Latest News

পরের বছর আইপিএলে আরও দুটি দল, দলগুলির বাজেটও বেড়েছে পাঁচ কোটি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আইপিএল যে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কাছে সোনার হাঁস, সেটি ফের প্রমাণিত। এখনও চলতি মরসুমের আইপিএল শেষ হয়নি। ভারতে হতে হতে সেটি স্থানান্তরিত হয়েছে আরব আমিরশাহীতে। সেটি হবে আসন্ন সেপ্টেম্বরে, তার মধ্যেই বিসিসিআই ২০২২ সালের আইপিএল নিয়ে বৈঠক সেরে ফেলল। তারা কয়েকটি সিদ্ধান্ত পাস করেছে এই বৈঠকে।

আইপিএলে এর আগে তিনটি আসরে দেখা গিয়েছে ৮ দলের বেশি। ২০১১ সালের আসরে সবচেয়ে বেশি ১০ দল নিয়ে হয়েছিল এ মেগা টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট। পরের দুই বছর অংশ নিয়েছিল ৯টি দল। এরপর থেকে ৮ দল নিয়েই হয়ে আসছে আইপিএলের খেলা।

প্রায় ১১ বছর পর ২০২২ সালে ফের আইপিএলে নেওয়া হচ্ছে ১০টি দল। সেই কারণেই হতে চলেছে মেগা নিলাম পর্ব। সেটি হতে পারে মুম্বই কিংবা আমেদাবাদে।

জানা গিয়েছে, ২০২২ সালের আইপিএলে আসতে চলা দুই নয়া দলের নতুন ফ্রাঞ্চাইজি হিসেবে কলকাতার আরপি-সঞ্জীব গোয়েঙ্কা গ্রুপ, আমেদাবাদের আদানি গ্রুপ, হায়দরাবাদের অরবিন্দ ফার্মা লিমিটেড, গুজরাটের টরেন্টো গ্রুপ বিড করতে পারে। এছাড়াও কয়েকটি অন্যান্য কর্পোরেট সংস্থা এবং কিছু বেসরকারি ইক্যুইটি এবং বিনিয়োগের পরামর্শ প্রদানকারী সংস্থাগুলিও আগ্রহ দেখিয়েছে।

আগে হওয়া সব মেগা নিলামে তিনজন খেলোয়াড়কে ধরে রাখার (রিটেইন) সুযোগ ছিল দলগুলোর সামনে। পাশাপাশি রাইট টু ম্যাচ কার্ড ছিল আরও দুটি। তবে এবারের মেগা অকশনে আগের দলের ৪ জন খেলোয়াড়কে ধরে রাখতে পারবে দলগুলো।

এক্ষেত্রে সর্বোচ্চ দু’জন বিদেশি কিংবা সর্বোচ্চ তিনজন দেশি খেলোয়াড়কে দলে রেখে দিতে পারবে তারা। এমনও হতে পারে দু’জন ভারতীয়, দু’জন বিদেশী ক্রিকেটারও এই সমীকরণে আসতে পারেন।

২০২২ সালের আইপিএলে সবকটি ফ্র্যাঞ্চাইজির বেতনের পরিমাণ ৮৫ কোটি থেকে বাড়িয়ে ৯০ কোটি টাকা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিসিসিআই। আইপিএল-১৫-র মেগা নিলামে ক্রিকেটার কেনার ক্ষেত্রে বেতন তহবিল থেকে অন্তত ৭৫ শতাংশ অর্থ খরচ করতে হবে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলিকে।

You might also like