উত্তরপ্রদেশে পুলিশি ‘এনকাউন্টারে’ খুন, মৃতের বাড়িতে যাচ্ছেন অখিলেশ

দ্য ওয়াল ব্যুরো : গত রবিবার উত্তরপ্রদেশের ঝাঁসিতে পুলিশের গুলিতে নিহত হয় ২৮ বছরের এক যুবক। পুলিশের দাবি, সে বালি মাফিয়াদের সঙ্গে যুক্ত ছিল। কয়েকদিন আগে তার বালির লরি আটকানো হয়। রবিবার সে এক সাব ইনস্পেকটরকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। পালটা গুলিতে তার মৃত্যু হয়েছে। অন্যদিকে মৃতের বাড়ির লোকজনের অভিযোগ, সে পুলিশকে ঘুষ দিতে অস্বীকার করেছিল। তাই তাকে গুলি করে মারা হয়েছে।

ওই এনকাউন্টার নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক বিতর্ক। সমাজবাদী পার্টির নেতা অখিলেশ যাদব জানিয়েছেন, তিনি ঝাঁসিতে মৃতের বাড়িতে যাবেন। পুলিশ জানিয়েছে, মৃতের নাম পুষ্পেন্দ্র যাদব। কয়েকদিন আগে যে পুলিশ ইনস্পেকটর তার লরি বাজেয়াপ্ত করেছিলেন, তাঁকে সে মারতে গিয়েছিল। রবিবার ইনস্পেকটরকে লক্ষ্য করে সে গুলি চালায়। গুলি তাঁর শরীরে লাগেনি। তখন পুষ্পেন্দ্র খুব জোরে গাড়ি চালিয়ে পালাতে চেষ্টা করে। তখনকার মতো পালিয়ে গেলেও কয়েক ঘণ্টা বাদে পুলিশ ফের গাড়িটিকে দেখতে পায় ও তাড়া করে। পুলিশের দাবি, তাকে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়। সে পুলিশকে লক্ষ্য করে ফের গুলি চালাতে চেষ্টা করে। সেজন্যই তাকে গুলি করতে হয়েছিল।

পুষ্পেন্দ্রর বাড়ির লোকজনের দাবি, যেখানে তাকে হত্যা করা হয়েছে, রবিবার রাতে ওই এলাকার চার্জে ছিলেন ধর্মেন্দ্র চৌহান নামে এক পুলিশ ইনস্পেকটর। তিনি পুষ্পেন্দ্রর লরি আটকে দেড় লক্ষ টাকা ঘুষ চান। পুষ্পেন্দ্র তাঁকে ভয় দেখিয়ে বলে, ঘুষ চাওয়ার কথা সকলকে জানিয়ে দেব। তখনই ইনস্পেকটর তাকে গুলি করে মারেন।

পুষ্পেন্দ্রর স্ত্রী জানিয়েছেন, তাঁর স্বামী আগে ওই ইনস্পেকটরকে ঘুষ দিয়েছিল। কিন্তু তিনি আরও টাকা চাইতে থাকেন।

পুলিশ সোমবার পুষ্পেন্দ্রর দেহটি দাহ করে। তার বাড়ির লোকজন তাতে আপত্তি করেছিল। তাদের দাবি ছিল, অবিলম্বে খুনের মামলা দায়ের করা হোক। কিন্তু পুলিশ শোনেনি। পরে পুলিশের উচ্চপদস্থ অফিসাররা অবশ্য বলেছেন ওই এনকাউন্টার নিয়ে তদন্ত হবে। কিন্তু অভিযুক্ত পুলিশকর্মীদের বিরুদ্ধে এখনও এফআইআর করা হয়নি।

অখিলেশ মৃতের বাড়িতে যাচ্ছেন শুনে বিজেপি কটাক্ষ করেছে, সমাজবাদী নেতা অখিলেশ বালি মাফিয়াদের ভালোবাসেন। তিনি জাতপাতের অঙ্ক কষে রাজনীতি করেন। মঙ্গলবার পুলিশ টুইট করে জানিয়েছে, পুষ্পেন্দ্রর বিরুদ্ধে আগেও অনেক অভিযোগ ছিল।

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.