শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৪

কান ঘেঁষে বেরিয়ে গেল বিশাল পাথর, পা ভেঙেছে গাইডের: ষষ্ঠ উচ্চতম আগ্নেয়গিরি ছুঁলেন সত্যরূপ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সাত মহাদেশের সাতটি উচ্চতম পর্বতশৃঙ্গ আগেই ছোঁয়া হয়ে গিয়েছিল। এবার লক্ষ্য ছিল বিশ্বের সাতটি সর্বোচ্চ আগ্নেয়গিরির শীর্ষে পা রাখা। বাংলার পর্বতারোহী সত্যরূপ সিদ্ধান্ত সেই উদ্দেশ্যেই পাড়ি দিয়েছিলেন মেক্সিকোর সর্বোচ্চ আগ্নেয়গিরি পিকো দে ওরিজাবা। কিন্তু শৃঙ্গ ছোঁয়ার পরে নামতে গিয়ে দুর্ঘটনার মুখে পড়েছেন বলে জানা গিয়েছে। এক রকম কান ঘেঁষে বেরিয়ে গিয়েছে বিশাল এক পাথর। চোট পেয়েছেন তিনি।

এই নিয়ে ছ’টা সর্বোচ্চ আগ্নেয়গিরি ছোঁয়া হয়ে গেল তাঁর। আর একটি আগ্নেয়গিরি চড়া হলেই গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডের তালিকায় নাম লেখাবেন সত্যরূপ। বৃহস্পতিবার সকালে মেক্সিকোর পিকো দে ওরিজাবা শৃঙ্গ ছুঁয়ে নামার সময়ে একটি বড় গড়ানে পাথরের আঘাতে পা ভেঙে যায় সত্যরূপের গাইড সালভাদরের। চোট পেয়েছেন সত্যরূপও।

এই সক্রিয় আগ্নেয়গিরি উত্তর আমেরিকার তৃতীয় সর্বোচ্চ শৃঙ্গ। যাত্রাপথ বেশ দুর্গম ছিল বলেই জানিয়েছেমন সত্যরূপ। আট ঘণ্টার পথ পেরিয়ে আগ্নেয়গিরির চূড়ায় পৌঁছন তিনি। শৃঙ্গের আগে শেষ ২০০ মিটার খুবই বিপদসঙ্কুল পথ ছিল বলে টুইট করে জানিয়েছেন সত্যরূপ। একটু এদিক-ওদিক হলেই রক্ষে থাকত না। তার পরে ধৈর্য ধরে শৃঙ্গে পৌঁছন তিনি। কিন্তু নীচে নামার সময় দুর্ঘটনার কবলে পড়েন তিনি ও তাঁর গাইড। শেষমেশ বেসক্যাম্পে ফিরে আসার খবর পেয়ে আশ্বস্ত সকলে।

নিজের কৃতিত্বের জন্য এবং সৌভাগ্যবশত বেঁচে ফেরার জন্য ঈশ্বরকে ধন্যবাদ দেন সত্যরূপ। বিশ্বরেকর্ডের জন্য সত্যরূপের আগামী লক্ষ্য দক্ষিণ মেরুর সর্বোচ্চ আগ্নেয়গিরি মাউন্ট সিডলেয়। চলতি মাসের ২১ তারিখেই ওই শৃঙ্গ অভিযানে যাবেন তিনি।

এর আগে পৃথিবীর সর্বোচ্চ সক্রিয় আগ্নেয়গিরি ওজস ডেল সালাডো জয় করার বিরল রেকর্ড রয়েছে সত্যরূপ সিদ্ধান্তের ঝুলিতে। এই সক্রিয় আগ্নেয়গিরির উচ্চতা ৬,৮৯৩ মিটার। দ্বিতীয় বাঙালি হিসেবে এই রেকর্ড গড়েছিলেন সত্যরূপ৷ তাঁর আগে এই সক্রিয় আগ্নেয়গিরিতে পা রেখেছিলেন আর এক ভারতীয় পর্বতারোহী মাল্লি মাস্তান বাবু।

Shares

Comments are closed.