১০ সেপ্টেম্বর রাফাল ফাইটার জেট যুক্ত হবে বাহিনীতে, আমন্ত্রিত ফরাসি প্রতিরক্ষামন্ত্রী

গত ২৯ জুলাই ফ্রান্স থেকে আসা পাঁচ রাফেল ফাইটার জেট ভারতের মাটি ছোঁয়। সাত হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে আসা রাফেলকে আম্বালা এয়ারবেসে স্বাগত জানান বায়ুসেনা প্রধান আরকেএস ভাদুরিয়া।

২৬

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনা আবহেই ভারতের হাতে এসেছে পাঁচটি রাফাল ফাইটার জেট। এবার আনুষ্ঠানিক ভাবে তা ভারতীয় বায়ুসেনার সঙ্গে যুক্ত হবে আগামী ১০ সেপ্টেম্বর। প্রতিরক্ষমন্ত্রী রাজনাথ সিং রাশিয়া সফর সেরে ফিরলেই সেই পর্ব। আর তাতে আমন্ত্রিত ফ্রান্সের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ফ্লোরেন্স পারলি।

আরও পড়ুন

কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ফাইনাল ইয়ারের পরীক্ষা নিতেই হবে, ইউজিসির নির্দেশিকা বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট

সংবাদ সংস্থা এএনআই জানিয়েছে, আগামী ৪ থেকে ৬ সেপ্টেম্বর সাংহাই কোঅপরেশন অর্গানাইজেশনের উদ্যোগে রাশিয়ায় সদস্য দেশগুলির প্রতিরক্ষা মন্ত্রীদের সম্মেলন হবে। তাতে যোগ দিতে যাবেন রাজনাথ সিং। আর সেখান থেকে ফিরলেই আনুষ্ঠানিক ভাবে বিমানবাহিনীর সঙ্গে যুক্ত হবে রাফাল। সেই অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার জন্য ফরাসি প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে আমন্ত্রণ পাঠানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২৯ জুলাই ফ্রান্স থেকে আসা পাঁচ রাফাল ফাইটার জেট ভারতের মাটি ছোঁয়। সাত হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে আসা পাঁচ রাফালকে আম্বালা এয়ারবেসে স্বাগত জানান বায়ুসেনা প্রধান আরকেএস ভাদুরিয়া। সেই দিনেই প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং টুইট করে বলেন, “রাফাল কমব্যাট ফাইটার জেট ভারতীয় বায়ুসেনার ইতিহাসে এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা করল।” তখনই জানা যায়, আম্বালা এয়ারবেসের ‘গোল্ডেন অ্যারো’ ১৭ নম্বর স্কোয়াড্রনের অন্তর্ভুক্ত করা হবে রাফালগুলিকে।

৩৬টি রাফাল ফাইটার জেটের জন্য ফ্রান্সের দাসো অ্যাভিয়েশনের সঙ্গে ৫৯ হাজার কোটি টাকার চুক্তি হয়েছিল ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরেই। এর মধ্যে পাঁচটি এখন ভারতের মাটিতে। যে পাঁচটি রাফাল আসছে ভারতের হাতে সেগুলি থেকে মেটিওর ও স্ক্যাল্প ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া যাবে। রাফাল যুদ্ধবিমান ওড়ানোর জন্য ফ্রান্স থেকে বিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে দেশের ১২ জন পাইলটকে। সূত্রের খবর, এয়ারবাস ৩৩০ মাল্টিরোল ট্যাঙ্কার ট্রান্সপোর্ট এয়ারক্রাফ্ট উড়িয়ে কীভাবে মাঝ আকাশে জ্বালানি ভরতে হবে সেই ট্রেনিং নিয়েছেন পাইলটরা। এই এয়ারক্রাফ্ট ফরাসি বায়ুসেনারা ব্যবহার করেন। রাফাল যুদ্ধবিমান ওড়ানোর পদ্ধতি ও মাঝ আকাশে জ্বালানির ভরার প্রক্রিয়া জানতে আরও ৩৬ জন বায়ুসেনার পাইলটের নাম নথিভুক্ত করা হয়েছে। তাঁরাও ফ্রান্সে গিয়ে প্রশিক্ষণ নেবেন।

এই এয়ারক্রাফ্ট ফরাসি বায়ুসেনা ব্যবহার করে। ডবল ইঞ্জিন মল্টিরোল কমব্যাট ফাইটার এয়ারক্রাফ্ট রাফাল আকাশ থেকে ভূমিতে ও সমুদ্রেও নির্ভুল নিশানা লাগাতে পারে। ৯ টনের বেশি যুদ্ধাস্ত্র বইতে পারে রাফাল। অনেক উঁচু থেকে হামলা চালানো, যুদ্ধজাহাজ ধ্বংস করা, মিসাইল নিক্ষেপ এমনকি পরমাণু হামলা চালানোর ক্ষমতাও রয়েছে রাফালের। রাফালকে আরও শক্তিশালী করার জন্য ‘মেটিওর’ এবং ‘স্কাল্প’ নামে দুটি মিসাইল যোগ করেছে দাসো অ্যাভিয়েশন। মেটিওর ও স্কাল্প মিসাইল বানিয়ছে ইউরোপিয়ান অস্ত্র নির্মাতা সংস্থা এমবিডিএ।

মেটিওর হল বিয়ন্ড ভিসুয়াল রেঞ্জ (বিভিআর) এয়ার-টু-এয়ার মিসাইল। প্রায় ১৫০ কিলোমিটার দূরের লক্ষ্যবস্তুতেও নিখুঁত টার্গেট করতে পারে। প্রতিটি মেটিওর মিসাইলের দাম ২০ কোটি টাকা। ‘স্কাল্প’ হল লো-অবজার্ভর ক্রুজ মিসাইল। দৈর্ঘ্যে ৫.১ মিটার এবং ওজন প্রায় ১৩০০ কিলোগ্রাম। ৬০০ কিলোমিটার পাল্লা অবধি লক্ষ্যে টার্গেট করতে পারে এই মিসাইল। আকাশ থেকে ভূমিতে ছোড়া যায় এই মিসাইল। এটি ব্যবহার করে ব্রিটিশ ও ফরাসি বায়ুসেনা। প্রতিটি স্কাল্প মিসাইলের দাম ৪০ কোটি টাকা। চিনের সঙ্গে সীমান্ত উত্তেজনার এই পরিস্থিতিতে জরুরি ভিত্তিতে ফ্রান্স থেকে হ্যামার মিসাইল সিস্টেমও আনতে চলেছে ভারত। ‘হাইলি অ্যাজাইল মডিউলার মিউনিশন এক্সটেন্ডেড রেঞ্জ’ মিসাইল সিস্টেম আকাশ থেকে ভূমিতে ছোড়া যায়। ৩ মিটার দৈর্ঘ্যের এই মিসাইল সিস্টেমের পাল্লা ৬০ কিলোমিটার। উঁচু পার্বত্য এলাকা, সমতলভূমি যে কোনও জায়গা থেকে আবহাওয়ার যে কোনও পরিস্থিতিতে ছোড়া যায়। একসঙ্গে অনেকগুলো নিশানায় আঘাত করতে পারে।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More