সোমবার, এপ্রিল ২২

এক পয়সার তৈল

দেখা গেল বেজায় আমেজ পেয়েছেন অমুক বাবু আর তমুক বাবু। পার্কের বেঞ্চে বসে হাসি তামাশা করছিলেন। দুজনের বয়সে সামান্য ফারাক। এক জন বছর পঞ্চান্ন, আর এক জন ষাট ছুঁই ছুঁই। দুজনেরই বিলক্ষণ মনে আছে, তখন তাঁরা স্কুলে নীচু ক্লাসের ছাত্র, হালকা চতুর্ভুজ এক পয়সা দিয়ে ‘টিফিনের সময়’ কিঞ্চিৎ কুল কিংবা হজমি মিলত।
হালকা মানে ফিনফিনে হালকা। তাঁদের আগের কোনও প্রজন্মের সময়ে হয় তো ‘এক পয়সার তৈল, কিসে খরচ হৈল’ বলে জবাবদিহি চাওয়া হয়, কিন্তু প্রাপ্ত হজমির পরিমাণ বা মুদ্রার ওজন কখনওই তাঁদের মনে হওয়ায়নি যে এক পয়সা মহার্ঘ। যেটা এতদিন বাদে, কমন্ডলুর বদলে চায়ের কেটলি শোভিত মহর্ষি নরেন্দ্রভাইয়ের দ্বিতীয় দফায় ভোট ভিক্ষের আগের বছরে এসে মনে হল।
তাঁর সরকারের ছত্রছায়ায় থাকা তেল কোম্পানিগুলো রীতিমতো বিবৃতি দিয়ে বলে দিল, ভাই সকল, যদিও আমরা বলেছিলাম তেলের দাম লিটারে ষাট পয়সা কমেছে, আসলে ওটা না ভুল হয়ে গেছে বিলকুল। টেকনিক্যাল ভুল। তবে আমরা আপনাদের পুরো নিরাশ করছি না। আমরা লিটারে এক পয়সা করে কিন্তু কমাচ্ছি। কর্ণাটক ভোটের আগে দমবন্ধ করে অপরিবর্তিত রাখা হয়েছিল তেলের দাম, তার পর আগল খুলে দেওয়া হলো এমন ভাবে, যা শুধু  আমজনতার পকেটে টান দিলো না, ধাক্কা মারলো সোজা মাথায়।
সেই ধাক্কার পরে এই এক পয়সার রসিকতা। বিদেশ থেকে ধেয়ে এল চেক আপ করাতে যাওয়া মায়ের সফরসঙ্গী ছেলের টুইট…..মিস্টার মোদী, এটা কি আপনার নতুন রসিকতা? রাহুলের টুইট বুধবার দিনভর এমন বহু মানুষও খুবই গ্রহণযোগ্য ও যুক্তিপূর্ণ মনে করেছেন, ব্যক্তি রাহুল বা নেতা রাহুলে যাঁদের বিশেষ ভরসা নেই।
কারণ তাঁরা প্রতিদিন আরো বেশি বেশি করে মনে করতে শুরু করেছেন যে, ২০১৪ সালের ঢক্কানিনাদে, থিয়েটারী  কায়দায় গলা খাদে নামিয়ে আবেগাপ্লুত অঙ্গীকারে খুব বেশি সত্যি ও আন্তরিকতা ছিল না। তাঁরা মনে করছেন, চার বছর আগে ঐতিহাসিক পরিমাণে ভোট পেয়ে তিনি দেশের মানুষকে যেন ‘টেকেন ফর গ্র্যান্টেড’ করে ফেলেছেন।
গত চার বছরে তিনি যত বারই সাগর পাড়ি দিন না কেন, সামনের কয়েক মাসে সমুদ্র কিন্তু উত্তাল হতে পারে আরও। নিজেদের ইগো ভুলে দলগুলো এককাট্টা হলে ঘুম যে ছুটে যেতে পারে, তার ইঙ্গিত তো কাইরানা দেখাতে শুরু করেই দিল বলা যায়।
চল্লিশ ওভার ধরে রঙ্গ, রসিকতা, নাটক, তামাশার পরে শেষ দশ ওভারে রান উঠবে তো? তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে স্লগ ওভারে আরোই ক্যাচ উঠে যায় যে!!!
Shares

Leave A Reply