দুই মায়ের দ্বৈরথ দেখার অপেক্ষায় টেনিস দুনিয়া

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো : নজরে রয়েছে টেনিস দুনিয়া। দ্বৈরথ দুই মায়ের মধ্যে। গ্যালারিতে বাবার কোলে বসে এক পুঁচকে শিশু সন্তান দেখছে তাঁর মা কী করে টেনিস বিশ্বকে শাসন করছে। ওই সন্তানের বাবা আঙুল দিয়ে দেখাচ্ছে ওই দেখো তোমার মা…! অপার বিস্ময়ে সেই সন্তানও চেয়ে টেনিস কোর্টের দিকে। অন্যটি শিশুটিও তাঁর মাসির কোলে বসে দেখছে মায়ের প্রতাপ অন্য ক্ষেত্রে।

আজ বৃহস্পতিবার রাতে ইউ এস ওপেন টেনিসের মহিলা বিভাগের সেমিফাইনালে খেলবেন সেরেনা উইলিয়ামস ও ভিক্টোরিয়া আজারেঙ্কা। সেরেনার কাছে মার্গারেট কোর্টকে স্পর্শের সুযোগ, মার্গারেটের ২৪টি গ্র্যান্ডস্লাম খেতাব অর্জন করতে সেরেনার দরকার আর একটি খেতাব। আজারেঙ্কা এর আগে মাত্র দুটি খেতাব পেয়েছেন, এটি জিতলে আরেকটির সংখ্যা বাড়বে, আর কিছু নয়।

বুধবারই রাতে অবাছাই সভেতানা পিরঙ্কোভাকে হারিয়ে শেষ চারে উঠেছেন সেরেনা। এই পিরঙ্কোভাও একজন সদ্য মা। ৩২ বছরের এই বুলগেরিয়ানও মা হিসেবে শেষ আটে খেলে নজির সৃষ্টি করেছেন। তিন বছর পরে তিনি কোর্টে ফিরলেন শিশুটি একটু বড় হওয়ার পরে। ২০১৮ সালের এপ্রিলে মা হওয়ার পর আবারও টেনিসে ফিরবেন কিনা তাই নিয়ে সংশয়ে ছিলেন পিরঙ্কোভা। সেরেনার কাছে কোয়ার্টার ফাইনালে ৬-৪, ৩-৬, ২-৬ গেমে হারলেও তাঁর লড়াই মনে রাখবে টেনিস দুনিয়া।

ওই বুলগেরিয়র কাছে জেতাটাই নয়, খেলা শেষে সেরেনার কথাও মন কেড়ে নিয়েছে সকলের। তিনি জানিয়েছেন, ‘‘এই ম্যাচ আমাকে দেখিয়ে দিল মায়েরা কতটা শক্ত হতে পারে। আপনি সন্তান জন্ম দিয়েছেন মানে হল আপনি সবকিছুই করতে পারেন। আমার মনে হয় পিরঙ্কোভার মাধ্যমে আমরা সেটি আজ দেখলাম।’’

এবারও অন্য স্বাদের লড়াইয়ে ইউএসওপেনে। আজারেঙ্কা সাতবছরের ছোট সেরেনার থেকে। দুইজনের মধ্যে লড়াইয়ের ব্যবধান সেরেনার পক্ষে ১৮-৪। ২০১২ ও ২১০৩ সালে টানা দুবার ফাইনালে আজারেঙ্কাকে হারিয়েই ইউএস ওপেন জিতেছিলেন সেরেনা, দুবারই ম্যাচ গড়ায় তৃতীয় সেটে। তখন সেই সেরেনার এক নম্বর প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আজারেঙ্কাই। ওই দুটি বছরেই বেশির ভাগ সময়ে শ্রেষ্ঠত্বও ছিল বেলারুশ কন্যার। মাতৃত্বের স্বাদ নেওয়ার আগে সেরেনা-আজারেঙ্কার সর্বশেষ লড়াইয়ে জিতেছিলেন আজারেঙ্কাই। ক্যালিফোর্নিয়ায় ইন্ডিয়ান ওয়েলস ওপেনে সেরেনা হেরে গিয়েছিলেন।

মা হওয়ার পরেও আজারেঙ্কাকে লড়তে হয়েছে নিজের পুত্র সন্তানকে নিজের কাছে রাখতে। তার জন্য তাঁকে আদালতেও যেতে হয়েছে। টেনিস কোর্টে প্রতিদ্বন্দ্বিতা অবশ্য প্রভাব ফেলেনি সেরেনা-আজারেঙ্কার বন্ধুত্বে। ২০১৭ সালে সেরেনার সন্তান ধারণের পর টেনিস থেকে সরে দাঁড়ালে শুভকামনা জানিয়েছিলেন আজারেঙ্কা, ‘‘আশা করছি সেরেনা ফিরবে, আমরা আরও কিছু লড়াই করতে পারব। তাঁকে (সেরেনা) ছাড়া আমি ট্যুরের কথা কল্পনাও করতে পারি না।’’

মা হয়ে টেনিসে ফেরার দুজনের মাত্র একবারই দেখা হয়েছে। গত বছর ইন্ডিয়ান ওয়েলসের দ্বিতীয় রাউন্ডের ম্যাচটিও জমজমাট লড়াই উপহার দিয়েছিল। সেরেনা জিতেছিলেন ৭-৫, ৬-৩ গেমে। আজারেঙ্কার বিশ্বাস সেরেনা তাঁর সেরাটা তাঁদের লড়াইয়ের জন্য তুলে রাখেন। এবার কী হবে কী জানে। তবে এবারের ইউএস ওপেনে সেরেনার চেয়ে এ পর্যন্ত আজারেঙ্কাই তরতর করে এগিয়েছেন। কাল রাতে তো ১৬তম বাছাই বেলজিয়ামের এলিসে মের্তেনসকে ৬-১, ৬-০ গেমে উড়িয়ে দিয়েই শেষ চারে জায়গা করে নিয়েছেন।

সেরেনা মা হওয়ার পর টেনিস ফেরার পর থেকেই প্রতিটি গ্র্যান্ড স্লাম শুরু করেছেন মার্গারেট কোর্টের রেকর্ড ছোঁয়ার স্বপ্ন নিয়ে। প্রতিবারই অবশ্য হতাশ হতে হয়েছে। ২০১৮ ও ২০১৯ সালে তো উইম্বলডন ও ইউএস ওপেন মিলিয়ে চারটি ফাইনালে হেরেছেন সেরেনা। এবার তাঁর পথ মসৃণ না ভঙ্গুর হয়, সেটাই ঠিক করে দেবে আজকের রাত।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More