বৃহস্পতিবার, মার্চ ২১

দোলের রঙে অন্য ধর্মের অসুবিধা কেন! বিজ্ঞাপন নিয়ে প্রশ্ন তুলে, সার্ফ এক্সেল বয়কটের দাবি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দোলের দিন সকাল। অলিগলি জুড়ে বাচ্চারা মেতে রয়েছে রঙের উৎসবে। এমন সময়ে একটি সাইকেলে করে এসে পৌঁছল খুদে এক মেয়ে। ঝকঝকে পোশাক। তবে এসেই সে বুঝিয়ে দিল, রং মাখার জন্য সে তৈরিয সঙ্গে সঙ্গে তার শরীর জুড়ে আছড়ে পড়ল অসংখ্য রং ভরা বেলুন, পিচকিরির রং।

এমন সময়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে এল সাদা জামা, সাদা টুপি পরা আর এক খুদে। তার পোশাকআশাক বলছে, রং খেলতে নয়, নামাজ পরতে যেতে চায় সে। কিন্তু এত রঙের ভিড়ে কিঞ্চিৎ কুণ্ঠিত। ত্রাতা হয়ে আসে সাইকেলে চড়া সেই মেয়েটি। ছেলেটিকে সাইকেলে চাপিয়ে, গায়ে একটাও রঙের আঁচড় না লাগতে দিয়ে তাকে মসজিদে পৌঁছে দেয় সে।

এই গল্পটিকেই তাদের সাম্প্রতিক বিজ্ঞাপনে সুন্দর করে তুলে ধরেছিল সার্ফ এক্সেল।  বিজ্ঞাপনটি বেরোনোর পরে প্রচুর মানুষ দেখেন, পছন্দ করেন, শেয়ারও করেন। বেশির ভাগ মানুষই বলেন, সম্প্রীতির এক অনন্য গল্প বলেছে এই সাবান সংস্থা।

কিন্তু দর্শকদের একাংশের মতে, এই বিজ্ঞাপনে  আপত্তিজনক কিছু বিষয় থেকে গিয়েছে, যা হিন্দুদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করছে। এর পরেই সোশ্যাল মিডিয়াতে ‘ব্যান সার্ফ এক্সেল’ ট্রেন্ডিং শুরু হয়ে গিয়েছে৷ সার্ফ এক্সেলের অফিসিয়াল ফেসবুকে ভিডিওটি পোস্ট করা হলে, সেখানেও নিজেদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন প্রচুর নেটিজেন।

কিন্তু বিরোধটা কোথায়?

হিন্দু ধর্মের ক্ষুব্ধ একাংশের অভিযোগ, বহু বছর ধরে ভারতে বহু ধর্মের সহাবস্থান রয়েছে৷ তারা একে অন্যের উৎসবে অংশগ্রহণও করে৷ এক সম্প্রদায়ের উৎসব অন্যের ধর্মাচরণের জন্য বাধা হয়নি কখনও৷ কিন্তু অভিযোগ, সম্প্রতি সার্ফ-ক্সেলের দোল নিয়ে বানানো বিজ্ঞাপনে পরোক্ষ ভাবে দেখানো হয়েছে, হিন্দুদের দোল উৎসবে মুসলমানদের অসুবিধা হয়৷

দেখে নিন সেই বিজ্ঞাপন।

এমনটাই দাবি হিন্দুদের একাংশের৷ তাদের প্রশ্ন, রাস্তায় দোল খেললে মসজিদে যেতে কারও অসুবিধে কেন হবে? এই প্রশ্নের সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়াতে ব্যান সার্ফ এক্সেল ট্রেন্ড ভাইরাল হয়েছে৷ একই সঙ্গে, পাল্টা ব্যান না-করার দাবিও উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়াতেই। অনেকেই বলছেন, এই বিজ্ঞাপনে কারও কোনও ধর্মে আঘাত লাগার মতো কোনও কিছুই নেই। এখানে সকল ধর্মকে সম্মান করতে শেখানো হয়েছে, কোনও ধর্মকে নিচু করতে নয়।

এটা নির্মল শৈশবের গল্প, উৎসবের গল্প। এতে ধর্মের রং খুঁজে বিতর্ক তৈরি করতে যাওয়া অর্থহীন বলেই মনে হচ্ছে অনেকের।

Shares

Comments are closed.