বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৯

পেট্রোলের দামে আগুন লাগিয়ে দিলেন মোদী, ফুঁসছে কংগ্রেস-তৃণমূল

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ‘ভুত আমার পুত, পেত্নি আমার ঝি, হাতের কাছে গুগল আছে করবি আমার কী!’

ডিজিটাল ইন্ডিয়া নিয়ে নানাবিধ বিতির্ক থাকলেও এ বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই ইন্টানেটের দুনিয়ায় গুগল এখন ‘রাম-লক্ষণ।’ আর গুগলের দুনিয়ায় ঢুকে ইউটিউবের দেশে গিয়ে ২০১২ সালে মোদী পেট্রোল-ডিজেলের দামবৃদ্ধি নিয়ে মনমোহন সিংকে কী বলেছিলেন সেটা খুঁজে পাওয়াও এখন এক মিনিটের খেল।

গত পাঁচ দিনে রোজ বেড়েছে পেট্রোলের দাম। কোনও দিন ১৮ পয়সা তো কোনও দিন ২২ পয়সা। ওয়াকিবহাল মহলের মতে চলতি মাসে লিটার প্রতি ৮০ টাকা ছুঁতে পারে পেট্রোলের দাম। আর এতেই ক্ষুব্ধ কংগ্রেস থেকে তৃণমূল। গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন পেট্রল ডিজেলের দাম নিয়ে ২০১২ সালে করা নরেন্দ্র মোদীর একটি ক্লিপিং ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুক, টুইটারে। যেখানে মোদী পেট্রল-ডিজেল-রান্নার গ্যাসের দাম বৃদ্ধি নিয়ে তুলোধনা করছেন ইউপিএ সরকারকে। সেই সঙ্গে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর করা গত ৪ এপ্রিলের একটি টুইটের রিটুইট বাড়তে থাকে লাফিয়ে লাফিয়ে। যেখানে দেখা যাচ্ছে মোদীর পেট্রোল-ডিজেলের দাম কমানো নিয়ে বক্তৃতা শুনে অট্টহাসিতে ফেটে পড়ছেন সলমন খান।

কর্নাটক বিধানসভা নির্বাচনের জন্য বেশ কয়েকদিন পেট্রোল-ডিজেলের দাম সিগন্যালে আটকে থাকলেও ভোট মিটতেই তা গিয়ার তুলতে শুরু করেছে। টানা পাঁচদিন ধরে ধারাবাহিক পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃধির বিরুদ্ধে সরব হয়েছে কংগ্রেস থেকে তৃণমূল। কংগ্রেস নেতা মনীশ তিওয়ারি বলেন, ‘কর্নাটক ভোটের আগে মুখোশ পরে নিয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার। ভোট মিটতেই আবার আসল মুখ বেড়িয়ে পড়েছে।’ ফুঁসছে তৃণমূলও। তৃণমূলের তরফে এক সাংসদ বলেন, মোদী পেট্রোলে আগুন লাগিয়ে দিয়েছেন। আর দেশের মানুষ তাতে পুড়ছে।’

Leave A Reply