রবিবার, নভেম্বর ১৭

রবি শাস্ত্রী মুখ খুললেন দাদাকে নিয়ে, ভরিয়ে দিলেন প্রশংসায়

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ১৩ অক্টোবরের মধ্যরাতের টানটান নাটক যখন শেষ হল, তখন আরব সাগরে সূর্যোদয় হয়ে গিয়েছে। ১৪ অক্টোবর সকাল। সবাই মোটামুটি জেনে গিয়েছে নতুন বোর্ড সভাপতি হতে চলেছেন প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়।

তার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে সৌরভকে এক সাংবাদিক প্রশ্ন করেছিলেন। রবি শাস্ত্রীর সঙ্গে কোনও কথা হল না কি? জবাবে মহারাজ বলেছিলেন, “কেন? উনি আবার কী করলেন!” তারপর গত বুধবার সরকারি ভাবে বোর্ড সভাপতির দায়িত্ব নিয়েছেন দাদা। শনিবার নয়া বোর্ড সভাপতিকে নিয়ে মুখ খুললেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের কোচ রবি শাস্ত্রী।

সৌরভ সম্পর্কে শাস্ত্রী বলেছেন, “যোগ্য হাতে পড়েছে ভারতীয় ক্রিকেট। নিশ্চয়ই পুরনো গরিমা ফিরবে বোর্ডের।” একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে বিরাট কোহলিদের হেড স্যর আরও বলেছেন, “ওঁর সাফল্যের কথা সবাই জানে। প্রশাসক হিসেবেও সৌরভ যথেষ্ট সফল। আমি মনে করি মাঝে বোর্ড পরিচালনায় যে তাল কেটে গিয়েছিল, তা আবার ঠিক হবে সৌরভের হাত ধরে।”

সৌরভ-শাস্ত্রী দ্বৈরথের শুরু ২০১৬ সালে। তখন বোর্ডের উপদেষ্টা কমিটির প্রধান ছিলেন সৌরভ। তিনি ছাড়াও সেই কমিটিতে ছিলেন শচীন তেণ্ডুলকর ও ভিভিএস লক্ষণ। ডানকান ফ্লেচার ভারতীয় দলের কোচের পদ ছেড়ে দেওয়ার পর এক বছর দলের টেকনিক্যাল ডিরেক্টরের পদে ছিলেন রবি শাস্ত্রী। তারপর ২০১৬ সালে কোচ নির্বাচন প্রক্রিয়ায় আবেদন করেন তিনি। কিন্তু সৌরভের নেতৃত্বাধীন কমিটি কোচ হিসেবে নির্বাচন করেন অনিল কুম্বলেকে। এই নির্বাচনের পরেই প্রকাশ্যে রবি শাস্ত্রী বলেছিলেন, সৌরভের জন্যই কোচের পদ পাননি তিনি। তার জবাবে দাদা বলেন, কোচ হতে গেলে উপস্থিত থেকে ইন্টারভিউ দিতে হয়। রবি শাস্ত্রী ইন্টারভিউ দিয়েছিলেন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে।

এক বছর পর অনিল কুম্বলে কোচের পদ থেকে পদত্যাগ করার পর অবশ্য শাস্ত্রীকেই কোচ বেছে নেন সৌরভদের কমিটি। তারপর শাস্ত্রী বলেছিলেন, তাঁদের মধ্যেকার বিভেদ মিটে গিয়েছে। কারণ বর্তমানে তাঁদের দু’জনেরই লক্ষ্য এক। ভারতীয় ক্রিকেটের উন্নতি। তবে শাস্ত্রী যাই বলুন না কেন, নিন্দুকদের অনেকেই বলেন, যে কাচ একবার ভেনে গিয়েছে তা জোড়া লাগালেও দাগ থেকেই যায়। কিন্তু এ দিনের শাস্ত্রীর বক্তব্যকে ইতিবাচক বলেই মনে করছেন ক্রিকেট মহলের অনেকে।

পড়ুন দ্য ওয়াল-এর পুজোসংখ্যার বিশেষ লেখা…

Comments are closed.