বুধবার, নভেম্বর ১৩

ভিড়ের মধ্যে বেপরোয়া গাড়ি, মৃত ৬, গুলিতে নিহত ড্রাইভারও

দ্য ওয়াল ব্যুরো : শুক্রবার ভোরে ভিড়ের মধ্যে দিয়েই প্রচণ্ড জোরে গাড়ি চালিয়ে দিলেন এক ব্যক্তি। গাড়ির ধাক্কায় নিহত হল ছ’জন। গুরুতর আহত হল কমপক্ষে সাতজন। পুলিশের গুলিতে মারা গিয়েছে গাড়ির চালকও। মধ্য চিনের হুবেই প্রদেশের ঘটনা। চালক কেন ভিড়ের মধ্যে গাড়ি নিয়ে ঢুকে পড়েছিল জানা যায়নি। তার পরিচয়ও গোপন রাখা হয়েছে। মোবাইল ফোনে তোলা ভিডিও ছবিতে দেখা গিয়েছে, ঘটনাস্থল থেকে দৌড়ে পালাচ্ছেন অনেকে। অনেকে আহত ব্যক্তিদের সেবা করছেন।

চিনের এক টিভি চ্যানেলে বলা হয়েছে, ঘাতক গাড়ির চালক সহ মারা গিয়েছে মোট সাতজন। এদিন স্থানীয় সময় ভোর ছ’টার সময় মধ্য চিনের হুবেই প্রদেশে জাওইয়াং শহরে এক ব্যক্তি গাড়ি চালিয়ে ভিড়ের মধ্যে ঢুকে পড়ে। আহত সাতজনকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। চালক পুলিশের গুলিতে মারা গিয়েছে।

গত কয়েক বছরে চিনে আরও কয়েকবার এমন আক্রমণ হয়েছে। দেখা গিয়েছে, কোনও ব্যক্তি প্রচণ্ড রেগে গিয়ে ভিড়ের মধ্যে, বাসে কিংবা ছোটদের স্কুলে ঢুকে অনেককে হত্যা করতে চেয়েছে। এসব ক্ষেত্রে জঙ্গিদের যোগসাজশের কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তবে ২০১৩ সালের একটি ঘটনা ছিল ব্যতিক্রম।

সেবছর অক্টোবর মাসে বেজিং-এর তিয়েন আন মেন স্কোয়ারে ভিড়ের মধ্যে একটি চলন্ত গাড়ি ঢুকে পড়ে। মোট পাঁচ জন নিহত হয়। তাদের মধ্যে গাড়ির তিন যাত্রীও ছিল। চিনের সরকার জানায়, উইঘুর সম্প্রদায়ের জঙ্গিরা ওই ঘটনার জন্য দায়ী।

গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে মধ্য চিনের হুনান প্রদেশে ভিড়ের মধ্যে একটি গাড়ি ঢুকে পড়ে। ১১ জন নিহত হন। আহত হন ৪৪ জন। তারপর গাড়ির চালক ছুরি ও শাবল নিয়ে জনতাকে আক্রমণ করে। পরে স্থানীয় প্রশাসন বলে, আক্রমণকারী একজন দাগী অপরাধী। সে সমাজের প্রতি ঘৃণা পোষণ করত। সেই ঘৃণা থেকেই অতজনকে হত্যা করেছে।

গত বছর সাংহাইয়ের একটি বাচ্চাদের স্কুলের সামনে তাণ্ডব চালায় এক অপরাধী। ছুরি মেরে দু’টি শিশুকে হত্যা করে। গত বছর জুলাইয়ে বেজিং-এ আমেরিকার দূতাবাসের সামনে এক ব্যক্তি বোমা ফাটায়। ২০১৬ সালের জুন মাসে সাংহাইয়ের পুডং আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে বিস্ফোরণে তিনজন আহত হন। ২০১৩ সালে চিনের দক্ষিণ-পূর্বে শিয়ামেন শহরে এক ব্যক্তি বাসে আগুন লাগিয়ে ৪৭ জনকে হত্যা করে।

Comments are closed.