শুক্রবার, এপ্রিল ২৬

এক ফতুর হওয়া শিল্পপতিকে বাঁচানোর জন্যই কি রাফায়েল ডিল? কটাক্ষ শিবসেনার

দ্য ওয়াল ব্যুরো : বায়ুসেনার শক্তি যাতে বাড়ে, সেজন্যই কি রাফায়েল বিমান কেনা প্রয়োজন ছিল? নাকি এক ফতুর হওয়া শিল্পপতিকে বাঁচানোর জন্যই রাফায়েল ডিল? শনিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উদ্দেশে এমনই প্রশ্ন ছুঁড়ে দিল বিজেপির দীর্ঘদিনের জোটসঙ্গী শিবসেনা।

শুক্রবারই সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হয়, রাফায়েল চুক্তি নিয়ে ভারত ও ফ্রান্সের মধ্যে যখন আলোচনা হচ্ছিল, তখন আপত্তি জানিয়েছিল প্রতিরক্ষা মন্ত্রক। ৫৯ হাজার কোটি টাকার ওই চুক্তির জন্য ভারতের হয়ে আলোচনা চালাচ্ছিলেন পিএমও-র অফিসাররা। প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের কোনও প্রতিনিধির মতামত নেওয়া হয়নি। তাতেই প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের অনেকে অসন্তুষ্ট হয়েছিলেন।

এরপর শিবসেনার মুখপত্র ‘সামনা’-য় লেখা হয়, বৃহস্পতিবারই প্রধানমন্ত্রী পার্লামেন্টে দেশপ্রেম নিয়ে ভাষণ দিলেন। তখন বিজেপির সাংসদরা টেবিল চাপড়ে বাহবা দিচ্ছিলেন। কিন্তু পরদিনই এমন একটি নথি প্রকাশিত হল যাতে তাঁরা চুপ করে গেলেন।

এরপরই কারও নাম না করে সামনায় লেখা হয়েছে, আশা করি মোদী জবাব দেবেন, ঠিক কার জন্য রাফায়েল চুক্তি করা হয়েছে? বায়ুসেনার শক্তিবৃদ্ধির জন্য? নাকি এক আর্থিক দুর্দশাগ্রস্ত শিল্পপতির জন্য?

গত কয়েকমাস ধরে রাফায়েল নিয়ে টানা মোদীর সমালোচনা করে আসছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। সেজন্য সংসদে দাঁড়িয়ে বিরোধীদের তীব্র আক্রমণ করেন মোদী। কিন্তু শিবসেনা বলেছে, বিরোধীদের দোষ দেওয়া যায় না। তারা ধ্বংস হয়ে যেতে পারে। কিন্তু সত্যের বিনাশ নেই। মোদী আগে বহুবার বলেছেন, বিরোধীরা দেশের সেনাবাহিনীকে শক্তিশালী করতে চায় না। সম্প্রতি সংসদে দাঁড়িয়েও একই অভিযোগ করেছেন। কিন্তু তার পরদিনই এমন একটি নথি প্রকাশিত হল যাতে বোঝা যায়, ওই চুক্তির জন্য মোদী ব্যক্তিগতভাবে ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন। এ থেকে আমরা কী বুঝব?

একইসঙ্গে ‘সামনা’-র সম্পাদকীয়তে বলা হয়েছে, মোদী নিজে ওই ডিল নিয়ে আলোচনা করছিলেন। প্রতিরক্ষামন্ত্রী, প্রতিরক্ষা সচিব, কাউকেই কিছু জানানো হয়নি। মোদী নিজেই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, রাফায়েল বিমান কী দামে কেনা হবে? তার কন্ট্র্যাক্ট দেওয়া হবে কাকে? তাঁকে তো এখন অভিযোগের মুখে পড়তেই হবে।

মোদী সংসদে বলেছিলেন, বিরোধীরা আমার সমালোচনা করতে পারেন। কিন্তু দেশের বদনাম করা ঠিক নয়। শিবসেনার পালটা বক্তব্য, জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়ে জানতে চাওয়াকে কীভাবে দেশের বদনাম করা বলা যেতে পারে?

শিবসেনার অভিযোগ, বর্তমান বিজেপি সরকারের আমলে জাতীয়তাবাদের মানে বদলে গিয়েছে। যারা রাফায়েল ডিলের প্রশংসা করবে তারা দেশপ্রেমিক। যারা ওই বিমানের দাম নিয়ে প্রশ্ন তুলবে তাদের দেশদ্রোহী বলে ছাপ মেরে দেওয়া হবে।

Shares

Comments are closed.