সোমবার, অক্টোবর ২১

নবদুর্গার আশীর্বাদ পেতে কবে কী ভোগ নিবেদন করবেন জেনে নিন

অনির্বাণ

চলছে নবরাত্রি। সাফল্য পেতে, মনস্কামনা পূর্ণ করতে সকলে দেবীর কাছে নানা প্রার্থনা করেন। সনাতন হিন্দু শাস্ত্র জানাচ্ছে, দুর্গার নয় অবতারকে তুষ্ট করতে এই প্রসাদ নিবেদন করা উচিত দেবীকে।

শৈলপুত্রী: সতীর দেহত্যাগের পরে হিমালয়ের কন্যা রূপে এই দেবী জন্মগ্রহণ করেন। শৈলপুত্রীর প্রসাদ দেশি ঘি।

ব্রহ্মচারিণী: ব্রহ্মচারিণীকে প্রসাদ হিসেবে দেওয়া হয় চিনির সন্দেশ। দক্ষ প্রজাপতির কন্যা সতীরূপে মা জন্ম নেন।

চন্দ্রঘণ্টা: মনস্কামনা পূর্ণ করতে দুধ দিতে হয় প্রসাদ হিসেবে।শিবের সঙ্গে বিবাহের পরে মা এমন রূপ ধারণ করেছিলেন বলে মনে করা হয়।

কুষ্মাণ্ডা: মালপোয়া এই দেবীর প্রসাদ। সিদ্ধিদাত্রী রূপের ঠিক পরেই এই রূপ মা গ্রহণ করেন।

স্কন্দমাতা: কলা স্কন্দমাতার প্রধান প্রসাদ। দেবসেনাপতি স্কন্দদেবের মাতার রূপ।

কাত্যায়নী: মধু দেওয়া হয় দেবী কাত্যায়নীকে। মহিষাসুরকে বধ করে দেবী কাত্যায়নী রূপ প্রাপ্ত হন।

কালরাত্রি: মায়ের সবথেকে তীব্র ও ভয়ঙ্কর রূপ। শুম্ভ ও নিশুম্ব বধের কালে মা এই রূপ পরিগ্রহ করেছিলেন। ভেলি গুড় দেওয়া হয় কালরাত্রিকে।

মহাগৌরী: নারকেল দেবী মহাগৌরীর প্রসাদ। ষোড়শী রূপ। বরাভয়দায়িনী। দেবী পার্বতী শিবকে লাভের জন্য যখন তপস্যা করছিলেন, তখন তাঁর দেহ কৃষ্ণবর্ণ ধারণ করে।

Comments are closed.