মঙ্গলবার, জুন ২৫

প্রিয়ঙ্কা ও তাঁর স্বামীর সঙ্গে রোড শো, অমেঠীতে মনোনয়ন জমা দিলেন রাহুল

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ট্রাকের মাথায় চড়ে উত্তরপ্রদেশের অমেঠী কেন্দ্রে মনোনয়ন পেশ করতে গেলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। সঙ্গে ছিলেন তাঁর বোন তথা কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গান্ধী, তাঁর স্বামী রবার্ট বঢরা, তাঁদের দুই সন্তান রাইহান ও মিরায়া।

ট্রাক চলছিল ধীর গতিতে। দু’পাশের বাড়ির বারান্দা থেকে তাঁদের ওপরে পুষ্পবৃষ্টি করা হয়। রাস্তায় বিপুল জনতা তাঁদের স্বাগত জানান। নির্বাচন কমিশনের অফিসে রাহুলের মা সনিয়াও আসেন।

অমেঠীর অনেক ভোটার জানিয়েছেন, ওই কেন্দ্রের তিনবারের এমপি রাহুলকে তাঁরা দেখেছেন কমই। সেই তুলনায় প্রিয়ঙ্কাকে দেখা গিয়েছে বেশি। তাঁর ক্যারিশমার ওপরে নির্ভর করেই অমেঠীতে ভোট চাইছে কংগ্রেস।

রাহুল বা প্রিয়ঙ্কার তুলনায় অমেঠীতে বেশি এসেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি। স্মৃতি ২০১৪ সালে রাহুলের কাছে হেরেছিলেন ঠিকই, কিন্তু মার্জিন কমিয়ে এনেছিলেন অনেকখানি। গত কয়েকমাসে তিনি বহুবার ওই কেন্দ্রে এসেছেন। নতুন প্রকল্প চালু করেছেন।

অমেঠী কেন্দ্রে গত কয়েক দশক ধরে নেহরু-গান্ধী পরিবারের সদস্যরা জয়লাভ করেছেন। কিন্তু স্মৃতির জন্যই রাহুলের পক্ষে এবার জেতা সহজ হবে না বলে পর্যবেক্ষকদের ধারণা। রাহুল অমেঠীর পাশাপাশি কেরলের ওয়ানাড় থেকেও ভোটে দাঁড়াচ্ছেন। বিজেপির দাবি, অমেঠীতে হেরে যাওয়ার ভয় আছে বলেই কংগ্রেস সভাপতি ওয়ানাড় কেন্দ্রে দাঁড়িয়েছেন। তিনি নার্ভাস হয়ে পড়েছেন।

রাহুলের পাশে রবার্ট বঢরার উপস্থিতি নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হতে পারে বলে পর্যবেক্ষকদের ধারণা। এর আগে বহুবার বিতর্কে জড়িয়েছেন সনিয়া গান্ধীর ‘দামাদ’ রবার্ট। ২০০২ সালে অভিযোগ ওঠে, রবার্টের বাবা রাজিন্দর বঢরা ও ভাই রিচার্ড বঢরা নেহরু-গান্ধী পরিবারের নাম করে কংগ্রেসের অনেকের থেকে নানা সুবিধা চাইছেন। মহারাষ্ট্রের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী বিলাসরাও দেশমুখ, মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী দিগ্বিজয় সিং, কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী এস এম কৃষ্ণ এসম্পর্কে সনিয়া গান্ধীর কাছে অভিযোগ করেছিলেন।
রবার্টের বিরুদ্ধে সম্প্রতি অভিযোগ উঠেছে, তাঁর সঙ্গে বিতর্কিত অস্ত্র ব্যবসায়ী সঞ্জয় ভাণ্ডারীর যোগাযোগ ছিল। ভাণ্ডারীর বাড়ি ও অফিসে তল্লাশি চালানোর পরে আয়কর দফতর জানায়, রবার্ট ও তাঁর এক্সিকিউটিভ অ্যাসিস্ট্যান্ট মনোজ অরোরা ওই অস্ত্র ব্যবসায়ীর এক আত্মীয়কে ই-মেল পাঠিয়েছিলেন। তাতে লন্ডনের একটি বাড়ি সারানোর ব্যাপারে আলোচনা করা হয়েছে। অভিযোগ, রবার্ট বেআইনিভাবে ওই বাড়ির মালিক হয়েছিলেন। রবার্ট অবশ্য সব অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন।

Comments are closed.