Latest News

একক চেষ্টায় বাংলা কমিক্সকে অনেক উঁচুতে পৌঁছে দিয়েছিলেন: শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়

শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়

নারায়ণ দেবনাথ এমন একটি বিষয়ে কাজ করতেন, কমিক্স, যা বাংলা সাহিত্যে খুব একটা সমৃদ্ধ নয়। এই বিষয়ের ওপর যে অনেক শিল্পী কাজ করেছেন তেমনটাও নয়। সেইদিক থেকে দেখতে গেলে বলা যায়, তিনি একক চেষ্টায় বাংলা সাহিত্যের কমিক্সকে একটা সম্মানজনক জায়গায় পৌঁছে দিয়েছিলেন। দীর্ঘদিন ধরেই একটা মাধ্যম নিয়েই কাজ করে গিয়েছেন। পাশাপাশি কিছু অলংকরণের কাজও করেছেন ঠিকই। কিন্তু নন্টে ফন্টে, হাঁদা-ভোঁদা, বাটুল দ্য গ্রেট এই তিনটে কমিক্স বাংলা সাহিত্যে ও শিশুদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়েছে।

এটা ঠিক, যে এখনকার বাচ্চারা বেশি পড়ে না, তবে কমিক্স দেখে। তাদের অতি প্রিয় জিনিস এই কমিক্স। তবে বিশেষ করে বাংলা কমিক্স তো খুব একটা পাওয়া যায় না। বিদেশে অনেক আছে কিন্তু আমাদের দেশে খুব একটা নেই। সেইদিক থেকে দেখতে গেলে নারায়ণ দেবনাথ এমন একটি মাধ্যম বেছে নিয়েছিলেন, যে সেটি বাংলা সাহিত্যে খুব বেশি চর্চিত বিষয় নয়। আর তাতে তিনি একক চেষ্টায় অনেক কিছু করে গেছেন। যা করেছেন তাতে তিনি কিংবদন্তীতুল্য খ্যাতি পেয়েছেন।

বাঙালি শিশু, বালক-বালিকা, এমনকি বড়রাও তাঁর লেখার ভক্ত। তাঁর ছবির ভক্ত। সব মিলিয়ে মিশিয়ে তিনি অসামান্য বর্ণময় মানুষ ছিলেন তিনি। কিন্তু মানুষ হিসেবে অসম্ভব শান্ত, নিরীহ, বিনয়ী কম কথা বলার মানুষ ছিলেন তিনি। আমি ব্যক্তিগতভাবে তাঁকে যতটা দেখেছি তাতে আমার মনে হয়েছে, তিনি একজন চমৎকার মানুষ ছিলেন।

বয়েস হয়েছিল, চলে গেলেন। এভাবেই একটা সময় বিদায় দিতে হয়। তাঁর চলে যাওয়ায় এক বিরাট শূন্যতার সৃষ্টি হল। আমার সঙ্গে নানা অনুষ্ঠানে অনেকবার দেখা হয়েছে তাঁর। সবসময়ই দেখেছি খুব চুপচাপ, শান্ত। এটাই উনি। খুব একটা কথা বলতে দেখিনি কখনই। জিজ্ঞেস করলে বলতেন সবসময়, ‘ভাল আছি’। নারায়ণবাবুর এটাই স্বভাব ছিল।

You might also like