মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১৭

সম্পর্কে নিরাপত্তাহীনতার কথা বলেছেন পত্রলেখা, স্বীকার করলেন প্রেমিক রাজকুমার

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আট বছর হয়ে গেছে তাঁদের সম্পর্কের। সবাই প্রায় সবই জেনে গেছেন। সম্প্রতি বেশ কিছু অনুষ্ঠানে একসঙ্গে দেখাও গিয়েছে রাজকুমার রাও ও তাঁর প্রেমিকা পত্রলেখাকে। দিন কয়েক আগে পত্রলেখা তাঁদের সম্পর্কের বিষয়ে কিছু খুঁটিনাটি শেয়ারও করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ার একটি পেজে। এবার পিছিয়ে রইলেন না রাজকুমারও। ‘কফি উইথ করণ’-এ এসে জানিয়ে দিলেন সম্পর্কের আরও কিছু গভীর কথা।

করণ রাজকুমারকে জিজ্ঞেস করেন বিয়ের কথা। করণ বলেন, “প্রেমের আট বছর তো হয়ে গেল। এবার বিয়ের ব্যাপারে কী ভাবছেন?” রাজকুমার জানান, তিনি এখনও তৈরি নন বিয়ের জন্য। বলেন, “সত্যি বলছি, আমার এখনও নিজেকে বাচ্চা মনে হয়। আমি আদৌ বিয়ের জন্য তৈরি নই। আমরা খুব সুন্দর একা সম্পর্কে আছি, এবং আমরা খুব খুশি সম্পর্কটা নিয়ে। আমাদের মা-বাবাদেরও কোনও অভিযোগ নেই আমাদের নিয়ে, তারা কোনও তাড়াও দিচ্ছেন না বিয়ের ব্যাপারে। আমরা দু’জনেই এখন আমাদের কেরিয়ারের দিকে জোর দিচ্ছি বেশি। তাই বলে এমন নয়, যে বিয়ে ব্যাপারটা আমরা বিশ্বাস করি না। কিন্তু এখুনি আমাদের দু’জনের কেউই এটা জরুরি মনে করছি না। এটা আমাদের পারস্পরিক বোঝাপড়া।”

করণ অবশ্য এই উত্তরে থামেননি, ছুড়ে দেন পরের প্রশ্ন। জিজ্ঞেস করেন, “সম্পর্কের মধ্যে কখনও নিরাপত্তার অভাব কাজ করেনি?” রাজকুমারের সোজাসাপটা উত্তর– “কয়েক বার এরকম পরিস্থিতি এলেও, সেটা খুব সিরিয়াস কিছু নয়। এক সময়ে ও (পত্রলেখা) এই সব নিয়ে নানা কিছু ভাবত। চিন্তা করত, আমায় বলত। কিন্তু না, তেমন সিরিয়াস পরিস্থিতি হয়নি। ও খুবই উদার মনের মেয়ে। ওর ছোটোবেলা কেটেছে শিলঙে। ওখানকার সংস্কৃতি খুবই সুন্দর। আমরা আসলে পরস্পরের খুব ভাল বন্ধু। আর সঙ্গী যদি বেস্টফ্রেন্ড হয়, তা হলে সেটা খুবই ভাল একটা ব্যাপার।”
তবে এতটা বললেও, রাজকুমার অবশ্য তাঁর আর পত্রলেখার সম্পর্কে নিরাপত্তাহীনতার বা টানাপড়েন তৈরির কারণ কে ছিল, তা নিয়ে মুখ খোলেননি।
সব শেষে রাজকুমার পত্রলেখার সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে বলেন, “সবটাই নির্ভর করে শেয়ারিংয়ের ওপর। দিনের শেষে ঘরে ফিরতে এবং সঙ্গীর সঙ্গে সময় কাটাতে তখনই সব চেয়ে ভাল লাগবে, যখন তার সঙ্গে সবটা শেয়ার করা যাবে। এমন নয়, যে সম সময় প্রেমের বিষয়ে কথা বলতে হবে। কিন্তু অনুভূতি ভাগ করে নেওয়াটাই জীবনের আসল জিনিস।”

Comments are closed.