বুধবার, মার্চ ২০

রাফায়েল থেকে কেউ বাঁচাতে পারবে না মোদীকে: রাহুল

দ্য ওয়াল ব্যুরো : মঙ্গলবারই অপসারিত সিবিআই প্রধান অলোক বর্মাকে পুনর্নিয়োগ করতে বলেছে সুপ্রিম কোর্ট। এদিনই সেই রায়কে হাতিয়ার করে লোকসভায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে তীক্ষ্ণ আক্রমণ শানালেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। তাঁর দল আগেই অভিযোগ করেছিল, রাফায়েল নিয়ে তদন্ত করতে চেয়েছিলেন বলেই অলোক বর্মাকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। এদিন তিনি ফের সিবিআই প্রধানের পদটি ফিরে পাওয়ার পরে রাহুল বলেন, রাফায়েল থেকে আর কেউ মোদীকে বাঁচাতে পারবে না।

গত ২৩ অক্টোবর মধ্যরাতে সরকার সি বি আই প্রধান অলোক বর্মা ও উপপ্রধান রাকেশ আস্থানাকে পদ থেকে সরিয়ে দেয়। তাঁদের ছুটিতে যেতে বলা হয়। তাঁদের জায়গায় সিবিআইয়ে অন্তর্বর্তী প্রধান নিয়োগ করা হয়। সরকার বলে, সিবিআইয়ের দুই কর্তা নিজেদের মধ্যে বিরোধে জড়িয়ে পড়েছিলেন। একে অপরের নামে ঘুষ খাওয়ার অভিযোগ করছিলেন। তাঁদের বিরুদ্ধে তদন্ত হবে। তাই দু’জনকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এদিন অলোক বর্মাকে সিবিআই প্রধানের পদে ফিরিয়ে দিলেও তাঁকে গুরুত্বপূর্ণ পলিসিগত সিদ্ধান্ত নিতে নিষেধ করেছে কোর্ট। বিচারপতি বলেছেন, তাঁর সম্পর্কে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে এক উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন সিলেক্ট কমিটি। কমিটিতে থাকবেন প্রধানমন্ত্রী, প্রধান বিরোধী দলের নেতা ও দেশের প্রধান বিচারপতি।

এদিন রাহুল গান্ধী বলেন, রাত ১ টায় সিবিআই প্রধানকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। কারণ তিনি রাফায়েল চুক্তি নিতে তদন্ত শুরু করতে চলেছিলেন। এখন আর কিছু প্রধানমন্ত্রীকে রাফায়েল থেকে বাঁচাতে পারবে না। তদন্ত হয়ে যাবে শীঘ্র।

আগের অভিযোগের পুনরাবৃত্তি করে রাহুল বলেন, একটা ব্যাপার পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী অনিল আম্বানিকে ৩০ হাজার কোটি টাকা লাভ করতে সাহায্য করেছিলেন। সারা দেশ শীঘ্র সত্যটা জানতে পারবে।

সুপ্রিম কোর্টের রায় সম্পর্কে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি বলেন, সিবিআইয়ের দুই শীর্ষ কর্তা নিজেদের মধ্যে লড়াই করছিলেন। ওই সংস্থার বিশ্বাসযোগ্যতা বজায় রাখার জন্যই দু’জনকে ছুটিতে যেতে বলা হয়েছিল। আমরা কারও সঙ্গে শত্রুতা করিনি।

কংগ্রেস ও অন্যান্য বিরোধী দলের অভিযোগ, ফ্রান্সের দাসো কোম্পানি থেকে রাফায়েল বিমান কেনার চুক্তিতে সরকার লাভবান হয়নি। লাভ হয়েছে শিল্পপতি অনিল আম্বানির।

লোকসভা ভোটের আগে রাফায়েলকে বড় ইস্যু করতে চাইছে কংগ্রেস। রাহুল গান্ধী প্রায় রোজই জনসভায় ও সোশ্যাল মিডিয়ায় ওই চুক্তি নিয়ে নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে সমালোচনা করছেন। এরপর অলোক বর্মাকে কোর্ট আগের অবস্থানে ফিরিয়ে দেওয়ায় নতুন অস্ত্র পেয়েছে কংগ্রেস।

 

Shares

Comments are closed.