শনিবার, সেপ্টেম্বর ২১

বৈশাখীর কান্নার পর বিস্ফোরক শোভন, আমি তৃণমূলে না ফেরাতেই কি ওকে ‘হেনস্থা’

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কলকাতার প্রাক্তন মহানাগরিক শোভন চট্টোপাধ্যায় ও তাঁর বিশেষ বান্ধবী বৈশাখী বন্ধ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে নতুন বিতর্ক তৈরি হল। এদিন সাংবাদিক সম্মেলন করে মিলি আল আমিন কলেজের শিক্ষিকা পদে ইস্তফা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন বৈশাখী। আর সেই ঘোষণার সময়েই হাউহাউ করে কেঁদে ফেলেন তিনি। সেই সময়েই বৈশাখী অভিযোগের সুরে বলেন, শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের অনুরোধ মেনে শোভন চট্টোপাধ্যায় তৃণমূল কংগ্রেসে না ফেরার সিদ্ধান্তের জন্যই তাঁকে হেনস্থা করা হচ্ছে তাঁকে।

একই সুরে শোভন চট্টোপাধ্যায়ও অভিযোগ তুলেছেন। তিনি বলেন, তৃণমূল কংগ্রেসে না ফেরার জন্য যদি এটা হয়ে থাকে তবে তা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। শোভন বলেন, “আঘাত করুন আমাকে। বৈশাখীর কোনও চিন্তা ভাবনা আমি ওকে চাপিয়ে দিই না। ও আমাকে চাপিয়ে দেয় না। কিন্তু আমরা অবশ্যই আলোচনা করি।”

শোভন বলেন, একজন অধ্যাপিকাকে এই হেনস্থা ছোট ঘটনা বলে ভাবলে চলবে না। আমি ফিরে গেলে বৈশাখীর চাকরি থাকবে, আর না হলে থাকবে না, এইরকম তো কথা নয়। শোভন এদিন বলেন, গত ২৩ জুলাই আমি আচমকাই দেখি পার্থদা এসেছেন আমার বাড়িতে। সেই দিনও পার্থদা বলেন, বৈশাখীর দায়িত্ব আমার। ওকে পদত্যাগ করতে হবে না। পার্থদা অনেক ভালো ভালো কথা বলেছিলেন কিন্তু কাজের কাজ কিছুই করেননি।

এদিন বৈশাখীও পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের উদ্দেশে বলেন, উনি রেগে গেলে আমায় বকুন কিন্তু পিছন থেকে ছুরি মারবেন না।

বুধবার কলকাতায় শোভন চট্টোপাধ্যায়ের ফ্ল্যাটে সাংবাদিক সম্মেলন ডাকেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সেখানেই বৈশাখীর অভিযোগ, কলেজে তাঁকে হেনস্থা করা হয়েছে একাধিক বার৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় নানা ভিডিও ছড়ানো হয়েছে তাঁকে নিয়ে৷ তাঁকে সাম্প্রদায়িক প্রমাণ করার চেষ্টাও চলছে। এনিয়ে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কাছে অনেক আর্জি জানিয়ে কাজ হয়নি বলেও অভিযোগ বৈশাখীর। এই সব অভিযোগ করতে করতেই কেঁদে ফেলেন বৈশাখী৷

Comments are closed.