Latest News

ভয়ংকর অথচ নয়নাভিরাম, মরুভূমির নাম ‘তাকলা মাকান’

নামের উৎস নিয়ে মতভেদ আছে। কেউ বলে ফার্সি ভাষায় 'তাকলা মাকান' শব্দের অর্থ 'যেখান থেকে কেউ ফেরে না'। কেউ বলেন, তুর্ক শব্দ 'তাকলাম মাকান' থেকে এসেছে এই মরুভূমির নাম। যার অর্থ 'মৃত্যুক্ষেত্র'।

এশিয়ার মানচিত্রে তাকলা মাকান মরুভূমির অবস্থান।উত্তর-পশ্চিম চীনের শিনজিয়ান প্রদেশ, দক্ষিণে পামির ও কুনলুন পর্বতমালা এবং উত্তরে তিয়ান শান পর্বতমালার মধ্যে অবস্থিত এই তাকলামাকান মরুভূমি।

মরুভূমির দক্ষিণ প্রান্তে অবস্থিত হোতান শহর এবং উত্তর প্রান্তে অবস্থিত লিউনতাই শহরের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপন করেছে তাকলা মাকান মরুভূমির মধ্য দিয়ে চলা এই হাইওয়ে।

তাকলা মাকান মরুভূমি পূর্ব-পশ্চিমে প্রায় ১০০০ কিলোমিটার এবং উত্তর-দক্ষিণে প্রায় ৪০০ কিলোমিটার দীর্ঘ। এই মরুভূমির মোট আয়তন প্রায় ২,৭০,০০০ বর্গকিলোমিটার।

তাকলা মাকান মরুভূমি পৃথিবীর শুষ্কতম মরুভূমিগুলির মধ্যে অন্যতম। বছরে এখানে মাত্র ১ সেন্টিমিটারের মতো বৃষ্টিপাত হয়।

দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, রাতে তাপমাত্রা নামতে পারে হিমাঙ্কের ২০ ডিগ্রি নিচে।

তাকলা মাকান মরুভূমির মধ্যভাগ বৃষ্টিচ্ছায়া অঞ্চল। তাই মরুভূমির মধ্যভাগ প্রাণহীন। মরুভূমির ভেতর দিয়ে পাহাড় থেকে নেমে আসা কিছু জলধারা মরুভূমির স্থানে স্থানে সৃষ্টি করেছে মরূদ্যান।

সারাবছর ধরে দেশ বিদেশের পর্যটকেরা আসেন এই মরুভূমিতে ট্রেকিং ও ক্যাম্পিং করতে বা উটে চড়তে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অন্যতম রোজগারের পথ তাই পর্যটনশিল্প।

 তাকলা মাকান মরুভূমিকে সবুজ বানানোর চেষ্টা করছে চিন। তিব্বতের সাংরি অঞ্চল থেকে তাকলামাকান মরুভূমি পর্যন্ত বানানো হবে এক সুড়ঙ্গ।  কৃষির জন্য সুড়ঙ্গের মধ্যে দিয়ে  ব্রহ্মপুত্রের জল পৌঁছে দেওয়া হবে মরুভূমিতে।  ২০১৮ সালের মার্চ মাসে শুরু হয়েছে এই প্রকল্প।

 

You might also like