পোরারি হলেও ক্লাস পার্মানেন্ট।

প্রথমে ব্যাট করে মাত্র ১৩৯ রান তোলে হায়দ্রাবাদ। কিন্তু এই অল্প রান তারা করতে গিয়েও একটা সময়ে ৬২ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে কার্যত ধুঁকছিল চেন্নাই। সেখান থেকে দুই টেল এন্ডার দীপক চাহার ও শার্দূল ঠাকুরের সঙ্গে মিলে দলকে জেতালেন দু’প্লেসি। ৪২ বলে ৬৭ করে অপরাজিত থাকেন তিনি।

এই নিয়ে ৭ নম্বর ফাইনালে উঠল চেন্নাই। অধিনায়ক ধোনির জার্সি নম্বরও ৭। ফাইনাল ২৭ মে। ধোনির প্রিয় ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে। ৪ দিন পর আপাতত সেই ফাইনাল জেতার মহড়ায় মাহির সেনা।

You might also like